এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > সুপ্রিম নির্দেশে দিশেহারা মোদীও! চেষ্টা করেও বাঁচাতে পারলেন না চাকুরিজীবীদের কপাল পোড়া থেকে

সুপ্রিম নির্দেশে দিশেহারা মোদীও! চেষ্টা করেও বাঁচাতে পারলেন না চাকুরিজীবীদের কপাল পোড়া থেকে



যত দিন যাচ্ছে, নিজের দাপট বাড়াচ্ছে মারণ ভাইরাস করোনা। মানুষের প্রাণের সাথে সাথে এবার মানুষের রুজি-রুটিতেও থাবা বসাতে শুরু করেছে এই করোনা ভাইরাস। করোনা সংক্রমণ ও লকডাউন এর জেরেই অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিয়েছে বিশ্বজুড়ে ভারতও তার ব্যতিক্রম নয়। লকডাউন এর চতুর্থ পর্যায় চলছে দেশে। কিন্তু এর মধ্যেই দেশের নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত চাকুরেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে এবার টানাটানি শুরু হয়েছে। বহু কোম্পানি এবার কর্মী ছাঁটাইয়ের পথে এগোতে শুরু করেছে।

এদের মধ্যে দেশের বড় বড় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলি তাঁদের কর্মী ছাঁটাই শুরু করে দিয়েছে। অন্যদিকে, লকডাউন চলাকালীন কর্মীদের বেতন কাটলে মালিক পক্ষকে পেতে হবে শাস্তি। এরকমই একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু মালিকপক্ষ সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল। যার প্রত্যুত্তরে সুপ্রিম কোর্ট এবার মালিকদের পক্ষেই রায় দিয়েছে বলে জানা গেছে। ফলস্বরূপ, কেন্দ্রকে এবার পিছিয়ে যেতেই হলো।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশিকার কারণে তা প্রত্যাহার করে নিল এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। 29 মার্চ যে নির্দেশ জারি হয়েছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পক্ষ থেকে 17 ই মে সেই নির্দেশ প্রত্যাহার করে নেওয়া হলো বলে জানা গেছে। যার ফলে আপাতত বেসরকারি সংস্থাগুলোর সামনে কর্মীদের বেতন কমানো বা প্রয়োজনে কর্মী ছাঁটাইয়ের জন্য আর কোনো বাধা রইল না। এর আগে 29 মার্চ কেন্দ্রীয় সরকার যে নির্দেশিকা জারি করেছিল, তার বিরুদ্ধে একাধিক সংস্থা কর্তৃপক্ষ সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন এবং জানিয়েছিলেন, সরকারের নির্দেশ সংস্থাগুলির ওপর জোর করে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

মামলাকারীরা অভিযোগ করেছিলেন লকডাউন এর ফলে শিল্প সংস্থাগুলি যেভাবে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবে তা সামাল দিতে গেলে এবং কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশ যদি মানতেই হয় তাহলে অবশ্যই বহু সংস্থাকেই তাঁদের কোম্পানি বন্ধ করে দিতে হবে। এসবের মধ্যেই এবার অনলাইন ফুড ডেলিভারি প্ল্যাটফর্ম সুইগির পক্ষ থেকে ব্যবসায়িক মন্দার কারণ দেখিয়ে 1100 কর্মীকে ছাঁটাই করা হয়েছে বলে জানা গেছে। জোমাটো এবং উবেরের এর পর এবার চাকরি হারাতে চলেছেন সুইগী কর্মীরা।

করোনা মহামারীর কারণে এই সংস্থা যে বিশাল ক্ষতির মুখে দাঁরাতে চলেছে সেই কারণ দেখিয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে বিশেষজ্ঞদের মতে, লকডাউন এর ফলে এমনিতেই দেশের 84% মানুষের রোজগার কমে গেছে। তারপরে যদি এইভাবে মানুষকে কর্মহীন করে দেওয়া হয়, তাহলে এবার মানুষকে হতে হবে চরম দুর্দশার সম্মুখীন। অন্যদিকে কেন্দ্র এই পরিস্থিতি বদলানোর চেষ্টা করলেও এবার সুপ্রিম কোর্টেও কেন্দ্রকে ধাক্কা খেতে হল। যার ফলে কোন কিছু করেই এই অসম পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবার অবস্থায় নেই বলেই দাবি বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!