এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপির নজরে বাংলার ভোট! বঙ্গবাসীর মন জয়ে বড়সড় পদক্ষেপ খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর

বিজেপির নজরে বাংলার ভোট! বঙ্গবাসীর মন জয়ে বড়সড় পদক্ষেপ খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সামনেই 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে বাংলাকে যে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব যথেষ্ট গুরুত্ব দিতে শুরু করেছে, তা ইতিমধ্যেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে পাঁচ বিজেপি নেতাকে বাংলায় দায়িত্ব দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। পাশাপাশি কিছুদিন আগেই বাংলার দূর্গাপুজোর ভার্চুয়াল উদ্বোধন করে সেখানে বাংলায় বক্তব্য রাখতে দেখা গেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। আর এবার বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের আগে ঋষি অরবিন্দের কথা তুলতে গিয়ে “মন কি বাতে” দুলাইন বাংলা কবিতা পড়ে শোনালেন প্রধানমন্ত্রী।

সূত্রের খবর, রবিবার নিজের ভাষণের শেষের দিকে ঋষি অরবিন্দের প্রসঙ্গ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মূলত আগামী 5 ডিসেম্বর শ্রীঅরবিন্দের মৃত্যুবার্ষিকী। এদিন সেই সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “অরবিন্দের যত বেশি লেখাপড়া যাবে, ততই আমাদের অন্তর্দৃষ্টিৎখুলে যাবে। তরুণ প্রজন্ম যত বেশি অরবিন্দ সম্পর্কে জানবে, ততই তারা কিছু শিখতে পারবে। নিজেদের জ্ঞানের ভান্ডার ততো বাড়বে। অরবিন্দের দেখানো পথেই নতুন রাস্তা খুঁজে পাওয়া যাবে।”

আর এরপরেই ১৯ শতকের কবি মনোমোহন বসু একটি কবিতা থেকে দুটি লাইন বাংলায় পড়ে শোনান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “বাংলায় বিখ্যাত এক কবিতা আছে – “ছুঁই সূতো পর্যন্ত আসে তুঙ্গ হতে, দীয়াশলাই কাটি, তাও আসে পোতে, প্রদীপটি জ্বালিতে, খেতে, শুতে, যেতে কিছুতেই লোক নয় স্বাধীন।” পাশাপাশি এর অর্থ কি, তাও ব্যাখ্যা করে দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “আমরাও বলছি সব জায়গা থেকে নতুন কিছু শিখব। কিন্তু এরপর আমার দেশের জন্য যা ভালো, তাকে সমর্থন করব এবং তাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করব। এই হল আত্মনির্ভর ভারতের ভোকাল ফর লোকালের মন্ত্র।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সামনেই 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে বাঙালির আবেগকে উস্কে দিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এখন ঋষি অরবিন্দের মৃত্যুবার্ষিকীকে স্মরণ করে দুলাইন কবিতা বাংলায় পাঠ করে শোনালেন। অর্থাৎ তৃণমূলের পক্ষ থেকে যখন বিজেপিকে বাংলা বিদ্বেষী দল বলে দাবি করা হচ্ছে, তখন প্রধানমন্ত্রী এই ধরনের বাংলার কবিতা পাঠ করে বাঙালি ভাবকে উসকে দেওয়ার চেষ্টা করলেন বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারবার করে দাবি করেন, বিজেপি বাংলার সংস্কৃতি জানে না। পাশাপাশি তৃণমূলের পক্ষ থেকেও বিজেপির বিরুদ্ধে বারবার এই অভিযোগ করা হয়। কিন্তু বিজেপির পক্ষ থেকে সেই সমস্ত অভিযোগকে কার্যত নস্যাৎ করে দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শারদোৎসব উদ্বোধন করা থেকে শুরু করে বাংলার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলতে শুরু করেছেন। আর এবার ঋষি অরবিন্দের মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ করে যেভাবে বাংলা কবিতা পাঠ করলেন প্রধানমন্ত্রী, তাতে বাংলার বিজেপি নেতা কর্মীরা অনেকটাই উজ্জীবিত।

তারা দাবি করছেন, এখন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বাংলার দিকে এভাবে নজর দিতে শুরু করেছে। আর প্রধানমন্ত্রী যে বাংলাকেও যথেষ্ট গুরুত্ব দেন, তা এই ঘটনা থেকেই পরিষ্কার বলে দাবি করছেন গেরুয়া শিবিরের কর্মী সমর্থকরা। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সমস্ত কিছুই আগামী বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। আর তাই প্রধানমন্ত্রীর এদিনের বক্তব্যে বাংলা কবিতা উঠে এল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!