এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > মদ্যপ অবস্থায় পার্টি অফিসে বোমাবাজির অভিযোগ! তৃণমূল-বিজেপির তীব্র অশান্তিতে থমথমে এলাকা!

মদ্যপ অবস্থায় পার্টি অফিসে বোমাবাজির অভিযোগ! তৃণমূল-বিজেপির তীব্র অশান্তিতে থমথমে এলাকা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একদিকে ধীরে ধীরে এগিয়ে আসছে একুশের বিধানসভা নির্বাচনের নির্ঘণ্ট। আর অন্যদিকে রাজ্যজুড়ে একের পর এক বোমাবাজি, হানাহানির ঘটনা সামনে আসছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলায় এবার মূলত তৃণমূল এবং বিজেপির ভোটযুদ্ধ হতে চলেছে। বিশেষজ্ঞদের সেই ইঙ্গিতকেই আরো স্পষ্ট করে তুলছে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূল এবং বিজেপির রাজনৈতিক হানাহানি। সম্প্রতি দাঁতন 2 নম্বর ব্লক থেকে অভিযোগ এসেছে, তৃণমূল পাটি অফিসে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা মদ্যপ অবস্থায় বোমা মেরেছে।

এই অভিযোগ নিয়ে শুরু হয়েছে তীব্র চাঞ্চল্য রাজনৈতিক মহলে। এদিন তৃণমূল জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দাঁতন 2 নম্বর ব্লকের আমরদা এলাকায় একটি তৃণমূল পাটি অফিসে বিজেপির কিছু মদ্যপ কর্মী এসে বোমা ছোঁড়ে। এমনকি দলের পতাকাও ছিঁড়ে দেয় তাঁরা। যদিও অভিযোগ পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছে গেরুয়া শিবির। স্থানীয় সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সন্ধা থেকে শুরু হয় অশান্তি। দফায় দফায় দুই দলের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে চলে হাতাহাতি, প্রবল গন্ডগোল।

এবং ভোররাতে তৃণমূলের পার্টি অফিস লক্ষ্য করে বোমা ছোঁড়া হয়। তারপরেই গোটা এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয় চরম উত্তেজনা। পরিস্থিতি সামাল দিতে বেলদা থানা এবং জড়াগেড়িয়া ফাঁড়ির বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। এই ঘটনা প্রসঙ্গে হরিহর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান তৃণমূল নেতা মিলন দাস জানিয়েছেন, রাজ্যজুড়ে অশান্তির চেষ্টা চালাচ্ছে গেরুয়া শিবির। বারবার অশান্তি করছে তাঁরা। শুক্রবার ভোরে পার্টি অফিস লক্ষ্য করে বিজেপির ছেলেরাই বোমা ছোঁড়ে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে স্পষ্ট ভাষায় এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। দাঁতন 2 নম্বর ব্লকের সংখ্যালঘু সেলের সভাপতি শেখ আজিজুল আলী জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিজেপি কর্মীরা কৃষি আইনের সমর্থনে একটি বৈঠকের আয়োজন করেছিল। বিজেপি কর্মীরা যখন দলীয় পতাকা লাগাচ্ছিল, তখন তৃণমূল বাধা দেয়। দুই দলের মধ্যে সাময়িক উত্তেজনায় গন্ডগোল হলেও কোথাও কোনো বোমাবাজির ঘটনা ঘটেনি। অন্যদিকে, শুক্রবার ভোরে বোমাবাজির ঘটনা ঘটায় এলাকার রাস্তা অবরোধ করে তীব্র বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা।

পরে অবশ্য স্থানীয় প্রশাসনের আশ্বাসে তাঁরা অবরোধ তুলে নেয় বলে জানা গেছে। ঘটনার জেরে আমরদা এলাকা এখনো থমথমে। ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন আছে বলে জানা গেছে। পুলিশ এই ঘটনার তদন্তে নেমেছে। তবে এখনো পর্যন্ত এই বোমাবাজির পেছনে কারা, তার হদিস মেলেনি। অন্যদিকে রাজনৈতিক মহলের মতে, এই বোমাবাজির ঘটনা নিয়ে তৃণমূল এবং বিজেপির রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব যে আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে গেল, সে ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!