এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কংগ্রেসের সাথে জোট ভবিষ্যৎ এখনো ঝুলিয়ে রাখলো সিপিআইএম

কংগ্রেসের সাথে জোট ভবিষ্যৎ এখনো ঝুলিয়ে রাখলো সিপিআইএম

Priyo Bandhu Media


শুধু তৃণমূল নয় বঙ্গের বামেদের বড় শত্রুর তালিকাতে এখন ঢুকে পড়েছে বিজেপিও। হবে নাই বা কেন? বামেরা ক্ষমতা হারানোর পর দুই নাম্বারে ছিল কিন্তু ক্রমে শক্তি বাড়িয়ে এখন দু নম্বর জায়গা করে নিয়েছে বিজেপি। তাছাড়া দল ভাঙা তো অব্যাহত।একই অবস্থা কংগ্রেসের ফলে গত বিধানসভা ভোটার মতো আগামী লোকসভা ভোটে ফের জোট বেঁধে লড়াই করতে চান কংগ্রেস ও বামেরা কিন্তু কংগ্রেসের তরফ থেকে এই নিয়ে আগানোর আগে শরিকদলের সাথে এই নিয়ে একপ্রস্ত আলোচনা সেরে নিয়ে তবে সিদ্ধান্ত জানাবে বামেরা এমনটাই এদিন জানালেন বামেদের শীর্ষ নেতৃত্বরা।জানা যেন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ফরওয়ার্ড ব্লকের সঙ্গে বৈঠকের পর।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

জানা গেছে, বঙ্গে সিপিএম এর শরিকদল ফরওয়ার্ড ব্লক,সিপিআই বা আরএসপি নেতৃত্বদের তরফ থেকে দফায় দফায় অভিযোগ করা হচ্ছিলো যে, বামফ্রন্টের নীতি থেকে অপসারণ ঘটছে আলিমুদ্দিন কর্তাদের। তাই লোকসভা ভোটের আগে শরিক দলের অভিযোগের ভিত্তিতেই এদিন সিপিএমের শীর্ষ নেতৃত্বরা তিনটি দলের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের আয়োজন করেছিলো। এতে উপস্থিত ছিলেন ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা নরেন চট্টোপাধ্যায়, হাফিজ আলম এবং সিপিএমের চেয়ারম্যান বিমান বসু,সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র,রবীন দেবের মতো তাবড় তাবড় বামফ্রন্টের ব্যক্তিত্বরা।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রায় আধঘন্টা বৈঠক চলার পর নরেন চট্টোপাধ্যায় জানান যে, সিপিএম প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো যে শরিকদলের সঙ্গে আলোচনা না করে তাঁরা কংগ্রেসের সঙ্গে জোটগঠন করবে না। এরসঙ্গে নরেনবাবু দাবীতে আরো জানান যে সিপিএম নেতৃত্ব সে অভিযোগ নথিবদ্ধ করেছে। তবে ফরওয়ার্ড ব্লকের সঙ্গে কংগ্রেস জোট প্রসঙ্গ নিয়ে আলোচনা হলেও অপর শরিক দল আরএসপি নেতৃত্বের কাছ থেকে এই কংগ্রেস জোট ইস্যু নিয়ে কোনো মতামতও নেওয়া হয়নি। এ প্রসঙ্গে আরএসপি নেতা ক্ষিতি গোস্বামীও বাম নেতৃত্বদের বিরুদ্ধে অভিযোগে সরব হয়ে জানিয়েছেন যে সিপিএম কংগ্রেসকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে জোট বাঁধতে। তবে দিন কয়েক আগে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের সময় বিমান বসু,সূর্যকান্ত মিশ্ররা বিপিএমওর কর্মসূচি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়লে তাঁদের অভিযোগ নিয়ে কোনো মাথাই ঘামানো হল না। এরসঙ্গে ক্ষিতি বাবু আরো জানালেন যে পরেরবার বামেদের সঙ্গে বৈঠকে এই ইস্যু নিয়ে আলোচনার কথা বলা হবে। তাঁর অভিযোগ এই ব্যাপারটি নিয়ে লালশিবিরের কর্তারা নাকি কোনো মন্তব্যই করতে চাননি। তাই জোট এর ভবিষ্যৎ আপাতত ঝুলে রোল বলেই মনে করছে রাজনৈতিকমহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!