এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কেন্দ্রীয় দল আসতেই বাংলায় চারগুণ মৃত – আক্রান্তের সংখ্যা! প্রশ্ন তুলছে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম

কেন্দ্রীয় দল আসতেই বাংলায় চারগুণ মৃত – আক্রান্তের সংখ্যা! প্রশ্ন তুলছে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম



করোনা মোকাবিলায় প্রথম দিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের ভূমিকার প্রশংসা করেছিলেন বিরোধীরা। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে, ততই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। যেখানে তাদের প্রধান অভিযোগ ছিল যে, রাজ্য সরকার করোনা মোকাবিলায় যে পদক্ষেপই নিক না কেন, আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা চেপে যাওয়া হচ্ছে। এমনকি দেশের বিভিন্ন রাজ্যে যখন হু হু করে বাড়ছে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা, ঠিক তখনই পশ্চিমবাংলায় তা একই মাত্রায় থেকে যাওয়ায় প্রশ্ন তুলেছে বিভিন্ন মহল।

বিরোধীদের পক্ষ থেকে এও অভিযোগ করা হয়েছিল, আসলে দেশের সামনে রাজ্যের দুরাবস্থা যাতে চলে না আসে, তার জন্যই তা ধামাচাপা দিচ্ছে প্রশাসন। এমনকি কেন্দ্রের কাছে এই ব্যাপারে রাজ্যের বিরোধী দল বিজেপি অভিযোগ জানিয়েছিল। আর তারপরেই পশ্চিমবঙ্গে করোনা আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা সঠিকমাত্রায় জানার জন্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে রাজ্যে পাঠানো হয় প্রতিনিধিদল। যে প্রতিনিধিদল নিয়ে প্রবল আপত্তি জানায় রাজ্য সরকার। যদিও বা পরবর্তীতে সেই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলকে সহযোগিতা করার কথা জানায় রাজ্য।

সূত্রের খবর, সোমবার কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল রাজ্যে এসে পৌঁছয়। আর আশ্চর্যজনকভাবে কেন্দ্রের প্রতিনিধিদল রাজ্যে এসে তথ্য সংগ্রহ করার পরেই দেখা যায় যে, রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা হু হু করে বাড়তে শুরু করেছে। এখন এই ঘটনা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। সূত্রের খবর, দ্য প্রিন্ট সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যে বলা হচ্ছে, কেন্দ্রীয় দল পরিদর্শনের পরই পশ্চিমবঙ্গে মৃত্যুসংখ্যা আচমকা চার গুণ বেড়ে গিয়েছে। আর এখানেই অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন, তাহলে কি রাজ্য সরকার এতদিন তা চেপে রেখেছিল? কেন্দ্রীয় দল পরিদর্শন করার পরেই তা উন্মোচিত হয়ে গেল?

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই প্রশ্নটা অস্বস্তিকর হলেও, কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল রাজ্যে আসার পরেই হঠাৎ কেন আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে গেল, তা নিয়ে জল্পনা তৈরি হওয়াই স্বাভাবিক। জানা গেছে, শুক্রবার এই ব্যাপারে নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা বলেন, “গত কুড়ি দিনের মধ্যে অডিট কমিটি 57 ডেথ অডিট করেছেন। তারমধ্যে 18 টা ডেথ ডাইরেক্ট কোভিড। বাকি 39 টি কো- মরবিড কন্ডিশন।” অর্থাৎ মুখ্যসচিব নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে রাজ্যে আঠারোটা মৃত্যু সরাসরি করোনায় হয়েছে, তবে মোট মৃত্যুর সংখ্যা 57 বলে যে বিবৃতি দিয়েছেন, তা নিয়েই এখন তৈরি হচ্ছে সংশয়।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো রাজ্য সরকারের এই বক্তব্যকে হাতিয়ার করে এখন ব্যাপক প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে। প্রথমদিকে রাজ্য সরকার করোনাতে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা রাজ্যে আয়ত্তে আছে বলে জানালেও, হঠাৎ করেই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল আসার পর এই ব্যাপারে নড়েচড়ে বসে রাজ্য সরকার। এখন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শনের পর সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে বাধ্য হল রাজ্য বলে দাবি সমালোচক মহলের। সব মিলিয়ে এখন গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, তার দিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!