এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > বিজেপির প্রচারে আপত্তিকর ছবি, অভিযোগ দায়ের শিশুরক্ষা কমিশনে! তীব্র অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবিরে

বিজেপির প্রচারে আপত্তিকর ছবি, অভিযোগ দায়ের শিশুরক্ষা কমিশনে! তীব্র অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবিরে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এখন মাঠে ময়দানে নেমে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিতে তৎপর ভারতীয় জনতা পার্টি। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে লকডাউন চলায় এবং সামাজিক গুরুত্ব পালন করার কথা বলায় সেভাবে ময়দানে নামতে পারছে না কোনো রাজনৈতিক দল।

তবে এই কারণে যে তাদের প্রচার প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে, তা তো হতে পারে না। কেননা তৃণমূলের মত প্রবল প্রতাপশালী শাসকবর্গকে ক্ষমতা থেকে সরাতে গেলে বিজেপিকে লাগাতার প্রচারের মধ্যে থাকতে হবে‌। আর তাই ভার্চুয়াল সভার মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে এখন মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে বঙ্গ বিজেপি।

তৃণমূলের বিরুদ্ধে তারা দুর্নীতি সহ একাধিক অভিযোগ তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় তার ছবি পোস্ট করে শাসকদলের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিচ্ছে। কিন্তু এবার এই প্রচার তাদেরকে ব্যাপক বিড়ম্বনায় ফেলল। তৃণমূল বিরোধিতা এবং নিজেদের প্রচারে ধর্ষনের একাধিক আপত্তিকর দৃশ্য তুলে ধরায় কার্যত অস্বস্তিতে পড়ল ভারতীয় জনতা পার্টি। সূত্রের খবর, সোশ্যাল মিডিয়ায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়ে কিছু ধর্ষণের দৃশ্য রাখা হয়েছে। আর তাতেই আপত্তি জানিয়ে রাজ্য পুলিশের অভিযোগ দায়ের করেছে রাজ্য শিশু অধিকার রক্ষা কমিশন।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর এই গোটা ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই অস্বস্তিতে পড়েছে গেরুয়া শিবির। একাংশ বলছেন, বিজেপির পক্ষ থেকে ভার্চুয়াল সভার মাধ্যমে তৃণমূলের বিরোধীতা করার রাস্তাকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তা করতে গিয়ে যেভাবে বিজেপি তাদের প্রচারের মধ্যে ধর্ষণের কিছু আপত্তিকর দৃশ্য তুলে ধরেছে, তাতে তাদের বিরুদ্ধে রাজ্য শিশু সুরক্ষা কমিশনের এই অভিযোগ তাদেরকে আরও অস্বস্তিতে ফেলবে।

পাশাপাশি তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই ঘটনাকে তুলে ধরে গেরুয়া শিবিরকে চাপে ফেলা হতে পারে বলেও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। যদিও বা এই গোটা ঘটনাকে গুরুত্ব দিতে নারাজ বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। তিনি বলেন, “কমিশন কি বলল, তাতে আমাদের কিছু আসে যায় না। আমরা ওই ছবি মুক্তি দেব।” একটা সায়ন্তনবাবু নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে স্পষ্ট করে দিলেন যে, কোনোরকম পদক্ষেপের কাছে তারা কিছু হটবেন না।

কিন্তু এভাবে তৃণমূল বিরোধিতার রাস্তা বেছে নিয়ে সেখানে আপত্তিকর ছবি তুলে ধরা কি সত্যিই যুক্তিসঙ্গত? তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিশেষজ্ঞরা। এখন গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!