এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > জনগণকে এবার কী বলবে সরকার? সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খেতেই মমতাকে তীব্র আক্রমন হেভিওয়েট নেতার

জনগণকে এবার কী বলবে সরকার? সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খেতেই মমতাকে তীব্র আক্রমন হেভিওয়েট নেতার



সমগ্র দেশ জুড়ে করোনা পরিস্থিতি যে মোটেই স্বস্তিদায়ক নয়, তা এতদিনে সবার বোধগম্য হয়েছে। ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি আবার মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। এই পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন রাজ্যের করোনা চিকিৎসা এবং মৃতদেহ নিয়ে যে চরম অব্যবস্থা দেখা দিয়েছে তাই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করল দেশের শীর্ষ আদালত। সূত্রের খবর এদিন শীর্ষ আদালত সুপ্রিম কোর্ট দেশের চারটি রাজ্যের নাম করে সেখানকার অবস্থাকে তুলে ধরেছে।

এই চারটি রাজ্য হল – মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, দিল্লি এবং পশ্চিমবঙ্গ। এই চার রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দেশের শীর্ষ আদালত বলে জানা গেছে। এমনকি কোভিড 19 মৃতদেহের সৎকারও ঠিকভাবে হচ্ছেনা বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সুপ্রীম কোর্ট। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় সরকার সহ চারটি রাজ্যকে ইতিমধ্যে নোটিশ পাঠিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এদিন শীর্ষ আদালত থেকে আরও বলা হয়, উক্ত রাজ্যের করোনা হাসপাতালগুলির অবস্থাও খুবই খারাপ।

সেখানে প্রতিটি ওয়ার্ডেই প্রায় মৃতদেহ পড়ে রয়েছে। কোন কোন রাজ্যে দেখা যাচ্ছে, আবর্জনার স্তূপের উপর দেহ পড়ে আছে। মৃতদেহগুলোকে প্রায় পশুর দেহের মতো ট্রিট করা হচ্ছে। সুতরাং পরিস্থিতি যে ক্রমশ উদ্বেগজনক হয়ে উঠেছে সে কথা বলাই বাহুল্য। অন্যদিকে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ সামনে আসার পরেই কেন্দ্রীয় সরকার এবং রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে রীতিমত চরম ক্ষোভ প্রকাশ করলেন বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। তিনি জানান, করোনার প্রাথমিক স্তর থেকেই তিনি দৃষ্টি আকর্ষণ করে চলেছেন কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু বিরোধী নেতা হওয়ার জন্য তাঁর কথাকে বিন্দুমাত্র ভ্রুক্ষেপ করেনি কোন সরকারই। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে যেভাবে আব্দুল মান্নান বলেন, জনতা কার্ফুর শেষে জনগণ কাঁসর ঘন্টা বাজিয়ে মিছিল করেন এবং আতশবাজির উৎসব করে শাসকদলের 40 তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করল, তা যথেষ্ট লজ্জার। অন্যদিকে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগে আব্দুল মান্নান এদিন বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাগ কেটে কে কোথায় দাঁড়াবেন সে কথা বলে এলেন, কিন্তু শেষমেশ করোনাকেই পাশবালিশ হিসেবে ব্যবহার করার যে উপদেশ তিনি দিলেন, তা যথেষ্ট লজ্জার। সুপ্রিম কোর্টে এইভাবে রাজ্য সরকার ধাক্কা খাওয়ার পর তিনি প্রশ্ন তোলেন, “জনগণকে এবার কী বলবে সরকার?”

তাই সুপ্রিম কোর্টের যে যে বক্তব্য আজ প্রকাশ পেয়েছে এটা যে বিরোধীদের তোলা অভিযোগ সঠিক এবং সত্য প্রমাণ করল সে কথাই জানান কংগ্রেস দলনেতা আব্দুল মান্নান। অন্যদিকে এদিন শীর্ষ আদালত জানায়, কিভাবে মৃতদেহ সৎকার হবে সেই সংক্রান্ত নিয়মাবলী কেন্দ্রীয় সরকার জারি করেছে। কিন্তু কোন কোন রাজ্য সেই নির্দেশ মানছে না। অনেক সময় পরিবারের লোকেরাও জানতে পারছেন না, তাঁদের আত্মীয় মারা গিয়েছেন। এই মামলার শুনানি আগামী 17 তারিখে আবার হবে বলে জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে বিশেষজ্ঞদের মতে, আনলক ওয়ান পর্বে দেশ মোটামুটি স্বাভাবিকের পথে। কিন্তু তার মধ্যেই ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী করোনার গ্রাফ। শীর্ষ আদালতের নির্দেশিত চারটি রাজ্যেই ক্রমশ বেড়ে উঠছে আক্রান্তের সংখ্যা, লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। এই অবস্থায় পশ্চিমবঙ্গের নাম শীর্ষ আদালত উল্লেখ করায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নামে যে বিশেষ দাগ পড়ল সে ব্যাপারে একমত রাজ্যের সবকটি বিরোধী দলই। এই অবস্থায় শীর্ষ আদালতের জারি করা নোটিশের জবাবে কি জবাবদিহি করে এই চার রাজ্য, সেদিকেই এখন নজর সবার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!