এখন পড়ছেন
হোম > আন্তর্জাতিক > চীনের সঙ্গে যুদ্ধ কি শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা? অমিত শাহের চরম হুঁশিয়ারিতে চূড়ান্ত জল্পনা শুরু

চীনের সঙ্গে যুদ্ধ কি শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা? অমিত শাহের চরম হুঁশিয়ারিতে চূড়ান্ত জল্পনা শুরু



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কিছুদিন আগেই চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মিকে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য উচ্চপর্যায়ের সতর্কতা বার্তা দিতে শোনা গেছিল চীনের প্রেসিডেন্টকে। বস্তুত, চীনের একটি সরকারি সংবাদ সংস্থার তরফে এই খবর ছড়িয়ে পড়ে যে চীন যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে। সেই সময় জানা গিয়েছিল, শি জিনপিং শেনঝেন প্রদেশের স্পেশাল ইকোনমিক জোনের ৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে যোগ দেবার জন্য গিয়েছিলেন।

১৯৮০ সালে চীন সরকার বিদেশি পুঁজি অনার জন্য তৈরি করা এসইজেড এর ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে উপস্থিত থাকতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। বস্তুত, এই অনুষ্ঠানের পরই নাকি দক্ষিণ চিনের গুয়ানডংয়ে সেনা বেসক্যাম্পে পৌঁছে সেখানকার পরিকাঠামো খতিয়ে দেখার সঙ্গে সঙ্গে যুদ্ধের প্রস্তুতির বার্তা দিয়েছিলেন তিনি।

বস্তুত, এরপরই রাজনৈতিকবিদদের মনে যুদ্ধের আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছিল। তবে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহকে এবার চীনকে সতর্কবার্তা দিতে শোনা গেছে। তাঁর কথায়, যেকোনও পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে ভারতীয় সেনা সর্বদা প্রস্তুত বলেই জানিয়েছেন তিনি।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সম্প্রতি, একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে অমিত শাহ জানান, ভারতের এক ইঞ্চি জমিও চীনকে ছেড়ে দেওয়া হবে না। প্রতিটি জাতিই যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। সেই সঙ্গে সেনাবাহিনী রাখার লক্ষ্যই যে, যেকোনও আগ্রাসনের জবাব দেওয়া, সেটাও স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। সেইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কথার পুনারবৃত্তি করে তিনি বলেন, “আমরা পাহারা দিচ্ছি এবং আমাদের এক ইঞ্চি এলাকাও কেউ ছিনিয়ে নিয়ে যেতে পারবে না।”

তবে তাঁর এই কথার পর প্রশ্ন উঠতে শুরু করে যে, তাহলে কি জিনপিংয়ের কথার পর অমিত শাহের এই হুঁশিয়ারি কি সত্যিই যুদ্ধেরই ইঙ্গিত দিচ্ছে? এই কথার উত্তরে জানা গেছে যে, তিনি কোনও বিশেষ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে একথা বলেন নি। কিন্তু ভারতের প্রতিরক্ষা বাহিনী যে সর্বদা প্রস্তুত, সেকথা সকলকে জানানোর জন্যই তিনি বলেছেন।

তাঁর কথায়, শুধু ভারত একা নয়, সীমান্ত রক্ষার প্রয়াসে বিশ্ব সম্প্রদায় ভারতের পাশে আছে। ভারতের লক্ষ্য সাধু ও শক্তিশালী হওয়া। দেশের ১৩০ কোটি মানুষ কারও কাছেই মাথা নোয়াবে না। সেই সঙ্গে সরকার ঠিকই করে নিয়েছে একথা, সেইসঙ্গে বেশিরভাগ দেশের সমর্থনও ভারতের সঙ্গে আছে বলে জানিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে তাঁর কথায়, এলএসি সঙ্কটের সমাধানে দুই দেশের সিনিয়ার সেনা আধিকারিকরা একে অপরের সংস্পর্শে আছেন বলেও জানা গেছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!