এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কবে পেশ হতে চলেছে বাজেট! জেনে নিন

কবে পেশ হতে চলেছে বাজেট! জেনে নিন



সবে মাত্র 2019 সালকে বিদায় জানিয়ে 2020 সালকে স্বাগত জানিয়েছে দেশবাসী। আর এর মধ্যেই নতুন বছরের 9 দিন অতিক্রান্ত হতে না হতেই কেন্দ্রীয় অর্থ দপ্তরের তরফ থেকে আগাম জানিয়ে দেওয়া হল কেন্দ্রীয় অর্থ বাজেটের দিনক্ষণ। এএনআই সূত্র মারফত পাওয়া খবর অনুযায়ী, আগামী পয়লা ফেব্রুয়ারি পেশ হতে পারে কেন্দ্রীয় বাজেট 2020-21। আবার চলতি মাসের 31 তারিখেই শুরু হতে পারে বাজেট পেশের প্রথম পর্ব। যা শেষ হবে আগামী 11 ফেব্রুয়ারিতে। অন্যদিকে আবার দ্বিতীয় পর্যায়ের বাজেট পেশ হতে পারে 2 মার্চ। যা শেষ হবে 3 এপ্রিল।

কিন্তু দেশের অর্থনীতিবিদদের মধ্যে ইতিমধ্যেই জল্পনা তৈরি হয়েছে, দেশজুড়ে অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন কি নিজের প্রথম বাজেটে শক্ত অর্থনৈতিক হিসাব মিলাতে পারবেন! ইতিমধ্যেই এই প্রশ্নকে আরও উস্কে দিয়ে দুশ্চিন্তার কথা জানিয়েছেন অর্থ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকরা।

ইতিমধ্যেই সরকারের তরফ থেকে অর্থনৈতিক ঘাটতি মেটানোর জন্য বিভিন্ন প্রকারের বিলগ্নীকরণ আশ্রয় গ্রহণ করা হয়েছে। উদ্দেশ্য ছিল, বিলগ্নীকরণের মাধ্যমে 1 লক্ষ 5 হাজার কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রা পূর্ণ করা। কিন্তু অর্থমন্ত্রীর চিন্তা বাড়িয়ে বিভিন্ন সূত্র মারফত খবর আসতে শুরু করেছে, বিলগ্নীকরণের মাধ্যমে সর্বোচ্চ 60 হাজার কোটি টাকা ঘরে আসতে পারে। লক্ষ্যমাত্রা থেকে যা 45 হাজার কোটি টাকা কম। অন্যদিকে আবার সমগ্র দেশে ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতির কারণে রাজস্বের দিক থেকে সরকারের তরফ থেকে যে লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছিল, তার থেকে 2 লক্ষ কোটি টাকা কম রাজস্ব আসতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

গতকালই দেশের পরিসংখ্যান মন্ত্রকের তরফ থেকে অনুমান করা হয়েছে, চলতি বছরে অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার 5 শতাংশ সেই সীমাবদ্ধ থাকবে। অন্যদিকে মূল বৃদ্ধি সহ দেশের জিডিপি মোটে 7.5% শতাংশ বৃদ্ধি পেতে পারে। সমগ্র দেশে চলতে থাকা অর্থনৈতিক মন্দার কারণে ইতিমধ্যেই আমজনতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন রকমের ব্যবসায়িক সংস্থাগুলোর লাভের পরিমাণ অনেকটাই কমেছে। ব্যবসা-বাণিজ্যের দিক দিয়েও মন্দা দেখা দিয়েছে। যার প্রত্যক্ষ ফল স্বরূপ রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি সম্মুখীন হতে হচ্ছে কেন্দ্র সরকারকে।

কেন্দ্রের মোদি সরকারের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই দেশের ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে করের ক্ষেত্রে অনেকটাই ছাড় দেওয়া হয়েছে। সেই কারণে আবার কেন্দ্র সরকারের রাজস্ব পরিমাণ অনেকটাই কম হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই মনে করা হচ্ছে, বাজেটে কর বাবদ সরকারের আয়ের লক্ষমাত্রা 2.5 লক্ষ কোটি টাকা থেকে অনেকটাই কম হতে পারে।

সব কিছু মিলিয়ে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, দীর্ঘদিন ধরেই দেশে যে পরিমাণে অর্থনৈতিক সংকট তৈরি হয়েছে, অতি দ্রুত যদি তার সমাধান না সম্ভব হয়, তাহলে তার বড় প্রভাব পড়তে পারে দেশীয় অর্থনীতির মধ্যে। এখন আগামী বাজেটে সরকার নিজের অর্থনৈতিক ঘাটতিকে কীভাবে মোকাবেলা করেন! সেদিকেই লক্ষ্য থাকবে দেশের অর্থনীতিবিদদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!