এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > বোমা রাখার প্রতিবাদ, আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীর পরিবার, নির্বাচনী নির্ঘণ্ট প্রকাশ হতেই উত্তপ্ত বীরভূম!

বোমা রাখার প্রতিবাদ, আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীর পরিবার, নির্বাচনী নির্ঘণ্ট প্রকাশ হতেই উত্তপ্ত বীরভূম!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – প্রতিবার নির্বাচনের আগে বিরোধীদের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় বীরভূম জেলাকে নিয়ে। এক্ষেত্রে বীরভূমে সবথেকে বেশি সন্ত্রাস হয় বলে অভিযোগ করে বিরোধীরা। আর এই পরিস্থিতিতে বিধানসভা নির্বাচনী নির্ঘণ্ট প্রকাশ হতে না হতেই উত্তপ্ত হয়ে উঠতে দেখা গেল সেই বীরভূমকে বীরভূমের লাভপুর থানার কল্যাণপুর গ্রামে। যেখানে বোমা রাখার প্রতিবাদ করায় তৃণমূল কর্মীর মা এবং স্ত্রীকে মারধর করার অভিযোগ উঠল বিজেপি কর্মীর বিরুদ্ধে। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে এলাকা জুড়ে।

জানা গেছে, লাভপুর থানার কল্যাণপুরে তৃণমূল কর্মী রুস্তম শেখের বাড়ির পাশেই একটি গলিতে বোমা মজুত করে রাখছিলেন বিজেপি কর্মীরা। এদিন সকালে সেটা দেখতে পেয়েই রুস্তম শেখের স্ত্রী এর প্রতিবাদ করে। আর এরপরই বিজেপির পক্ষ থেকে তাকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এমনকি তৃণমূল কর্মীর বৃদ্ধা মাকেও মারধর করে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বলে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় তৃণমূল কর্মীর আহত স্ত্রী এবং মাকে ভর্তি করা হয়েছে লাভপুর গ্রামীণ হাসপাতালে। আর এর পর থেকেই রীতিমত উত্তপ্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে এলাকা জুড়ে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তৃণমূলের অভিযোগ, এই ঘটনার পেছনের বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা জড়িত। নির্বাচনের আগে বোমা মজুদ করে রেখে অশান্তি সৃষ্টি করতে চাইছে তারা। যদিও বা তৃণমূলের পক্ষ থেকে তোলা এই অভিযোগকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এদিন এই এই প্রসঙ্গে স্থানীয় বিজেপি নেতা বিকাশ আচার্য বলেন, “তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বেই এই গন্ডগোল হয়েছে। তারাই বোমা রেখেছিল। এটা সম্পূর্ণ তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফসল। এখানে বিজেপির কোনো হাত নেই।”

তবে যে দলের পক্ষ থেকে যে কথাই বলা হোক না কেন, নির্বাচনের দামামা বাজতে না বাজতেই যেভাবে খবরের শিরোনামে উঠে আসতে দেখা গেল বীরভূমকে, তাতে চিন্তা বাড়ছে এই জেলা নিয়ে। এখনও পর্যন্ত নির্বাচনের অনেক দিন বাকি রয়েছে। কিন্তু তার আগে যদি এইভাবে অশান্তি তৈরি হতে শুরু করে, তাহলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন প্রত্যেকে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!