এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > করোনা আবহে গত ৮ মাস ধরে মিলছে না বেতন! অবসাদে আত্মহত্যা যুব তৃণমূলের প্রভাবশালী কর্মী!

করোনা আবহে গত ৮ মাস ধরে মিলছে না বেতন! অবসাদে আত্মহত্যা যুব তৃণমূলের প্রভাবশালী কর্মী!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – পুরুলিয়া জেলার রঘুনাথপুরে মোবাইল টাওয়ার থেকে উদ্ধার করা হলো টাওয়ার দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা যুব তৃণমূল কর্মী ইসলাম আনসারির মৃতদেহ। ২৬ বছর বয়স্ক ইসলাম আনসারি পুরুলিয়ার রঘুনাথপুর থানার গোপীনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি স্থানীয় যুব তৃণমূলের এক সক্রিয় কর্মী ছিলেন। গত মঙ্গলবার রাতে তাঁর গ্রাম থেকে কিছুটা দূরে মোবাইল টাওয়ারে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁকে দেখতে পেয়েছিলেন, তাঁর গ্রামের কিছু মানুষ। শেষপর্যন্ত, তাঁকে উদ্ধার করে রঘুনাথপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

এই ঘটনায় শোরগোল পড়ে যায় গোপীনাথপুর গ্রামে। মৃত ইসলাম আনসারির বাড়িতে উপস্থিত হলেন তার প্রতিবেশীরা। তাঁর মৃত্যুতে তাঁর পিতা উমের আলি আনসারি অত্যন্ত বিমর্ষ হয়ে পড়েছেন। তাঁর পাঁচ ছেলের মধ্যে চতুর্থ ছেলে ইসলাম আনসারি। ইসলাম আনসারির ভাই হাসমত আনসারি জানালেন যে, মৃত ইসলাম আনসারির স্ত্রী ও তিন সন্তান আছে। দীর্ঘদিন ধরে বেতন না পাওয়ার কারণে মানসিকভাবে তিনি প্রচণ্ড বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন।

প্রসঙ্গত ইসলাম আনসারি একটি বেসরকারি সংস্থার অধীনস্থ মোবাইল টাওয়ার দেখাশোনা কাজে নিযুক্ত ছিলেন। অভিযোগ উঠেছে গত ৮ মাস ধরে তাকে বেতন দিচ্ছে না সেই সংস্থা। যে যার কারণে মানসিকভাবে তিনি প্রচণ্ড বিপর্যয়ের মধ্যে ছিলেন। এই মোবাইল টাওয়ারের দেখাশোনায় কাজ করা কর্মী সংগঠনের পুরুলিয়া জেলা সম্পাদক সনৎ মাহাতো অভিযোগ করেছেন যে, এই সংস্থার অধীনস্থ বিভিন্ন মোবাইল টাওয়ারে কাজ করা মোট ২২ জন কর্মীকে গত ৮ মাস ধরে কোনো বেতন দেয়া হচ্ছে না। এই বিষয় নিয়ে তাঁদের সঙ্গে সংস্থার আলোচনা হয়েছিল। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল যে, পুজোর আগেই কর্মীদের বেতন ও বোনাস সহ সমস্ত কিছু মিটিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু এরপরেও কোন টাকা দেয়নি সংস্থা। একারণেই আর্থিক দুরবস্থা মধ্যে পড়েছেন বহু কর্মী।

তবে, বারবার চেষ্টা করেও এই বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এই সংস্থার জনৈক আধিকারিকের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হয়েছিল। এই ঘটনা শোনার পর, এ বিষয়ে তিনি পরে বক্তব্য জানাবেন বলে ফোন কেটে দিয়েছিলেন। এরপর থেকে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি তাঁকে। মেসেজ পাঠানো হলে তিনি তাঁর কোনো জবাব দেননি।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে রঘুনাথপুর এলাকার যুব তৃণমূল নেতা সাদ্দাম আনসারি জানালেন যে, ইসলাম আনসারির অর্থের খুব প্রয়োজন ছিল। গত মঙ্গলবার রাতে ইসলাম আনসারি তাঁকে ফোন করে তার কাছে ৫০০০ টাকা চেয়ে ছিলেন। কিন্তু সে সময় তাঁর কাছে অত টাকা ছিলনা, বলে তিনি পরদিন বুধবার সকালে টাকা দেবেন বলে জানিয়ে ছিলেন। সেসময় ইসলাম আনসারি ইঙ্গিত করেছিলেন যে, টাকা না পেলে তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন। অন্যদিকে, এই ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূলের জনৈক স্থানীয় নেতা হাজারি বাউড়ি জানালেন যে, ইসলাম আনসারি তাঁদের দলের অত্যন্ত সক্রিয় কর্মী ছিলেন। গত ৮ মাস ধরে বেতন না পেয়ে চরম আর্থিক সংকটে ভুগছিলেন তিনি। মানসিকভাবে ভেঙে পড়েই তিনি আত্মহত্যার এই সিদ্ধান্ত নিলেন।

ইসলাম আনসারির জনৈক আত্মীয় হলেন রুম আনসারি, তিনিও এই বেসরকারি সংস্থায় ওই মোবাইল টাওয়ার দেখাশোনা কাজে নিযুক্ত। তাঁর বক্তব্য, টানা ৮ মাস ধরে বেতন না মেলায় তাঁরা সবাই আর্থিক দিক থেকে চরম সংকটে ভুগছেন। ইসলাম আনসারির এক ঘনিষ্ঠ আত্মীয়ের বিয়ে থাকায় তাঁর অর্থের খুব প্রয়োজন ছিল। ইসলাম আনসারির মৃতদেহ উদ্ধারের পর রঘুনাথপুর থানায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ তাঁর মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখছে। তবে, পুলিশের অনুমান তিনি আত্মহত্যাই করেছেন। এভাবে, করোনা সংক্রমণ কালে, দীর্ঘ সময় ধরে বেতন না পাওয়ায় মানসিক অবসাদে আত্মহত্যা করলেন পুরুলিয়া জেলায় যুব তৃনমূলের এক প্রভাবশালী কর্মী। তাঁর অকাল মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এলো শাসকদল তৃণমূলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!