এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > বলিউডের ড্রাগ কেলেঙ্কারি নিয়ে মুখ খুলে একদিনে জোড়া ধাক্কা খেলেন হেভিওয়েট বিজেপি সাংসদ!

বলিউডের ড্রাগ কেলেঙ্কারি নিয়ে মুখ খুলে একদিনে জোড়া ধাক্কা খেলেন হেভিওয়েট বিজেপি সাংসদ!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট- সম্প্রতি পার্লামেন্টের বাদল অধিবেশন বসে সেখানে মাদক যোগের অভিযোগ করেছিলেন বিজেপি সাংসদ রবি কিষন। আর সেই মাদক যোগ অন্য কিছু না, উঠে এসেছিল বলিউডের বিরুদ্ধেই। তবে একথা শুনে তাঁকে অবশ্য কটাক্ষ করতে ছাড়েননি সমাজবাদী পার্টির নেত্রী জয়া বচ্চন। তাঁর কথায় যে থালায় খান সেই থালাতেই ফুটো করছেন, এমন কটুক্তি শোনা যায়। ভরা লোকসভা অধিবেশনের বিজেপি সংসদ তথা এই জনপ্রিয় ভোজপুরি অভিনেতাকে, অভিনেত্রী জয়া বচ্চনের এহেন কথায় সেই সময় কম বিতর্ক হয়নি। তবে এ বিষয়ে জল্পনা যে আরও বহু দিন চলবে সেকথাও বলাই বাহুল্য।

এবার সেই বিতর্কই নতুন করে ঘি ঢাললেন ভোজপুরি অভিনেতা রবি কিষন। একটি সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারের কথায় তিনি বলেছেন বলিউডে ড্রাগসের বিরুদ্ধে মুখ খোলাতে ওনার পক্ষে সমস্যা তৈরি হয়েছে। যার ফলস্বরূপ ওনাকে একদিনে দুটি প্রোজেক্ট থেকে সরানো হয়েছে। তাঁর কথায়, বলিউডের এই বিতর্কের পর ওনাকে একদিনে একটি ওয়েব সিরিজ আর একটি সিনেমা থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি এই দুটি কাজই শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু একদম শেষ মুহূর্তে তাঁকে না করে দেওয়া হয় বলেই জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে তাঁকে এই প্রোজেক্টগুলো থেকে বাদ দেওয়ার স্পষ্ট কারণও জানানো হয়নি বলেই জানা গেছে। আর এই বিষয়ে তিনি বেশ অবাকই হয়েছেন।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিজেপি নেতার এই কথা একদিনে যেমন অবাক করেছে, তেমনই এটাও বুঝিয়ে দিয়েছে যে বলিউডে ড্রাগস নিয়ে তর্ক করলে তার কি ফল হতে পারে। তবে ইতিমধ্যেই আগের বারের মতই তাঁর বিরুদ্ধে অনেক বলিউড তারকা সরব হয়েছেন বলেও জানা গেছে। তবে তাঁদের কাউকেই ড্রাগসের বিরুদ্ধে কোনও কথা বলতে শোনা যায়নি। অন্যদিকে জয়া বচ্চন এই বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে বলিউডকে বদনাম করার অভিযোগ পর্যন্ত এনেছেন বলে জানা গেছে।

তবে রবি কিশান যে এরকম কোনো অভিযোগের পরোয়া করছেন না, সেকথাও বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। তিনি এদিন বলেন যে, দেশের জন্য যদি গুলি খেতে হয়, তবে তাতেও তিনি রাজি আছেন। যখন সংসদে দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে তর্ক চলছিল, তখন তিনি সেই কথা ভেবে নিজের জীবনের কথা একবারও ভাবেননি। যদি এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়, যেখানে দেশের জন্য তাঁকে পাঁচটা বুলেট খেতে হবে, তবে তিনি সেটাও খেতে রাজি। তবে এখনও পর্যন্ত তাঁর এই কথাতে উল্টো তরফের কোনো প্রতিক্রিয়া দেখা গেলেও এর কি প্রতিবাদ শোনা যাবে, এখন সেটাই দেখার অপেক্ষা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!