এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি পদে নতুন মুখ, এবার নতুন সেনাপতি

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি পদে নতুন মুখ, এবার নতুন সেনাপতি



দলের কার্যনির্বাহী সভাপতির পদ থেকে একেবারে সর্বভারতীয় সভাপতি পদে এসে বসলেন বিজেপির জগত প্রকাশ নাড্ডা ওরফে জে পি নাড্ডা। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি পদে প্রায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসন গ্রহণ করলেন জে পি নাড্ডা। সূত্রের খবর, তিনি একাই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। বিজেপি প্রধানের পদে দীর্ঘদিন ধরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহের পছন্দ হিসেবে দেখা গেছে তাঁকে। সূত্রের খবর, জে পি নাড্ডার রাজনৈতিক জীবনের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা, ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু করে আরএসএসের সান্নিধ্য এবং তার রাজনৈতিক ভাবমূর্তির কারণেই তাকে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি পদে নিযুক্ত করা হলো।

এদিন বিজেপি সভাপতি হওয়ার পর নবনিযুক্ত সভাপতি কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে বললেন, বিজেপি পরিবারতন্ত্র মানে না। আর সে কারণেই অন্যান্য রাজনৈতিক দলের থেকে বিজেপি রীতিমতন আলাদা। এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও কংগ্রেসকে আক্রমণ করে বলেছেন, ‘পূর্বসুরীদের মতো নাড্ডাও বিজেপির একজন সাধারণ কর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। আজ তিনি দলের সর্বভারতীয় সভাপতি। এটা একমাত্র বিজেপিতেই হয়। একমাত্র বিজেপিতেই দেশপ্রেমের উপর ভিত্তি করে কর্মীদের উন্নতি হয়।’

কংগ্রেসের বিরুদ্ধাচরণ করতে এদিন বিজেপি বেছে নিয়েছে পরিবারতন্ত্রের অভিযোগকে। যদিও বিজেপির এই অভিযোগকে একেবারেই যে উড়িয়ে দেওয়া যায়, তা নয়। কারণ দেশের মানুষ দেখেছে গত দু’দশক ধরে কংগ্রেসের সভাপতি পদে গান্ধী পরিবারের সদস্যরা ছাড়া আর কেউ আসেননি। যদিও কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে কংগ্রেসের শীর্ষ পদে সব সময় এসেছেন গান্ধী পরিবারের সদস্যরা। শুধুমাত্র জনপ্রিয়তার কারণেই তাঁরা আসন গ্রহণ করেছেন, পরিবারতন্ত্রের কারণে নয়। অন্যদিকে, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা এদিন বলেন, ‘আমার মতো একজন ছোটখাটো কর্মী, যাঁর কোনও রাজনৈতিক অতীত নেই, যে হিমাচলের একটি প্রান্তিক এলাকা থেকে উঠে এসেছে। সে আজ বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। আমার মতো কাউকে এই দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে, এটাই বিজেপির বিশেষত্ব। এর এটা একমাত্র বিজেপিতেই সম্ভব।’

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অবশ্য বিরোধীদল কংগ্রেসকে আক্রমণ করতে সিএএ তত্ত্বের অবতারণা করেছেন। তিনি এদিন অভিযোগ জানিয়েছেন, কংগ্রেস সম্পূর্ণ মিথ্যা ছড়াচ্ছে সিএএ নিয়ে। অন্যদিকে, বিজেপির দলীয় সূত্রে খবর জে পি নাড্ডা নবনির্বাচিত সভাপতি হওয়ার হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং বিজেপি শাসিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং উপ মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে একটি দলীয় বৈঠক করেছেন। এই বৈঠকের মূল বিষয় ছিল, আগামী দিনে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের পক্ষে কিভাবে প্রচার চালানো হবে এবং আগামী দিনের বিধানসভা নির্বাচনগুলি নিয়ে দলীয় রণকৌশল ঠিক করতে এদিন বিজেপির নতুন সভাপতি আলোচনা করেছেন।

সামনেই আসছে দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন। আর এই নির্বাচনের আগে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি পরিবর্তন এ ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা নিয়ে আসতে পারে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি হয়ে জে পি নাড্ডার কাছে প্রথম চ্যালেঞ্জ হলো দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন। আর তারপরেই বিহারের বিধানসভা নির্বাচন। নরেন্দ্র মোদী অমিত শাহের সঙ্গে রীতিমতো তাঁকে তাল মিলিয়ে কাজ করতে হবে বলে দাবি করছে রাজনৈতিক মহলের। আপাতত সামনের বিধানসভা নির্বাচনগুলিকে সামনে রেখে বিজেপি কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করে, সেদিকে লক্ষ্য রাখবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞগণ।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!