এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > টেকনোলজি > Breaking News, কবে মিলবে করোনার ভ্যাকসিন জানালেন খোদ কেন্দ্রীয় স্বাস্থমন্ত্রী ড. হর্ষ বর্ধন

Breaking News, কবে মিলবে করোনার ভ্যাকসিন জানালেন খোদ কেন্দ্রীয় স্বাস্থমন্ত্রী ড. হর্ষ বর্ধন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সমগ্র দেশবাসী অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে আছে করোনার ভ্যাকসিনের জন্য। কারণ, করোনার সঙ্গে লড়াইতে প্রচলিত মাস্ক, স্যানিটাইজার, সামাজিক দূরত্ব, লকডাউন কোন কিছুই তেমন শক্তিশালী প্রতিপক্ষর ভূমিকা গ্রহণ করতে পারছে না। এ কারণেই করোনার ভ্যাকসিনের অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন দেশবাসী। এই আবহে করুনার ভ্যাকসিন কবে পাওয়া যাবে সে কথা জানালেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডক্টর হর্ষ বর্ধন। আজ রবিবার দুপুর ১ টা নাগাদ এবিষয়ে সানডে সংবাদ নামে একটি ভিডিও তিনি প্রকাশ করেন।

এই ভিডিওতে তিনি জানিয়ে দিলেন যে, আগামী ২০২১ সালের জুলাই মাসের মধ্যেই ২৫ কোটি ভারতবাসীকে করোনার ভ্যাকসিন বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কেন্দ্র। আগামী ২০২১ সালের জুলাই মাসের মধ্যে অন্তত ৪০০ থেকে ৫০০ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন কেন্দ্রের আসতে চলেছে বলে জানালেন তিনি। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও জানালেন যে, করোনার ভ্যাকসিন হাতে পাওয়া মাত্রই, দ্রুত তা দেশবাসীর কাছে পৌঁছে দেবার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে কেন্দ্র। দেশের করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় কেন্দ্র কিভাবে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কাজ করছে সে বিযয়েও জানালেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত গত আগস্ট মাসে মার্কিন টিকা নির্মাণকারী সংস্থা ‘Novavax’ – এর সঙ্গে একটি বিশেষ চুক্তি সম্পাদিত হয়েছিল ভারত তথা বিশ্বের সবচেয়ে বড় টিকা উৎপাদক সংস্থা সেরাম ইনস্টিটিউটের। মার্কিন সংস্থা ‘Novavax’ এর সঙ্গে এই চুক্তি করে সেরাম ইনস্টিটিউট ১০০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন উৎপাদন করবে। উৎপাদিত এই ভ্যাকসিন ভারত সহ বিশ্বের সল্প আয়ের দেশ গুলিকে বিতরণ করা হবে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সেরাম ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়েছে যে, মার্কিন ‘Novavax’ এর সঙ্গে তাদের চুক্তির ফলে, তাদের সংস্থা ভ্যাকসিনের অ্যান্টিজেন কম্পোনেন্ট NVX-CoV2373 তৈরি করতে পারবে। এর ফলেই আগামী ২০২১ সালের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যেই ২০০ বিলিয়ন ডোজ করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করা সম্ভবপর হবে।

প্রসঙ্গত গত সেপ্টেম্বর মাসে মার্কিন সংস্থা ‘Novavax’ আগামী বছরের প্রথমদিকে ৬০ মিলিয়ান ডোজ করোনার ভ্যাকসিন ব্রিটেনকে সাপ্লাই দেবে বলে জানিয়েছে। প্ৰসঙ্গত, মার্কিন সংস্থা ‘Novavax’ এর করোনার ভ্যাকসিন সম্প্রতি মধ্যবর্তী পর্যায়ের ট্রায়ালে অবস্থান করছে। তবে বিশেষজ্ঞরা লক্ষ্য করছেন যে, এই ভ্যাকসিন ব্যবহার করে উচ্চমানের অ্যান্টিবডি তৈরি করা সক্ষম। যা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে সক্ষম। চলতি বছরের শেষেই তাদের ভ্যাকসিন এর চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষা করতে চলেছে এই মার্কিন সংস্থা। এমনটাই জানানো হয়েছে সংস্থার পক্ষ থেকে।

সম্প্রতি সমগ্র বিশ্বকে করোনার ভ্যাকসিন দিয়ে সাহায্য করার আশ্বাস দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। রাষ্ট্রসঙ্ঘের ভাষণে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, ” ভারতই বিশ্বের সবথেকে বড় ভ্যাক্সিন উত্‍পাদনকারী দেশ। তাই আজ গ্লোবাল কমিউনিটিকে আশ্বাস দিয়ে বলতে চাই, এই ক্রাইসিসে পুরো মানবজাতিকে সাহায্য করতে ভ্যাক্সিন উত্‍পাদন ও ডেলিভারি করবে ভারত।” এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরও জানিয়ে ছিলেন যে, ভারত করোনার ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এছাড়াও তিনি জানান যে, পৃথিবীর ১৫০ টি দেশকে চিকিৎসা সংক্রান্ত বিষয়ে সাহায্য করেছে ভারত।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!