এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > করোনা আবহে কলকাতাবাসীকে নিয়ে ফিরহাদ হাকিমের ‘স্বপ্ন’ খেল বড়সড় ধাক্কা! জানুন বিস্তারে

করোনা আবহে কলকাতাবাসীকে নিয়ে ফিরহাদ হাকিমের ‘স্বপ্ন’ খেল বড়সড় ধাক্কা! জানুন বিস্তারে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম সম্প্রতি কোলকাতাবাসীদের জন্যে একটি নতুন নাগরিক পরিষেবা দানের পরিকল্পনা নিয়েছিলেন, যার নাম রাখা হয়, ‘কেএমসি অ্যাট ডোরস্টেপ’। মূলত, কলকাতা শহরের প্রবীণ নাগরিকদের কথা চিন্তা করেই পুরসভার এই নতুন পরিষেবার সিদ্ধান্ত। এছাড়া বর্তমানের করোনা পরিস্থিতির মধ্যে পুরো ভবনে নানা কাজে আসা নাগরিকদের ভিড় কিছুটা শিথিল করতেও এই পরিকল্পনা গৃহীত হয়েছিল।

পুরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে পুরসভায় কর্মরত বিভিন্ন আধিকারিক ও অন্যান্য কর্মীদের নিয়ে ক্যাম্প করার পরিকল্পনা ছিল। এই ক্যাম্পগুলিতে একদিকে যেমন দ্রুত বিভিন্ন সরকারি শংসাপত্র প্রদান করা হবে, তেমনি বিভিন্ন কর যেমন মিউটেশন, সম্পত্তিকরের অ্যাসেসমেন্ট কর ইত্যাদি প্রদানের ব্যবস্থা থাকবে, সেইসঙ্গে সংশ্লিট ওয়ার্ডের বাসিন্দারাও তাদের এলাকাভিত্তিক নানা পুর-পরিষেবাগত সমস্যার কথা খুব সহজেই জানাতে পারবেন পুরকর্তাকে।

ফলে পুরকর্তার পক্ষেও সহজ হবে সমস্যাবলীর দ্রুত সমাধান, সেইসঙ্গে পুর কোষাগারে নাগরিক কর থেকে প্রাপ্ত অর্থও আসতে পারবে অনায়াসে। এই সমস্তদিক বিচার বিবেচনা করেই আগামী ৮ ই আগস্ট কোলকাতা পুরসভার ৬৮ নম্বর ওয়ার্ডে ক্যাম্প করে এই পরিষেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এরপর ২২ অগাস্ট ৫৮ নম্বর ওয়ার্ডে এবং ২৯ আগস্ট ৮২ নম্বর ওয়ার্ডে এই পরিষেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে কলকাতা শহরের প্রতিটি ওয়ার্ডে এরকম ক্যাম্প করে এই পরিষেবা চালু করার প্রস্তাব গৃহীত হয়।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের পরিকল্পিত এই উদ্যোগ বিরাট ধাক্কা খেল আগামী ৮ ই আগস্টের দিনটিতে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে পশ্চিমবঙ্গে লকডাউন ঘোষণার ফলে। তার উপরে রাজ্যের করোনা পরিস্তিতি নিয়ে ব্যস্ত থাকার ফলে পুরসভার এই পরিষেবার জন্য অর্থদপ্তর থেকে ওয়েভার স্কিমের অনুমতি এখনো পর্যন্ত পাওয়া যায় নি। আবার রাজ্যে বর্তমানে করোনার বর্ধিত সংক্রমণের ফলে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ঘুরে কাজ করতেও খুব একটা আগ্রহী নন পুরসভার কর্মকর্তারা, কারণ তাঁদের মধ্যে কাজ করছে করনা ভীতি ।

তাই সামসদিক বিচার বিবেচনা করেই মুখ্য প্রশাসক আপাতত স্হগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পুরসভার এই নতুন পরিষেবাটি। এ প্রসঙ্গে মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, ” ওয়েভার স্কিমের অনুমতি এখনও আসেনি। এছাড়া করোনা নিয়েও ব্যস্ত সবাই। তবে, খুব শিগগিরই আমরা এই কার্যক্রম শুরু করব।” তবে চলতি আগস্ট মাসের মধ্যে ওয়েভার স্কিমের অনুমতি মিলতে পারে বলে আশাবাদী পুরসভার কর্মকর্তারা।

তাই সেক্ষত্রে আগামী ২২ সে বা ২৯ সে আগস্ট এই পরিষেবাটি শুরু করা যায় কিনা, সে বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা চলছে। তবে করোনা পরিস্হিতির কারণে সবকিছু নিয়েই রয়েছে অনিশ্চয়তার বাতাবরণ। তাই নতুন দিন ঘোষণার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কলকাতা পুরসভার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ওয়ার্ডে পরিষেবা ভিত্তিক এই ধরণের ক্যাম্প গড়ার আগে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ওয়ার্ড কো-অর্ডিনেটর বা পুরকর্তৃপক্ষে মাইকিং করে জনগণকে তার সম্পর্কে অবহিত করবেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!