এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > কমিশন বারবার শোকজ করেও যে তাঁকে আটকাতে পারবেনা সগর্বে নিজেই জানাচ্ছেন অনুব্রত মণ্ডল

কমিশন বারবার শোকজ করেও যে তাঁকে আটকাতে পারবেনা সগর্বে নিজেই জানাচ্ছেন অনুব্রত মণ্ডল



আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের দামামা বাজবার সাথে সাথেই নানা মন্তব্য করে বিতর্কের শিরোনামে উঠে এসেছিলেন বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। যার জন্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বহুবার তাঁকে শোকজ করা হলেও তিনি তার অবস্থান থেকে একচুলও নড়েননি। আর এবার বৃহস্পতিবার মহম্মদবাজার ব্লকের গৌরাঙ্গিনী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠের নির্বাচনী জনসভা থেকে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে তাঁকে শোকজ করা নিয়ে মুখ খুললেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রতবাবু।

এদিন তিনি বলেন, “শোকজ করেছে উত্তর দিয়েছি। ফের শোকজ করবেন, ফের উত্তর দেব। আমি চুরিও করিনি, ডাকাতিও করিনি। তাই আমি ভয় পাই না।”

প্রসঙ্গত, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে প্রথমে নকুলদানার দাওয়াই এবং পরে গত রবিবার সিউড়িতে তৃণমূল শিক্ষক সম্মেলন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্বে থাকা শিক্ষকদের পোল ভোট করিয়ে নেওয়ার জন্য সুযোগ দেওয়ার আবেদন করলে কমিশনের পক্ষ থেকে তাকে শোকজ করা হয়। আর কমিশনের কাছে তিনি পাল্টা তার যুক্তি খারিজ করেন।

আর এবার বৃহস্পতিবারের সভা থেকে ফের সেই পোল ভোট করিয়ে নেওয়ার কথা বলে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি। এদিন তিনি বলেন, “ভোটের দিন একটু আগেই যাবেন। প্রিসাইডিং অফিসাররা বলতে পারেন 50 টি পোল ভোট দিয়ে দেখিয়ে দেব। বলবেন মানব না। 300 থেকে 400 পোল ভোট করিয়ে দেখিয়ে দিতে হবে যে মেশিন ঠিক আছে।”


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে শুধু পোল ভোট করার বিষয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করাই নয়, এদিনের সভা থেকে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় আক্রমণ করতে দেখা যায় বীরভূম জেলা বিজেপির সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে। নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে তিনি বলেন, “বাংলার মানুষ ভোটে এই মস্তানকে ছুড়ে ফেলে দেবে। উনি বিয়ে করেছিলেন, বউকে ছেড়ে দিয়েছেন। তাই উনি সংসারের মর্ম কি করে বুঝবেন! উনি শুধু ঘুরে বেড়াবেন আর উড়ে বেড়াবেন। তাই বিজেপি ভোট চাইতে আসলে জিজ্ঞেস করবেন, 15 লক্ষ টাকা আর 2 কোটি চাকরি কোথায় গেল?”

এদিকে একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে এবং বিজেপির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করে যখন অনুব্রত মন্ডলের মন্তব্যে কিছুটা হলেও উপকৃত হতে দেখা যাচ্ছে বীরভূম জেলা তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের, ঠিক তখনই এই ব্যাপারে পাল্টা সেই অনুব্রতবাবুর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাতে দেখা গেছে বীরভূম জেলা বিজেপির সভাপতি রামকৃষ্ণ রায়কে।

এদিন তিনি বলেন, “পায়ের জমি হালকা হচ্ছে বুঝতে পেরেই অনুব্রতবাবু নরেন্দ্র মোদিকে আক্রমণ করছেন। মানুষ আসন্ন নির্বাচনেই এর উপযুক্ত জবাব দেবে।” সব মিলিয়ে কমিশনের পক্ষ থেকে বিতর্কিত মন্তব্য করার জন্য বারেবারে শোকজ লেটার পেলেও অনুব্রত যে আছেন অনুব্রততেই তা ফের মহম্মদবাজারের নির্বাচনী সভা থেকে প্রমাণ করে দিলেন বীরভূম জেলা তৃনমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!