এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > করোনা আবহে এবার এক নতুন রোগের উপদ্রব! ইউরোপ-আমেরিকা পেরিয়ে আতঙ্ক বাড়িয়ে হানা দিল এবার ভারতেও

করোনা আবহে এবার এক নতুন রোগের উপদ্রব! ইউরোপ-আমেরিকা পেরিয়ে আতঙ্ক বাড়িয়ে হানা দিল এবার ভারতেও



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিশ্ব মহামারীতে করোনা ভাইরাসের প্রকোপে যখন বিশ্ববাসীর জীবন কার্যত অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে, ঠিক সেই সময় ভারতে করোনা ভাইরাসের পাশাপাশি আর একটি নতুন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা গেল গুজরাটের সুরাটের একটি দশ বছরের শিশুর দেহে। যা নিয়ে ইতিমধ্যে জনমানসে আতঙ্ক ছড়িয়েছে বলে সূত্রের খবর। কি সেই রোগ? চিকিৎসকরা জানিয়েছেন নতুন এই দৃশ্যমান রোগের নাম হলো মাল্টিসেস্টেম ইনফ্ল্যামেটরি সিনড্রোম (Multisystem Inflammatory Syndrome)।

একে আবার এমআইএস-সিও বলা হয়। এই রোগটির প্রকোপ ইতিপূর্বে আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলোতে দেখা যেত। কিন্তু ভারতে গুজরাটের সুরাটের দশ বছরের শিশু দেহে এই রোগটি দেখা যাওয়ার জন্য চিকিৎসকেরা রীতিমতো অবাক। চিকিৎসকের জানাচ্ছেন যে এই রোগটি করোনার মতো ছোঁয়াচে এবং এই রোগটি ৩ থেকে ২০ বছর বয়সীদের মধ্যে বেশি হওয়ার প্রবনতা রয়েছে। এই রোগের লক্ষন সম্পর্কে চিকিৎসক মহল জানাছেন যে – জ্বর, বমিভাব, ডাইরিয়া, চোখ এবং ঠোঁট লাল হয়ে যাবে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

চিকিৎসকেরা এও জানান এতদিন পর্যন্ত এই রোগ আমেরিকা সহ ইউরোপের দেশ গুলোতে হতো। কিন্তু ভারতের গুজরাটের সুরাটের এই শিশু দেহে কিভাবে এল তা তাদেরকে ভাবাচ্ছে। চিকিৎসকেরা এতে আশঙ্কা প্রকাশ করেন যে, ভারতের মতো দেশে এই রোগে যদি ছড়িয়ে পড়ে তাতে করে এক ভয়াবহ কঠিন পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে। গুজরাটের সুরাটের ওই শিশুটির পরিবার সূত্র থেকে জানা যে, শিশুটির জ্বর, বমিভাব, ডায়রিয়া, চোখ এবং ঠোঁট লাল উপসর্গ দেখা দেয়। এরপর তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হলে দেশের চিকিৎসক মহলে কার্যত হইচই পরে যায়।

এই নিয়ে সুরাট এবং মুম্বাইয়ের বিভিন্ন অভিজ্ঞ চিকিৎসকদের সাথে আলোচনা করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, সুরাটের দশ বছরের শিশুটি ভয়ঙ্কর ওই রোগের সাথে লড়াই করতে করতে, তার হৃদপিণ্ডের রক্ত সঞ্চালন প্রায় ৩০% কমে গেছে। সেইসঙ্গে তার শরীরের বিভিন্ন অংশের শিরা ফুলে ওঠার জন্য তার হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল ভাবে রয়েছে। তবে আপাতত শিশুটিকে সাত দিন চিকিৎসা করার পর বাড়ি পাঠানো হয়েছে বলে সূত্রের খবর। আর এই রোগটি ছোঁয়াচে হওয়ায়, এই নিয়ে সুরাটবাসীর মধ্যে যথেষ্ট আতঙ্কের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!