এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > করোনা নিয়ে সামনে এলো বিস্ফোরক তথ্য, জেনে নিন

করোনা নিয়ে সামনে এলো বিস্ফোরক তথ্য, জেনে নিন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনার কারণে সারা বিশ্ব এই মুহূর্তে চরম আতঙ্কিত। এখনো পর্যন্ত সবথেকে চিন্তার ব্যাপার হলো এটাই, করোনাকে ঘায়েল করার জন্য মানুষের হাতে কোনো প্রতিষেধক বা ওষুধ নেই। শুধুমাত্র সর্তকতা ও সাবধানতা অবলম্বন করেই চলতে হচ্ছে সমগ্র মানবজাতিকে। তবে বিভিন্ন দেশে এই মুহূর্তে যে কোন মূল্যে একটি প্রতিষেধক আবিষ্কার করার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানা যাচ্ছে। তবে করোনা আবহের প্রথম থেকেই আন্তর্জাতিক মহলে চীনকে করে দেওয়া হয়েছে ব্রাত্য।

বিভিন্ন দেশের মতে করোনার আঁতুরঘর চীন। করোনা সংক্রমণ নিয়ে চীন যদি যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করত তাহলে সারা বিশ্ব এভাবে মারণ সংক্রমণের হাতে পড়তো না বলেই মত আজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের। চীনের বিরুদ্ধে সবথেকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছে আমেরিকা। তবে চীনের বিরুদ্ধে করোনার উৎপত্তিস্থল নিয়ে প্রবল দাবি উঠলেও এই দাবি সব সময় প্রত্যাখ্যান করেছে চীন। অন্যদিকে এই সম্পর্কে সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

সূত্রের খবর, বছর সাতেক আগে চীনের ইউহান প্রদেশে করোনার মতনই আর একটি ভাইরাস এসেছিল। সে সময় সেই ভাইরাস এর নমুনা চীনের ইউহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজিতে পাঠানো হয়েছিল পরীক্ষার জন্য বলে জানা গেছে। কিন্তু চীনের তরফ থেকে এই বিষয়টিকে মোটেই গুরুত্ব দেওয়া হয়নি বলে খবর। সম্প্রতি ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যমে একটি খবরের দ্বারা জানা গেছে, 2013 সালে চীনের ইউহান প্রদেশে করোনার মতনই একটি ভাইরাস পাওয়া গিয়েছিল।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সে সময় এই ভাইরাসের কবলে পড়ে তিনজনের মৃত্যুও হয়েছিল বলে জানা গেছে। সেসময় গবেষকরা বলেছিলেন, বাদুড় থেকে সংক্রমিত হয়েছে এই রোগ। এরপরে ভাইরাস আক্রান্তদের শরীরের নমুনা পাঠানো হয়েছিল ইউহানের ল্যাবে। কিন্তু পরবর্তীতে তা নিয়ে চীন দেশ কোন গবেষণা করেনি বলে জানা গেছে। অন্যদিকে গত মে মাসে ‘ইউহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি’র ডিরেক্টর পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁদের কাছে র‍্যাটজি 13 ভাইরাসের কোনো জীবন্ত কপি নেই। চীনের এই দাবি থেকে পরিষ্কার করোনা নিয়ে চীন প্রকৃতপক্ষেই তথ্য গোপন করছে বলে মনে করছেন অনেকেই।

অন্যদিকে যত দিন যাচ্ছে, ততই নিজের দাপট বাড়াচ্ছে মারণ ভাইরাস করোনা। করোনা পরবর্তী পরিস্থিতিতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক দেশের সঙ্গে চীনের যে বিশাল ব্যবধান চলে এসেছে তা কিন্তু বর্তমানে পরিষ্কার। ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন বৈজ্ঞানিকরা ও গবেষকরা করোনা পরিস্থিতিকে যেকোনোভাবে আয়ত্বে আনতে বদ্ধপরিকর তা নিয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। এই মুহূর্তে করোনা পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে তাঁদের কর্মযজ্ঞ চলছে। বিশ্বজুড়ে আপাতত করোনা পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে সে দিকেই এখন লক্ষ্য সবার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!