এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভালো প্রার্থীর খোঁজে বিজেপি, খুশি নয় দলের একাংশ, জোর চাঞ্চল্য !!

ভালো প্রার্থীর খোঁজে বিজেপি, খুশি নয় দলের একাংশ, জোর চাঞ্চল্য !!



লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি দুর্নীতিগ্রস্ত তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়াই করেই সাফল্য পেয়েছিল বলে মনে করেন একাংশ। সেদিক থেকে পৌরসভা নির্বাচনে সাফল্য পেতে গেলে তাদের যে ভালো এবং স্বচ্ছ মুখকেই প্রার্থী করতে হবে, তা উপলব্ধি করেছে বিজেপি নেতৃত্বরা। ইতিমধ্যেই পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে স্বচ্ছ ভাবমূর্তি এবং অরাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের খোজ চালাচ্ছে পদ্ম শিবির। তবে দলের এই পরিকল্পনায় খুব একটা খুশি নয় বিজেপির একাংশ।

অনেকের দাবি, যারা সারা বছর দলের হয়ে কাজ করে, তাদেরকেই পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী করা উচিত। কিন্তু দল স্বচ্ছ এবং অরাজনৈতিক লোকেদের প্রার্থী করার ব্যাপারে বেশি জোর দেওয়ায়, বিজেপির অনেকেই দলের প্রতি ক্ষুব্ধ হতে শুরু করেছেন। বস্তুত, ইতিমধ্যেই সাংগঠনিক নানা পদ নিয়ে হুগলি জেলা বিজেপির অন্দরে তৈরি হয়েছে চাঞ্চল্য। তাই এই পরিস্থিতিতে যদি বাইরের কোনো লোককে পৌরসভা নির্বাচনে টিকিট দেওয়া হয়, তাহলে বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দল আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে অনেকের মনে।

তাহলে কি দলের লোকরা প্রার্থী হতে না পারলে বিজেপির বিড়ম্বনা বাড়বে? গোষ্ঠী কোন্দলে বিদ্ধ হয়ে কি অস্বস্তিতে পড়বে ভারতীয় জনতা পার্টি? এদিন এই প্রসঙ্গে শ্রীরামপুর সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি শ্যামল বসু বলেন, “বিজেপি একটি শৃংখলাবদ্ধ দল। এখানে দলের নির্দেশই শেষ কথা। আমাদের দলের কেউ পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য লালায়িত নয়। দল যাকে প্রার্থী করবে, তিনিই পদ্মফুল চিহ্নে লড়বেন।”


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিকে এই ব্যাপারে বিজেপির ওবিসি মোর্চার রাজ্য সভাপতি স্বপন পাল বলেন, “কর্মীদের মধ্যে নির্বাচনী রাজনীতি বিরোধী বিশেষ করে তৃণমূল কংগ্রেসের মুখোমুখি হওয়ার আগ্রহটাকেই আমরা ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। তবে দলের কোথাও অসুস্থ প্রতিযোগিতা নেই। যোগ্য নেতাকর্মীরাই প্রতিদ্বন্দ্বিতার সুযোগ পাবেন।” তবে বিজেপি নেতৃত্বরা যে কথাই বলুন না কেন, দলের বাইরে থেকে লোক এনে প্রার্থী করার পদ্ধতিকে যে সঠিক পন্থা হিসেবে দেখছেন না বিজেপি স্থানীয় নেতাকর্মীরা, তা তাদের অনেকের কথাতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।

একাংশের দাবি, “সারা বছর যারা বিজেপির পতাকা কাঁধে বহন করে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়াই করবেন, তাদের প্রার্থী না করে যদি বাইরে থেকে প্রার্থী করা হয়, তাহলে দল করে লাভ কি!” বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্থানীয় নেতাকর্মীরা যেভাবে বিজেপির প্রার্থী খোজা নিয়ে আপত্তি জানাতে শুরু করেছে, তাতে যদি সত্যি সত্যি দলের কর্মী অপেক্ষা বাইরের লোককে বিজেপি প্রার্থী করে, তাহলে পৌরসভা নির্বাচনের আগে চরম গোষ্ঠী কোন্দল শুরু হতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টির অন্দরমহলে। এখন গোটা পরিস্থিতি কোনদিকে যায়, বিজেপি কর্মীদের ক্ষোভকে সামাল দিতে কি পদ্ধতি অবলম্বন করে! সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!