এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > করোনা আবহে কমে গেছে ঘুম? নিজের অজান্তেই করে ফেলেছেন নিজের বিশাল বড় ক্ষতি! জানুন বিস্তারিত

করোনা আবহে কমে গেছে ঘুম? নিজের অজান্তেই করে ফেলেছেন নিজের বিশাল বড় ক্ষতি! জানুন বিস্তারিত



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – প্রাণীজগতের বিশ্রামের একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া হল ঘুম। সুস্থ সতেজ শরীর থেকে শুরু করে সর্বোপরি মানুষের বেঁচে থাকার সঙ্গে যা ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। কিন্তু আমরা সেই অতি প্রয়োজনীয় বিষয়েই নিজেদের অবহেলা করি। বর্তমান ছুটে চলা দুনায়ার সঙ্গে তালমেলাতে কখন যে নিজেদের অজান্তে ডেকে আনছি নিজেদের বিপদ তা আমরা বুঝতে পারি না।

প্রতিদিনের সঠিক ঘুম শারীরিক স্বাস্থ্যের সঙ্গে ঠিক রাখে মানসিক স্বাস্থ্য। ফলে দেহের টি সেল গুলি স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে পারে। আমাদের দেহে সক্রিয় থাকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। কিন্তু সম্প্রতি এক জনৈক চিকিৎসকের মতে ঘুমের অভাবে ধীর হতে পারে টি সেলের গতি , যা কমতে পারে আপনার দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তার কথায় দেহে স্বাভবিকভাবেই থাকে রোগ নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা। দেহে রোগের সংক্রমণ হচ্ছে বুঝতে পারলে সে স্বভাবসিদ্ধ ভাবেই তার প্রতিকার করে। কিন্তু আমরা দেহের এই সহজাত প্রক্রিয়াকে নষ্ট করে ফেলেছি, ফলে রোগাক্রান্তও হচ্ছি। নিজেদের অজান্তেই বাড়িয়ে তুলছি নিজেদের বিপদ। তবে ঘুম কি করে ভালো করা যায় তারও কয়েকটি সম্ভাব্য উপায় তিনি জানিয়েছেন। যেমন –

প্রথমতঃ- ঘুমনোর সময় হতে হবে নির্ধারিত। অর্থাৎ প্রতিদিন চেষ্টা করতে হবে একই সময়ে ঘুমোতে যাওয়ার।

দ্বিতীয়তঃ-  ঘুম হতে হবে টানা। মাঝে মাঝে অল্প করে ঘুমোলে চলবে না। দিনে টানা ৮ ঘণ্টার ঘুম শরীরকে করে তুলতে পারে অনেক বেশি শক্তিশালী।

তৃতীয়তঃ- আপনার শুতে যাবার জায়গাটিকে হতে হবে আরামপ্রদ, তবেই হবে শান্তির ঘুম।

চতুর্থত-  মনে দুশ্চিন্তা নিয়ে শুতে গেলে কখনোই ভালো ঘুম হিতে পারে না।

এছাড়া ঘুমোতে যাবার আগে টিভি দেখা বা ক্যাফেইন জাতীয় কিছু খাওয়াও আনতে পারে ঘুমের বেঘাত। তাই বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে যেখানে নিজের সুস্থ থাকাটা সবচেয়ে দরকারি, সেখানে আপনিও যেন কোনোভাবেই পিছিয়ে না থাকেন তা নিশ্চিত করতে আজ থেকেই নিজের খেয়াল রাখুন। আপনি সুস্থ থাকলে আপনার পরিবারকেও সুস্থ রাখতে পারবেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!