এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপির স্বতঃস্ফূর্ত “ডিজিটাল” সেনার সামনেই কি খড়কুটোর মত উড়ে গেল ঘাসফুল শিবির? বাড়ছে জল্পনা

বিজেপির স্বতঃস্ফূর্ত “ডিজিটাল” সেনার সামনেই কি খড়কুটোর মত উড়ে গেল ঘাসফুল শিবির? বাড়ছে জল্পনা



বিভিন্ন সময়ে বিজেপির সাইবার সেল অত্যন্ত শক্তিশালী বলে স্বীকার করে নিয়ে তার বিরুদ্ধে নিজেদের সাইবার সাইটকে শক্তিশালী করার দিকে জোর দিতে দেখা গিয়েছিল তৃণমূলকে। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির সেই সোশাল সাইটই তৃণমূলকে অনেকটা ভরাডুবির মুখে এগিয়ে দিল বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা।

বস্তুত, এবারে তৃনমূল 22 টি এবং বিজেপি 18 টি আসন পেয়েছে। আর বাংলায় বিজেপির এই প্রবল উত্থানের পেছনে যেমন দলীয় নেতাদের পরিশ্রম রয়েছে, ঠিক তেমনই সোশ্যাল সাইটে দিনরাত এক করে খাটা সৈনিকদের অনবদ্য ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।

বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, তৃণমূলের অনেক নেতা ফেসবুক খুললেও সেই গোটা বিষয়টি নিয়ে তারা অনেকেই অবহিত নন। আর সেদিক থেকে বিজেপির কর্মীরা অনেকটাই এগিয়ে। গত 2014 সালের লোকসভা নির্বাচনে সোশ্যাল সাইটের প্রচারই কেন্দ্রে মোদি সরকারকে ক্ষমতায় এনেছিল। কিন্তু এবার বাংলায় খুব একটা ভালো ফল করতে পারেনি বিজেপি। কিন্তু এবার দিনরাত এক করে সোশ্যাল সাইটে গেরুয়া সৈনিকরা বিজেপির ঝুলিতে 18 টি আসন তুলে দিতে সক্ষম হয়েছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, বঙ্গ বিজেপির আইটি সেলের হয়ে কাজ করেছেন, রতন ধালি, সুজিত কুল, দেবাসিস বিশ্বাস, রাহুল মৃধা এবং কমলেশ। যারা প্রতি মুহূর্তে রাজ্যের তরতাজা ইস্যুগুলোকে সাধারণ মানুষের কাছে উপস্থাপিত করে জয় শ্রীরাম ধ্বনিকে আরও জোরালো করেছে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেল, সুশাসন সংকল্প বিজেপি বিকল্প এই গ্রুপে 2 লক্ষ 85 হাজার, নরেন্দ্র মোদী সেনা গ্রুপে 74 হাজার, আরএসএস গ্রুপে 21 হাজার, হিন্দু সংগঠনে 1 লক্ষ 85 হাজার, শক্তিশালী বিজেপি শক্তি ভারতে 26 হাজার এবং বিজেপি ওয়েস্ট বেঙ্গলে 10 হাজার সদস্য রয়েছে। আর গেরুয়া শিবিরের আইটি সেলের এই ব্যাপক সদস্য সংখ্যাই সাধারণ মানুষের কাছে আরও বেশি করে বিজেপির কথা পৌঁছে দিয়েছে বলে মত পর্যবেক্ষকদের।

তাই সেদিক থেকে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল সোশ্যাল সাইটের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছোতে বিজেপির কাছে গো-হারা হেরে বসে আছে বলে দাবি পদ্ম শিবিরের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!