এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > বোমাবাজির তদন্ত করতে গিয়ে মালদহের কালিয়াচকের ২০০ বোমা উদ্ধার পুলিশের

বোমাবাজির তদন্ত করতে গিয়ে মালদহের কালিয়াচকের ২০০ বোমা উদ্ধার পুলিশের



মঙ্গলবার বিকেলে মালদার ইংলিশবাজার থানার মহদিপুর লাগোয়া কালিয়াচকের সাইলাপুরে দুইদল দুস্কৃতির মধ্যে বোমাবাজির ঘটনায় চারজন আহত হন ও দুজনের মৃত্যু হয়। এবির এই ঘটনারই তদন্তে নেমে সাইলিপুরের ঘোষপাড়া থেকে 200 টি বলবোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ।  এদিকে এই বলবোমা উদ্ধার করে পুলিশ নিশ্চিন্ত হলেও দুবছর আগের 2016 র 1 লা মের স্মৃতি ফিরবতরতাজা হয়ে উঠছে অনেকেরই সামনে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

জানা গেছে, দুবছর আগের সেই রাতে বৈষ্নবনগরের ঘেরা ভগবানপুরের একটি বাড়িতে বলবোমা বাঁধতে গিয়ে চারজনের মৃত্যু হলে পরদিন সেই সক্রিয় বিস্ফোরোকটিকে নিঃস্ক্রিয় করতে গেলে সিআইডির বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াডের তিন কর্মী আহত হন ও ঘটনাস্থলেই একএএসআই ও এক কনষ্টেবল মারা যান। সূত্রের খবর, সেইসময়  সালফারের সঙ্গে পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট, সোডিয়াম নাইট্রেটের মত বিষাক্ত রাসায়নিক দিয়ে সেই প্লাষ্টিকের ছোটো বল কেটে বোমার মশাল ঢুকিয়ে তৈরি করা হয়েছিল এই বলবোমা। আর সেই একই ভাবে মঙ্গলবারের বলবোমাগুলি কিভাবে তৈরি হয়েছে তাও খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে পুলিশ।

 

তবে এই বোমা বিস্ফোরনে পার্কিংয়ের বিবাদ নিয়েই সন্দেহ করছেন অনেকে। কারন মৃত ও জখমদের পরিচয়েঔ সেইরকমই ইঙ্গিত মিবেছে। পাশাপাশি এই পার্কিং পরিচালনার জন্য অনেকেরই ফোন এদিন বন্ধ ছিল। তবে এত সব সত্তেও পার্কিংলট নিয়েই যে এই বিবাদ সেই বিষয়ে মানতে নারাজ জেলা  পুলিশের কর্তারাও। এ প্রসঙ্গে মালদহ জেলা পুলিশ সুপার অর্নব ঘোষ বলেন, “বোমা বিস্ফোরোনের জায়গা থেকে 200 টি বোমা পাওয়া গেছে।আমরা কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করেছি। বোআ বাঁধার কারন খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এর সাথে পার্কিং বিবাদের কোনোও যোগ নেই।” সব মিলিয়ে কালিয়াচকের 200 টি বলবোমা উদ্ধারে বড়সড় সাফল্য মালদা জেলা পুলিশের

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!