এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > বিজেপিতেই ‘লুকিয়ে’ ছিলেন ‘ধান্দাবাজ’ নেতারা? ‘ফাঁস’ করে দিলেন সায়ন্তন বসু! জেনে নিন বিস্তারে

বিজেপিতেই ‘লুকিয়ে’ ছিলেন ‘ধান্দাবাজ’ নেতারা? ‘ফাঁস’ করে দিলেন সায়ন্তন বসু! জেনে নিন বিস্তারে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একুশের বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, ততই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় তৃণমূল বিজেপির রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব আরো প্রবল আকার নিচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ইতিমধ্যেই বিজেপি, তৃণমূল যে যার নিজের ঘর গোছাতে শুরু করেছে বিধানসভা নির্বাচনের নিরিখে। তবে ঘর গোছানোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলছে দুই শিবিরের ভাঙন রাজনীতি। তবে লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে যেমন ভাঙনের রাজনীতিতে তৃণমূল পিছিয়ে ছিল, বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে দেখা যাচ্ছে গেরুয়া শিবির বেশ কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে।

বর্তমানে কয়েকদিন ধরেই দেখা যাচ্ছে বিজেপি শিবির থেকে হেভিওয়েট নেতারা এসে যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলে। আর এর ফলে গেরুয়া শিবিরের সাংগঠনিক দুর্বলতা বারবার প্রকাশ্যে এসে পড়ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। কিন্তু দলবদল নিয়ে এবার মুখ খুললেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সম্প্রতি তিনি মালদা শহরের পুরাটুলি বাঁধরোড এলাকার বিজেপি জেলা কার্যালয়ে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন।

এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উত্তর মালদহের সাংসদ খগেন মুর্মু, বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদার, বিজেপির মালদহ জেলা সভাপতি গোবিন্দ মন্ডল ও প্রমুখরা। সাংবাদিক বৈঠকে সায়ন্তন বসু পরিষ্কার জানিয়ে দেন, বিজেপিতে থাকতে গেলে রাস্তায় নেমে লড়াই করতে হবে। ঠাণ্ডা ঘরে বসে কোন রাজনীতি করেনা বিজেপি। আর তাই তৃণমূল থেকে এসে আবার তৃণমূলের ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছে হুমায়ুন কবীর এবং বিপ্লব মিত্রদের মতো নেতারা।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিন সায়ন্তন বসু সরাসরি দলবদলকারী নেতাদের বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় মন্তব্য করেন। তবে সায়ন্তন বসু বিপ্লব মিত্র বা হুমায়ুন কবীরদের বিরুদ্ধে কাজ না করার অভিযোগ এনে এঁকোটি কড়া বার্তা দিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদের বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় মন্তব্য করলেও মুকুল রায়কে নিয়ে যখন তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, তখন তিনি যথেষ্ট সাবধানী মন্তব্য করেছেন মুকুল রায় সম্পর্কে। বিজেপিতে যোগদানের পর মুকুল রায়কে রাস্তায় নেমে আন্দোলনে কেন দেখা যায়নি এই প্রশ্ন তোলেন যখন সাংবাদিকরা, তখন সায়ন্তন বসু মুকুল রায়কে সাপোর্ট করে বলেন, উত্তরবঙ্গের লোকসভা নির্বাচনে মুকুল রায় দলকে যেভাবে জায়গা করে দিয়েছেন তারপরে তাঁর সম্পর্কে আর কিছু বলার প্রয়োজন পড়েনা।

অন্যদিকে এদিন তৃণমূলের বিরুদ্ধেও আক্রমণ শানিয়েছেন সায়ন্তন বসু। সম্প্রতি রাজ্য সরকারের বনদপ্তরে কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি হয়। আর তাই নিয়ে সায়ন্তন বসু কটাক্ষ করে বলেন নির্বাচনের আগে তৃণমূল শিবির টাকা তোলার জন্য এই ফাঁদ তৈরি করেছে। বলাই বাহুল্য সায়ন্তন বসু এদিন রীতিমতো কড়া ভাষায় দলবদল থেকে শুরু করে তৃণমূল শিবির- প্রত্যেকের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ উদগীরণ করেছেন। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, একুশের বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে লড়াইতে টক্কর দিতে প্রস্তুত এই মুহূর্তে তৃণমূল ও বিজেপি। আর সেই লড়াই যে বাংলার রাজনৈতিক মহলে তুমুল আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে এই মুহূর্তে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!