এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বদলে যাচ্ছে বুথচিত্র! চলতি মাসেই বুথ পুনর্বিন্যাস ও পুনর্গঠন?

বদলে যাচ্ছে বুথচিত্র! চলতি মাসেই বুথ পুনর্বিন্যাস ও পুনর্গঠন?



নির্বাচন পদ্ধতিতে এক নতুন ভাবনা রাজ্য নির্বাচন কমিশনের। রাজ্যের প্রতিটি জেলা প্রশাসনের কাছে তাঁদের প্রস্তাব, নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বুথের পুনর্গঠন ও পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত কিছু পরিবর্তন আনতে চায় তাঁরা। কি লেখা আছে এই প্রস্তাবে? সূত্রের খবর, জেলা প্রশাসনের কাছে পাঠানো এই প্রস্তাবে 1400 নয়, প্রতি বুথে ভোটারের সংখ্যা কমিয়ে তা 1350 করার কথা বলা হয়েছে। তবে বুথের বাড়তি ভোটার সরানোর ক্ষেত্রে পার্শবর্তী বুথ বা আলাদা করে কোনোও বুথ গড়ারও কথা বলা হয়েছে এই প্রস্তাবে। ইতিমধ্যেই সরকারের তরফেও যেসব বুথে 1350 জনের বেশি ভোটার রয়েছে তাঁদেরকে পাশের বুথে সরানোর কাজও শুরু করা হয়েছে। তবে অনেকেরই প্রশ্ন হঠাৎ বুথের সংখ্যা নির্ধারন করতে এত ব্যাস্ত কেন রাজ্য নির্বাচন কমিশন?

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এখানেই কমিশনের দাবি, আগামীদিনে সমস্ত ভোটেই ইভিএমের সাথে সাথে ভিভিপ্যাট যন্ত্র থাকবে, যার মাধ্যমে কোন প্রতীকে কত ভোট পড়ছে তা কাগজে ছাপা হয়ে একটি বাক্সে জমা হবে। আর ইভিএমের হিসেবে গড়মাল হলেই সেই ভিভিপ্যাটে নথি দেখা হবে। সূত্রের খবর, এই ভিভিপ্যাটে একবার কাগজের রোল পড়লে ইভিএমে 1500 বার বোতাম টেপার পর তা ফুরিয়ে যায়। আর ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তা আরও একশোবারের মত টেপা হয়। তাই কমিশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কোনোও বুথে যদি কাগজের রোল ফুরিয়ে যায় এবং সেখানে যদি 1400 র বেশি ভোটার থাকে তবে বৃথা হবে এই ভিভিপ্যাট। আর কমিশনের এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বিভিন্ন জেলার প্রশাসন সেখানকার রাজনৈতিক দলগুলোর সাথেও এব্যাপারে বৈঠক করেছে। সব মিলিয়ে কমিশনের বুথ পুনর্বিন্যাস নির্দেশ পালন করতে রিপোর্ট তৈরি করছে জেলা প্রশাসন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!