এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দ্বিতীয় দফাতেও সব বুথে নেই কেন্দ্রীয় বাহিনী – ছাপ্পার আশঙ্কায় ক্ষুব্ধ সম্মিলিত বিরোধীরা

দ্বিতীয় দফাতেও সব বুথে নেই কেন্দ্রীয় বাহিনী – ছাপ্পার আশঙ্কায় ক্ষুব্ধ সম্মিলিত বিরোধীরা



প্রথম দফার ভোট এরাজ্যে শান্তিপূর্ণভাবে সমাপ্ত হলেও সমস্ত বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকায় ভোট লুট এবং সন্ত্রাসের অভিযোগে শাসকদলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে বিরোধীরা। আর এবার দ্বিতীয় দফার ভোটে যাতে সেই শাসক দল কোনোরূপ সন্ত্রাস এবং বুথ দখল ও ছাপ্পা ভোট না দিতে পারে তার জন্য ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশনের প্রতি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বিরোধী দলগুলো।

প্রসঙ্গত, দ্বিতীয় দফায় অর্থাৎ আগামী 18 এপ্রিল রাজ্যের তিনটি লোকসভা কেন্দ্র জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং এবং রায়গঞ্জে ভোট রয়েছে। যেখানে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে 134 কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিভিন্ন এলাকায় রুটমার্চ শুরু করেছে। আর এরই মাঝে এবার শাসকদলের বিরুদ্ধে সুর চড়াতে শুরু করল বিরোধীরা।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে শিলিগুড়ির বাম বিধায়ক অশোক ভট্টাচার্য বলেন, “আমরা প্রথম থেকেই আশঙ্কা করেছিলাম যে তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে কোনো একটা সেটিং হয়েছে। ভোট লুটের চেষ্টা চালানোর জন্যই এই কেন্দ্রীয় বাহিনী দেওয়া হচ্ছে না। তবে এবার যদি ভোট লুটের চেষ্টা হয় তাহলে কাউকে রেয়াত করা হবে না।”

একই অভিযোগ করেছেন দার্জিলিং জেলা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক জীবন মজুমদারও। তবে সমস্ত বুথে যাতে কেন্দ্রীয় বাহিনী দেওয়া যায়, তার জন্য আমরা প্রথম থেকেই দাবি জানাচ্ছি। নির্বাচন কমিশন তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত প্রকাশ করুক বলে এদিন জানান বিজেপির শিলিগুড়ির সাংগঠনিক জেলার সভাপতি অভিজিৎ রায় চৌধুরী। তবে বিরোধীরা এই ব্যাপারে তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুললেও এদিন এই সমস্ত ঘটনাকে অস্বীকার করেছে দার্জিলিং জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা মন্ত্রী গৌতম দেব।

এদিন তিনি বলেন, “নির্বাচন কমিশনের তত্ত্বাবধানেই ভোট হচ্ছে। তাই আমাদের কিছু বলার নেই। কেন্দ্রীয় বাহিনী ভোটকেন্দ্রের ভেতরে থাকবে না। বাইরে থাকবে। তবে ভোট কেন্দ্রে যাদের থাকার কথা সেই বিরোধীদের এজেন্টেরই তো দেখা মেলে না। আমাদের মানুষের উপর আস্থা আছে। যারা সাধারন উপর আস্থা রাখতে পারে না তারাই এসব অভিযোগ করে।”

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!