এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > চাল চুরি নিয়ে বিজেপিকে কটাক্ষ পার্থর! অস্বীকার দিলীপের!

চাল চুরি নিয়ে বিজেপিকে কটাক্ষ পার্থর! অস্বীকার দিলীপের!



করোনা পরিস্থিতির মধ্যে রেশনিং ব্যবস্থায় দুর্নীতি নিয়ে বারবার শাসকদলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলতে শুরু করেছিল বিরোধীরা। যার ফলে কার্যত বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছিল সরকার পক্ষ। আর এমতাবস্থায় বিরোধী দল বিজেপির পক্ষ থেকে রেশনের দুর্নীতি নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে সরব হওয়ার ঘটনা ঘটলেও, বানারহাটে বিজেপির দলীয় অফিস থেকে চাল উদ্ধারের ঘটনায় অস্বস্তিতে পড়ে গেরুয়া শিবির। যে ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে পাল্টা আক্রমণ করা হয় ভারতীয় জনতা পার্টিকে। ইতিমধ্যে এই ব্যাপারে গেরুয়া শিবিরকে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

যেখানে তিনি বলেন, “এবার আর ঘরে বসে ভুয়ো খবর ছড়ানো নয়। কেন্দ্রের দেওয়া চাল মজুত করছে বিজেপি।” আর পার্থবাবু বিজেপিকে উদ্দেশ্য করে এই ধরনের কটাক্ষ করার পরেই এবার বানারহাটের ঘটনা সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। যেখানে পাল্টা পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও তৃণমূল কংগ্রেসকে কটাক্ষ করেছেন তিনি। সূত্রের খবর, এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন, “পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে প্রকৃত তথ্য নেই। না হলে একজন মন্ত্রী হয়ে তিনি মিথ্যা কথা বলছেন। আলিপুরদুয়ারের বানারহাটের ঘটনা নিয়ে তৃণমূল নাটক করছে। এর সঙ্গে বিজেপির কোনো যোগ নেই।”

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু তাহলে বানারহাটের বিজেপির পার্টি অফিস থেকে যে চাল উদ্ধার হল বলে অভিযোগ উঠেছে, তা কি মিথ্যা? এদিন এই প্রসঙ্গে দীলিপবাবু বলেন, “একসময় সেখানে আমাদের পার্টি অফিস ছিল। ছয় মাস আগে তা ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে সেই ঘরের জন্য ভাড়া দেওয়া হয় না। তবে পার্টি অফিসের সামনে বিজেপির ঝান্ডা ছিল। কিন্তু সারা পশ্চিমবঙ্গের বহু জায়গায় বিজেপির ঝান্ডা রয়েছে। ঝান্ডা পুতে দিলেই যদি বিজেপি হয়ে যায়, তাহলে সারা পশ্চিমবঙ্গ এখন বিজেপির হাতেই রয়েছে। চাল চুরির সঙ্গে আমাদের কোনো নেতাকর্মী জড়িত নয়।”

অর্থাৎ তৃণমূল কংগ্রেস এবং তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় যেভাবে বানারহাটের ঘটনা তুলে ধরে বিজেপিকে কটাক্ষ করার চেষ্টা করেছিলেন, তা যে সম্পূর্ণ অসত্য, তা এবার নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে তা তুলে ধরার চেষ্টা করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

অনেকে বলছেন, একদিকে রাজ্যের রেশনিং ব্যবস্থা নিয়ে যখন বিজেপির পক্ষ থেকে দুর্নীতির অভিযোগ করা হচ্ছে, ঠিক তখনই বানারহাটের ঘটনা নিয়ে পাল্টা বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হয়েছে শাসক দল। আর এই টালমাটাল পরিস্থিতিতে এখন দিলীপ ঘোষের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে আবার শাসকদলের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য আসে কিনা, তার দিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!