এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উপনির্বাচনের শেষ প্রচারে জমজমাট, উঠে আসছে হেভিওয়েটদের নাম, জানুন বিস্তারিত

উপনির্বাচনের শেষ প্রচারে জমজমাট, উঠে আসছে হেভিওয়েটদের নাম, জানুন বিস্তারিত



 

কথায় আছে, শেষ ভালো যার সব ভালো তার। আজ শনিবার, রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের প্রচারের শেষ দিন। তাই শেষ দিনের প্রচারে ঝড় তুলতে চাইছে শাসক-বিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দল। বস্তুত, আগামী 25 নভেম্বর রাজ্যের খড়গপুর, করিমপুর এবং কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন। ইতিমধ্যেই এই তিন উপনির্বাচনকে নিজেদের অ্যাসিড টেস্ট চেপে ধরে নিয়ে বাম-কংগ্রেস তৃণমূল এবং বিজেপি নিজেদের হেভিওয়েট নেতা নেত্রীদের নিয়ে এসে প্রচার পর্বে শামিল হয়েছিল।

আর নির্বাচনের শেষ বিচারের দিন প্রত্যেকেই শেষ মুহূর্তের চমক দেখানোর জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। জানা গেছে, খড়গপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী প্রদীপ সরকারের সমর্থনে শুক্রবার এই কেন্দ্রের প্রচারে আসেন তৃণমূলের অভিনেত্রী সংসদ মিমি চক্রবর্তী, শিশির অধিকারী এবং মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র।

অন্যদিকে বিজেপির দখলে থাকা খড়গপুর বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী প্রেমচাদ ঝার হয়ে প্রচারে আসতে দেখা যায় এখানকার ভূতপূর্ব বিধায়িকা তথা বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, কৈলাস বিজয়বর্গীয় সহ অন্যান্যদের। আর আজ শেষ মুহূর্তে তৃণমূল প্রার্থীর হয়ে খড়্গপুরে ঝড় তুলতে প্রচারে আসতে পারেন তৃণমূলের হেভিওয়েট দুই মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী এবং ফিরহাদ হাকিম।

একইভাবে বিজেপির তরফে কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং দিলীপ ঘোষ তাদের প্রচারে থাকবেন বলে জানা গেছে। তবে সেই ভাবে বাম- কংগ্রেস জোট প্রার্থীর হয়ে কেউ না আসলেও জ্ঞানসিং সোহনপালকে সামনে রেখে তারা প্রচার চালাবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন কংগ্রেসের নির্বাচনী কমিটির আহ্বায়ক দেবাশিস ঘোষ। এ তো গেল খড়্গপুরের কথা।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এবার আসা যাক, করিমপুর বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারপর্বে। সূত্রের খবর, এখানে তৃণমূলের প্রার্থী হয়েছেন বিমলেন্দু সিংহ রায়। মহুয়া মৈত্রর ছেড়ে যাওয়া এই কেন্দ্রে শুক্রবার সেই বিমলেন্দুবাবুর হয়ে প্রচার করতে আসেন রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী ব্রাত্য বসু, টলি তারকা কৌশানী মুখোপাধ্যায়, বনি সেনগুপ্ত সহ অন্যান্যরা।

জানা গেছে, শেষ মুহূর্তের প্রচারে করিমপুরে তৃণমূল প্রার্থীর হয়ে আসতে পারেন বিশিষ্ট সিনেমা পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। মূলত মহুয়া মৈত্রের ভরসা করেই বিমলেন্দুবাবু এবার নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে চাইছেন। তবে এখানে রাজনৈতিক নেতা-নেত্রী অপেক্ষা বেশি প্রচার পবে মানুষের মন জয় করতে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসকে।

একইভাবে তৃণমূলকে টেক্কা দিতে শুক্রবার বিজেপি প্রার্থী জয়প্রকাশ মজুমদারের সমর্থনে এখানে প্রচারে আসতে দেখা যায় বিশিষ্ট ডিজাইনার তথা বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পল, মুকুল রায়, বিশ্বপ্রিয় রায়চৌধুরী, রীতেশ তেওয়ারি সহ অন্যান্যদের। তবে শেষ মুহূর্তে এখানে বাম-কংগ্রেস জোট প্রার্থী গোলাম রাব্বির সমর্থনে প্রচারে আসেন বাম এবং কংগ্রেস দুই দলের হেভিওয়েট নেতা নেত্রীরাই। সোমেন মিত্র থেকে শুরু করে বিমান বসু, আব্দুল মান্নান থেকে শুরু করে সুজন চক্রবর্তী, প্রায় প্রত্যেকেই করিমপুরের প্রার্থীর হয়ে প্রচারে ঝড় তোলেন।

এদিকে কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্র এতদিন কংগ্রেসের দখলে থাকলেও, এবার তা নিজেদের দখলে আনতে উদ্যোগী হয়েছে তৃণমূল এবং বিজেপি দুই রাজনৈতিক দলই। জানা গেছে, শুক্রবার তৃণমূল প্রার্থী তপন দেব সিংহের সমর্থনে প্রচার করেন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল, গোলাম রব্বানী সহ অন্যান্যরা। সূত্রের খবর, শনিবার এখানে প্রচারে আসতে পারেন বিশিষ্ট অভিনেতা সাংসদ দীপক অধিকারী।

অন্যদিকে বিজেপির কমল সরকারের হয়ে প্রচার পর্বে শামিল হতে দেখা যায় দেবশ্রী চৌধুরী, মনোজ টিগ্গার মত নেতাদের। জানা গেছে, আজ বিজেপি প্রার্থীর হয়ে প্রচারে আসছেন ত্রিপুরার বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। তবে শেষ মুহূর্তে হেভিওয়েটদের প্রচারে এনে তিন আসনে কারা শেষ হাসি হাসে, সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!