এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বহু চেষ্টা করেও ‘বিদ্রোহী’ বিধায়ককে ধরে রাখতে পারছেন না তৃণমূল মন্ত্রীরা! তবুও দল না ছাড়ার আশা?

বহু চেষ্টা করেও ‘বিদ্রোহী’ বিধায়ককে ধরে রাখতে পারছেন না তৃণমূল মন্ত্রীরা! তবুও দল না ছাড়ার আশা?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – যত দিন যাচ্ছে, ততই কোচবিহার দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক মিহির গোস্বামীর রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। বিজেপি সাংসদের সঙ্গে তার কথোপকথন হলেও, দলের কোনো নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন না তিনি। স্বাভাবিক ভাবেই তার এই ধরনের পদক্ষেপ দিনকে দিন অস্বস্তি বাড়াচ্ছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের। জানা গেছে, সোমবার মিহির গোস্বামীকে একাধিকবার ফোন করা হলেও, তার ফোন সুইচ অফ ছিল। তবে মিহিরবাবুর নামে খোলা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে একাধিক পোস্ট হতে দেখা গেছে।

ইতিমধ্যেই মিহির গোস্বামীর বাড়িতে গিয়ে তার সাক্ষাৎ না পেয়ে ঘুরে আসতে হয়েছে দুই মন্ত্রী বিনয় কৃষ্ণ বর্মন এবং রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে। তারপরে মিহিরবাবুর সঙ্গে দলের দূরত্ব আরও বাড়তে শুরু করেছে বলে দাবি করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। এমনকি তিনি বিজেপিতে যোগদানের রাস্তা প্রস্তুত করছেন বলেও মনে করা হয়েছিল। অবশেষে মিহির গোস্বামীর রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে যখন চিন্তা বাড়ছে তৃণমূলের, তখন মিহিরবাবু তৃণমূলেই থাকবেন বলে জানিয়ে দিলেন কোচবিহার জেলা তৃণমূল সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়।

সূত্রের খবর, সোমবার জেলা তৃণমূলের কার্যালয়ে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন জেলা তৃণমূল সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়। যেখানে বিজেপির শিক্ষক সংগঠন ছেড়ে এক নেতা তৃণমূলে যোগ দেন। আর সেখানেই মিহির গোস্বামীকে নিয়ে প্রশ্ন করা হলে পার্থপ্রতিম রায় বলেন, “মিহিরবাবু আমাদের দলে আছেন, দলেই থাকবেন। আমি দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলছি, ভাবনার কোনো বিষয় নেই। উনি হয়ত বাইরে বা ব্যক্তিগত কাজে রয়েছেন।” একাংশ বলছেন, সাম্প্রতিককালে মিহির গোস্বামীর সঙ্গে দুই মন্ত্রী দেখা করতে গেলেও তার দেখা পাননি। উল্টে তার বাড়ি থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, মিহিরবাবু কোথায় আছেন, তা কেউ জানেন না। এমনকি তাকে ফোনেও পাওয়া যাচ্ছে না।

একদিন আগে তিনি বিজেপি সাংসদের সঙ্গে দেখা করলেও, দলের কারও সাথে কেন দেখা করছেন না, তা নিয়ে বড় প্রশ্ন তৈরি হয়েছিল। আর এই পরিস্থিতিতে মিহির গোস্বামী দলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করতেই কার্যত অন্তরালে রয়েছেন বলে মনে করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু এমত পরিস্থিতিতে সেই জল্পনায় জল ঢালার চেষ্টা করে ড্যামেজ কন্ট্রোল করার চেষ্টা করলেন কোচবিহার জেলা তৃণমূল সভাপতি পার্থপ্রতিম রায় বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিধানসভা নির্বাচনের আগে মিহির গোস্বামী যদি বিরোধী শিবিরে যোগ দেন, তাহলে তা তৃনমূলের কাছে বড়সড় চাপের কারণ হয়ে দাঁড়াবে। ইতিমধ্যেই বিজেপির তরফ থেকে অনেক নেতৃত্ব মিহির গোস্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করেছেন বলে খবর। আর এমত পরিস্থিতিতে দলের কোনো কর্মসূচিতে যোগ দেওয়া তো দূরের কথা, কোনো নেতার ডাকেও সাক্ষাৎ করতে দেখা যাচ্ছে না এই হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ককে। স্বাভাবিকভাবেই মিহির গোস্বামীকে নিয়ে ক্রমশ চিন্তা বাড়তে শুরু করেছিল ঘাসফুল শিবিরের।

এমত পরিস্থিতিতে পার্থপ্রতিম রায় এই মন্তব্য করে বুঝিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেনড় মিহির বাবু তৃণমূলে আছে, তৃণমূলেই থাকবেন। অর্থাৎ বিধানসভা নির্বাচনের আগে মিহিরবাবুকে নিয়ে দলের একাংশ চিন্তায় পড়লেও, সকলকে আশা দেওয়ার চেষ্টা করলেন জেলা তৃণমূল সভাপতি। কিন্তু পার্থপ্রতিম রায় শুধুমাত্র ড্যামেজ কন্ট্রোল এবং ভয়ভীতি দূর করতে গিয়েই একথা বলেছেন বলে দাবি করছেন সমালোচক মহল। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সত্যি সত্যিই মিহির গোস্বামী তৃণমূলে থাকেন, নাকি অন্য কোনো শিবিরে পা বাড়ান, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!