এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > চা বাগানের ধ্বসে যাওয়া ভোটব্যাঙ্ক ফিরিয়ে আনতে এবার বড়সড় ঘোষণা মমতার হেভিওয়েট মন্ত্রীর

চা বাগানের ধ্বসে যাওয়া ভোটব্যাঙ্ক ফিরিয়ে আনতে এবার বড়সড় ঘোষণা মমতার হেভিওয়েট মন্ত্রীর



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  গত লোকসভা নির্বাচনে হারিয়ে যাওয়া চা-বাগানের ভোটব্যাঙ্ক পুনরুদ্ধারের সিদ্ধান্ত তৃণমূল সরকারের। গতকাল আলিপুরদুয়ার ১ ব্লকের পাতলাখাওয়া পঞ্চায়েত কার্যালয় সংলগ্ন মাঠে তৃণমূল কংগ্রেসের জনসভা থেকে চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি বাড়ানো হবে বলে জানালেন শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক। এই জনসভা থেকে চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির কথা যেমন তিনি জানালেন, তেমনি বিজেপির বিরুদ্ধে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করলেন তিনি। বিজেপির নেতাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করলেন তিনি।

আগামী বিধানসভা ভোটের নিরিখে গতকাল আলিপুরদুয়ার জেলায় পাতলাখাওয়া পঞ্চায়েত কার্যালয় সংলগ্ন মাঠে আলিপুরদুয়ার ১ ব্লকের তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের নিয়েই মূলত শ্রমমন্ত্রীর সভা ছিল। তবে, এই সভায় উপস্থিত হয়েছিলেন হাজার হাজার মানুষ। ভিড়ে ঠাসা জনসভা দেখে আনন্দিত হয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব। এই জনসভায় উপস্থিত ছিলেন আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূল সভাপতি মৃদুল গোস্বামী, আলিপুরদুয়ার ১ ব্লক সভাপতি মনোরঞ্জন দে, প্রাক্তন জেলা সভাপতি মোহন শর্মা, তৃণমূল বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী সহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব।

গতকালের এই জনসভা থেকে চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি বৃদ্ধির কথা জানালেন শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটক। বাম শাসনকালে চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ছিল ৬৭ টাকা ৫০ পয়সা। এরপর ২০১১ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্ষমতায় আসার পর চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি হয়। বর্তমানে চা শ্রমিকদের মজুরি দৈনিক ১৭৬ টাকা। গতকাল শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটক জানান যে, তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পর চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি এখনো পর্যন্ত ১৭৬ টাকা করা হয়েছে। রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, দু- এক মাসের মধ্যে চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি আরও বৃদ্ধি করা হবে।

আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত গত লোকসভা নির্বাচনে চা বাগানে তৃণমূলের ভোট ব্যাংক ধুলিস্যাৎ হয়েছিল। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে এই হারানো ভোট ব্যাংক ফিরে পেতে চা বাগানের শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির ঘোষণা করা হল, বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের দাবি। গতকালের জনসভা থেকে বিজেপিকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ জানালেন শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, কেন্দ্রীয় সরকার ডুয়ার্সে একটি গোষ্ঠীর সাতটি বন্ধ চা বাগান অধিগ্রহণ করার কথা জানিয়েছিল। তিনি অভিযোগ করেছেন, বন্ধ কোন চা বাগান কেন্দ্রীয় সরকার খোলেনি। বন্ধ চা বাগানের কর্মী, শ্রমিকদের মাইনেও দেয় নি কেন্দ্রীয় সরকার। বাগান না খুলে শুধু নিজের দায় এড়িয়েছে।

কিন্তু, ওই গ্রুপের বন্ধ চা বাগানগুলি খুলেছে রাজ্য সরকার। তিনি আরো জানিয়েছেন যে, চা শ্রমিকদের ঘরগুলি বসবাসের উপযুক্ত ছিল না। এ কারণেই রাজ্য সরকার শ্রমিকদের থাকার ঘর তৈরি করে দিচ্ছে। তিনি জানালেন যে, চা সুন্দরী প্রকল্পে ৩৬০০ টি ঘর তৈরি তৈরি করতে ২০১ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার। তিনি দাবি করেছেন যে, চা শ্রমিকদের নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে ভাঁওতাবাজির জবাব দিতে হবে।

গতকালের এই সভা থেকে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তীব্র কটাক্ষ করলেন শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক। নরেন্দ্র মোদির প্রতি তিনি জানালেন যে, যিনি ১০ লাখ টাকার জ্যাকেট পরেন, তিনি কি করে ভাববেন গরিবের কথা? তিনি জানিয়েছেন যে, দেশের সবচেয়ে ভোগী প্রধানমন্ত্রী হলেন নরেন্দ্র মোদি। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সম্পর্কে তিনি জানালেন যে, দিলীপ ঘোষ হঠাৎ করেই নেতা হয়ে উঠেছেন। এভাবে গতকাল চা শ্রমিকদের খুশি করতে বিশেষ ঘোষণা করলেন রাজ্য সরকারের জনৈক হেভিওয়েট মন্ত্রী।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!