এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ‘ননসেন্স’, ‘আস্ত পাগল’ তৃণমূল সাংসদের রাজনৈতিক কেরিয়ার কি শেষ? বাড়ল জল্পনা

‘ননসেন্স’, ‘আস্ত পাগল’ তৃণমূল সাংসদের রাজনৈতিক কেরিয়ার কি শেষ? বাড়ল জল্পনা



কিছুদিন আগেই ‘জাতির জনক’ মহাত্মা গান্ধীকে নিয়ে নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন বোলপুরের বিতর্কিত তৃণমূল সাংসদ অনুপম হাজরা। আর সেই খবর সামনে আসতেই সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। এই পরিপ্রেক্ষিতে কলকাতার এক ওয়েব পোর্টালের খবর অনুযায়ী, বীরভূম জেলা তৃণমূলের একটা বড় অংশ অনুপমবাবুর উপর প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ, এমনকি আগামীদিনে তাঁকে নাকি জেলায় দলের কোনও কর্মসূচিতেই আর রাখতে চান না অধিকাংশ তৃণমূল কংগ্রেস নেতা।

এই পরিপ্রেক্ষিতে বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ওটা (অনুপম হাজরা) একটা ননসেন্স! ওটা একটা আস্ত পাগল! কোনও ভ্যালু নেই, নিন্দা করতেও লজ্জা হচ্ছে। অনুপম যা করেন, তাতে দলেরই ক্ষতি হয়, উনি না থাকলেই মঙ্গল। অন্যদিকে, অনুব্রতবাবুর ঘনিষ্ঠ এক নেতা নাকি বলেছেন, অনুপম আমাদের কাছে বিড়ম্বনার। ওর বিতর্কিত কাজকর্ম নিয়ে অনেকবার আমরা বিপদে পড়েছি। দাদা (বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মন্ডল) বোলপুর ফিরলে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করব। দিদিকে জানাব, ও থাকলে জেলায় দলের ক্ষতি। সামনের পঞ্চায়েত নির্বাচনে অনুপমবাবুকে উপেক্ষা করা হবে। তৃণমূল স্তরে মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের ক্ষেত্রে কখনওই অনুপমবাবুকে দেখা যায় না। ফলে, পঞ্চায়েত নির্বাচনে অনুপমবাবুর থাকা বা না থাকা সমান। আর তাই এই সামগ্রিক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন তৃণমূল কংগ্রেসে রাজনৈতিক জীবন শেষ হওয়া এই বিতর্কিত সাংসদের জন্য এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। তবে, এই নিয়ে তৃণমূল শীর্ষনেতৃত্ত্বের কোনো সরকারি প্রতিক্রিয়া এখনো পর্যন্ত পাওয়া যায় নি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!