এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > করোনা আবহেই কি রাজ্যে বেজে গেল পুরভোটের দামামা? বড়সড় নতুন ইঙ্গিতে বাড়ছে জল্পনা

করোনা আবহেই কি রাজ্যে বেজে গেল পুরভোটের দামামা? বড়সড় নতুন ইঙ্গিতে বাড়ছে জল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সমস্ত কিছু ঠিকঠাক ছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই করোনা ভাইরাসের উদ্ভব হওয়ার কারণে সামাজিক দূরত্ব পালন করায় এবং লকডাউন হয়ে যাওয়ায় পৌরসভা নির্বাচন বিষবাও জলে চলে গেছে। আর একের পর এক পৌরসভার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় সরকারের পক্ষ থেকে সেই মেয়াদোত্তীর্ণ পৌরসভায় বসিয়ে দেওয়া হয়েছে প্রশাসক। কবে পৌরসভা নির্বাচন হবে, তা নিয়ে গুঞ্জন তৈরি হয়েছে সব মহলে।

সাম্প্রতিককালে লকডাউন পরিস্থিতি কিছুটা হলেও শিথিল হয়েছে। আর এমতাবস্তায় সেই পৌরসভা নির্বাচনের ব্যাপারে জল্পনা আরও তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠছে। সূত্রের খবর, এবার যে সমস্ত জেলায় পৌরসভা নির্বাচন রয়েছে, সেখানকার জেলা প্রশাসনকে চিঠি দিয়ে যাবতীয় তথ্য জানতে চেয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। জানা গেছে, গত 12 জুন রাজ্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে প্রতিটি জেলাকে তথ্য দেওয়ার জন্য রিমাইন্ড করা হয়েছে।

শুধু তাই নয়, ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে ভিআরসি ভেন্যু নিয়েও চলছে জোর তৎপরতা। জানা গেছে, বুধবার আসানসোলের একাধিক জায়গা পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা। আর এই ঘটনা থেকেই কার্যত পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে যে, খুব তাড়াতাড়ি রাজ্যের পৌরসভা নির্বাচন হতে চলেছে।

অর্থাৎ করোনা ভাইরাসের কারণে নির্বাচনের সমস্ত কিছু তৈরি করা সত্ত্বেও, যেভাবে তা থেকে পিছিয়ে আসতে হয়েছে কমিশনকে, এবার লকডাউন কিছুটা শিথিল হওয়ার পরেই সেই নির্বাচন প্রক্রিয়ায় যাতে আর বিলম্ব না হয়, তার জন্য উদ্যোগী ভূমিকা পালন করতে শুরু করল নির্বাচন কমিশন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোল পৌরসভার মেয়াদ সম্প্রতি শেষ হতে চলেছে। 106 ওয়ার্ড বিশিষ্ট এই পৌরসভায় 1002 টি বুথ রয়েছে। গত 2015 সালে কর্পোরেশন নির্বাচনের সময় আসানসোল ইনডোর স্টেডিয়াম এবং ঊষাগ্রাম হাইস্কুলে ডিসিআরসি করা হয়েছিল। তবে বুধবার এই জেলার প্রশাসনিক আধিকারিকরা আসানসোল ওমেন্স কলেজ এবং বিবি কলেজ পরিদর্শন করেন।

অনেকে বলছেন, পৌরসভা ভোটের জন্য ডিসিআরসি করার ক্ষেত্রে এই দুই কলেজ পরিদর্শন করল জেলা প্রশাসন। অর্থাৎ এর পেছনে যে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ রয়েছে, তা স্পষ্ট সকলের কাছে। এদিন এই প্রসঙ্গে আসানসোল বিবি কলেজের অধ্যক্ষ অমিতাভ বসু এবং আসানসোল ওমেন্স কলেজের অধ্যক্ষ সন্দীপ কুমার ঘটক বলেন, “নির্বাচনী কাজে ব্যবহারের জন্য প্রশাসনের আধিকারিকরা আমাদের কলেজের রুমগুলো দেখে গিয়েছেন।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, লকডাউন পরিস্থিতি কিছুটা শিথিল হতে না হতেই এবার সামনেই মেয়াদউত্তীর্ণ হতে চলা আসানসোল পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে প্রস্তুতি শুরু করে দিল নির্বাচন কমিশন। যার অঙ্গ হিসেবে জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়ে জায়গা পরিদর্শনের উদ্যোগ নেওয়া হল। তবে লকডাউনের কারনে যে সমস্ত পৌরসভায় নির্বাচন করা সম্ভব হয়নি, এবার কি আসানসোল পৌরসভায় নির্বাচন করানোর উদ্যোগ নেওয়ার সাথে সাথে সেই সমস্ত পৌরসভাতেও নির্বাচন করানোর ব্যাপারে উদ্যোগ নেবে রাজ্য নির্বাচন কমিশন! এখন সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!