এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সিএএ প্রতিবাদের নামে আক্রমণ পুলিশকেও! শান্তি রক্ষায় একমাত্র ভরসা এখন রাফ-কমব্যাট ফোর্স!

সিএএ প্রতিবাদের নামে আক্রমণ পুলিশকেও! শান্তি রক্ষায় একমাত্র ভরসা এখন রাফ-কমব্যাট ফোর্স!



 

শুক্রবার দিন থেকে সংশোধিত নাগরিক আইনের প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে যে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে, সেই বিক্ষোভ যেন কাউকে মানতে চাইছে না। রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা প্রশাসন সবকিছুর ঊর্ধ্বে উঠে গিয়ে সরকারি সম্পত্তি থেকে শুরু করে জাতীয় নাগরিক সম্পত্তি পর্যন্ত কেউই রেহাই পাচ্ছে না বিক্ষোভকারীদের হিংসাত্মক আন্দোলনের হাত থেকে। আর এবার বিক্ষোভকারীদের হিংসাত্মক আন্দোলনের শিকার হলেন উলুবেড়িয়া থানার আইসি কৌশিক কুন্ডু।

জানা যাচ্ছে, তার মাথায় এবং বুকে এতই জোরালো আঘাত লেগেছে যে, তাকে প্রথমে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতাল এবং পরবর্তীতে সেখান থেকে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুধু থানার আইসি কৌশিকবাবুই নয়, তাকে বাঁচাতে গিয়ে আরও তিন জন পুলিশ কর্মী জোরালোভাবে জখম হয়েছেন বিক্ষোভকারীদের হাতে।

পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত যে, উলুবেরিয়া, শাহপাড়া এলাকায় রীতিমত এবং কমব্যাট ফোর্স মোতায়েন করে টহলদারি চালাতে হচ্ছে পুলিশকে। ইতিমধ্যেই হাওড়া জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গ্রামীণ আশিস মৌর্যের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশবাহিনী নজরদারি রাখছে এলাকায় বলে জানা যাচ্ছে।

শুধু তাই নয়, পরিস্থিতিকে সামাল দিতে উলুবেড়িয়া এলাকার বিভিন্ন জায়গাতে অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। যাতে করে কোথাও সামান্য গন্ডগোল দেখা দিলেই তৎক্ষনাৎ সেই বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে। এই ধরনের হিংসাত্মক আন্দোলনে পুলিশের আক্রান্ত হওয়ার প্রসঙ্গে হাওড়া জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেছেন, “আমরা সর্বত্র অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করেছি। বিভিন্ন জায়গায় রুটমার্চ চলছে। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সম্ভব হবে।”

ঘটনা প্রসঙ্গে জেলা পুলিশের একজন আধিকারিক জানিয়েছেন, হাওড়া সিটি পুলিশের সঙ্গে গ্রামীণ পুলিশের সমন্বয় রেখে কাজ চালাবার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বিক্ষোভকারীদের আন্দোলনের জেরে যেন কোনভাবেই 6 নম্বর জাতীয় সড়ক এবং এক্সপ্রেসওয়ে বন্ধ হয়ে না পড়ে, সেদিকে নজরদারি রাখতে বলা হয়েছে স্থানীয় পুলিশকে। জাতীয় সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখার জন্য মোট তিনটি জায়গায় অতিরিক্ত সিসিটিভি বসানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

নবান্ন সূত্রে এইরকমই নির্দেশ এসেছে বলে জানানো হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, গত রবিবার রাতেই উলুবেরিয়া, সাহাপাড়া এলাকায় বেশ কিছু জন যুবক সংশোধিত নাগরিক আইন বিরোধিতা করে হিংসা আন্দোলনের প্রস্তুতি চালাচ্ছে বলে খবর পায় উলুবেড়িয়া থানার আইসি কৌশিক কুন্ডু। পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে কৌশিকবাবু সেখানে বেশ কয়েকজন পুলিশ আধিকারিককে নিয়ে উপস্থিত হলে যুবকদের পুলিশকে উদ্দেশ্য করে ইট পাটকেল ছোড়া হতে থাকে।

এই আক্রমণে কৌশিক কুন্ডু গুরুতরভাবে জখম হন। শুধু কৌশিকবাবুই নয়, তার সঙ্গে জখম আরও বেশ কয়েকজন পুলিশ আধিকারিক। গোটা ঘটনা প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, আন্দোলনের তীব্রতা এবং হিংসাত্মক রূপ বিভিন্ন জায়গায় উত্তরোত্তর যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাতে করে এখনই যদি তা সামলানো সম্ভব না হয়, তাহলে রীতিমত চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াতে পারে এই পরিস্থিতি।

পাশাপাশি পুলিশ এবং সরকারি সম্পত্তির প্রতি যারা হামলা চালাচ্ছে, তাদেরকে শনাক্ত করারও প্রয়োজন রয়েছে। উলুবেড়িয়া পুলিশ সূত্রে খবর, আইসি কৌশিক কুন্ডুর উপরে যারা হামলা চালিয়েছে, তাদেরকে ইতিমধ্যেই শনাক্ত করেছে পুলিশ। তাদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। তবে সোমবার পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। ওয়াকিবহাল মহল মনে করছে, এই সমস্ত হামলাকারীদের সনাক্তকরণ করে দ্রুত যদি পুলিশ গ্রেপ্তার করতে না পারে, তাহলে এই ধরনের ঘটনা আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। এখন সমগ্র পরিস্থিতি কি রূপ ধারণ করে! সেদিকে অবশ্যই লক্ষ্য থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!