এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > বিজেপির শৃঙ্খলা নিয়ে বড় প্রশ্ন তুলে দিলেন অভিষেক, চাপে গেরুয়া শিবির!

বিজেপির শৃঙ্খলা নিয়ে বড় প্রশ্ন তুলে দিলেন অভিষেক, চাপে গেরুয়া শিবির!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে বারবার তৃণমূল কংগ্রেসকে আঞ্চলিক দল বলে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জর্জরিত, নানা উপাধি দিয়ে কটাক্ষ করতে দেখা যেত ভারতীয় জনতা পার্টিকে। কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর বিজেপির শৃঙ্খলা যেন ক্রমগত প্রশ্নের মুখে পড়ে গিয়েছে। তৃণমূল থেকে যারা বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন, তারা এখন আবার তৃণমূলে ফিরতে চেয়ে আবেদন করতে শুরু করেছেন।

অনেকে আবার প্রকাশ্যে এমন কিছু মন্তব্য করছেন, যা বিজেপির কাছে যথেষ্ট অস্বস্তিকর। আর এই পরিস্থিতিতে বাড়তি হাতিয়ার পেয়ে গিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই সর্বভারতীয় স্তরে দলকে বিস্তার করতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর দায়িত্ব পাওয়ার সাথে সাথেই এবার বিজেপির অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

বলা বাহুল্য, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে প্রবীর ঘোষাল, ইতিমধ্যেই বেশ কিছু বিজেপি নেতা বিস্ফোরক মন্তব্য করছেন। যার ফলে তারা দলবদল করতে পারেন বলে জল্পনা তৈরি হয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হয়ে তাদের শৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কমান্ড।

এদিন এই প্রসঙ্গে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “যে রাজনৈতিক দল দশটা নেতাকে এক ছাতার তলায় রাখতে পারে না, তাদের হাতে দেশের 130 কোটি মানুষের ভবিষ্যৎ তুলে দেওয়া কি উচিত!” অর্থাৎ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝিয়ে দিতে চাইলেন, বিজেপি নিজেদের সর্বভারতীয় দল বলে যতই প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করুক না কেন, তারা বাংলার সংগঠন রক্ষা করার জন্য নিজেদের লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেনি। পাশাপাশি বর্তমানে তাদের দলের নেতারা বিস্ফোরক হতে শুরু করেছেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর সেই বিষয়টিকে হাতিয়ার করেই এবার বিজেপির সংগঠন নিয়ে প্রশ্ন তুলে তারা কিভাবে দেশ পরিচালনা করবে, তা নিয়ে গেরুয়া শিবিরকে তুলোধোনা করলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। যা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। পর্যবেক্ষকদের মতে, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক দক্ষতা এবং গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে বারবার প্রশ্ন তুলে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।

এমনকি বিধানসভা নির্বাচনের আগে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যেই তৃণমূলের একাধিক নেতা বিজেপিতে যোগদান করেছে বলে দাবি করা হয়েছিল। তবে ফলাফল প্রকাশে প্রমাণ হয়ে গিয়েছে, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাংগঠনিক দক্ষতা অনেকটাই মজবুত হয়ে গিয়েছে এবং তার সূক্ষ্ম পরিকল্পনা মোতাবেক তৃতীয়বার যে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস রাজ্যের ক্ষমতা দখল করেছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আর এই পরিস্থিতিতে সামনের লোকসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে এখন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে রেখে সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে দলকে বিস্তার লাভ করাতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর বর্তমানে যখন বিজেপির একাধিক নেতা বেসুরে হতে শুরু করেছেন, তখন বিজেপির অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে গেরুয়া শিবির কিভাবে দেশ চালাবে, তা নিয়ে বড় প্রশ্ন তুলে দিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। অর্থাৎ সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পাওয়ার সাথে সাথেই এবার বিজেপি রাজ্য নেতা থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রশ্নবানে বিদ্ধ করে শোরগোল তুলে দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!