এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > মতুয়া ভোট ফিরে পেতে এবার বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরকে তৃণমূলে যোগ দেওয়াতে চান জ্যোতিপ্রিয়?

মতুয়া ভোট ফিরে পেতে এবার বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরকে তৃণমূলে যোগ দেওয়াতে চান জ্যোতিপ্রিয়?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ কিছুদিন আগে বনগাঁর যে মাঠে জনসভা করে গিয়েছেন, আগামী ৯ই ডিসেম্বর সেখানেই জনসভা করার কথা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সেখানে গোপালনগরের হরিপদ ইন্সটিটিউশনের ওই মাঠে ৯ই ডিসেম্বর মুখ্যমন্ত্রীর সেই জনসভার প্রস্তুতি আগে থেকেই শুরু করা হয়েছে। বস্তুত, লোকসভা ভোটের পর এই নিয়ে দ্বিতীয়বার বনগাঁ মহকুমায় আসার কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

এর আগে ফেব্রুয়ারি মাসে বনগাঁ স্টেডিয়ামে সভা করতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। তবে বিধানসভা ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রীর এই সভা রাজনৈতিকভাবে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাঁদের কথায়, সাম্প্রতিক সময়ে বনগাঁ মহকুমায় বিজেপির শক্তি বৃদ্ধি পেয়েছে। সেখানে পঞ্চায়েত ভোটে বিজেপি ৪টিতে জয়লাভ করে।

সেখানে লোকসভা ভোটের পর তৃণমূলের বনগাঁ উত্তর কেন্দ্রের বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি যোগদান করেছিলেন বলে জানা যায়। এছাড়া বনগাঁ পুরসভার আর কয়েকজন কাউন্সিলরকেও তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি শিবিরে যোগ দিতে দেখা গিয়েছিল।লোকসভার অন্তর্গত মহকুমার চারটি বিধানসভা কেন্দ্রেই তৃণমূল প্রার্থী মমতা ঠাকুর পিছিয়ে ছিলেন।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে, লোকসভা নির্বাচনে রাজনৈতিক ভাবে তৃণমূলের খাসতালুক হিসাবে পরিচিত বনগাঁয় লোকসভায় লক্ষাধিক ভোটে জয়ী হয় বিজেপি প্রার্থী শান্তনু ঠাকুর। সেইসঙ্গে এর কারণ হিসেবে সামনে আসে মতুয়া ভক্তদের একটা বড় অংশের বিজেপি সমর্থন। আর সেখানেই শান্তনু ঠাকুরকে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার ডাক দিতে শোনা গেছে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে।

মুখ্যমন্ত্রীর সভা করার আগে বৃহস্পতিবার উত্তর ২৪ পরগনার বাগদার হেলেঞ্চায় তৃণমূলের তরফে একটি সভার আয়োজন করা হয়েছিল বলে জানা গেছে। আর সেই সভায় উপস্থিত থাকতে দেখা যায় জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে। আর সেখানে যেমন তিনি বাগদার নেতৃত্বকে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব সরিয়ে একসঙ্গে কাজ করার বার্তা দিয়েছেন, তেমনই শান্তনু ঠাকুরকেও একই সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানাতে দেখা গেছে তাঁকে।

এদিন সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মতুয়া বাড়ির উন্নয়নের কাজ করেছেন। তাই সেখানে তাঁরা শান্তনু ঠাকুরকে আহ্বান জানাচ্ছেন একই প্লাটফর্মে এসে কাজ করবার জন্য। তাঁর কথায়, বিজেপিতে থেকে মতুয়াদের উন্নয়ন করা সম্ভব না। বিজেপি ধান্দাবাজের দল। তাই শান্তনু ঠাকুরকে তৃণমূলে ডেকেছেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে, এক প্ল্যাটফর্মে কাজ করার পরামর্শ কি দলে যোগের আহ্বান? উত্তরে প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “বিজেপি ছেড়ে এলে এক প্লাটফর্মে কাজ করতে আমাদের কোনও অসুবিধা নেই।” সেইসঙ্গে একুশে বনগাঁ মহকুমার সবকটি বিধানসভা বিজেপির হাত থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার কথাও বলতে শোনা গেছে তাঁকে। অন্যদিকে দলের কার্যপ্রণালী নিয়েও এদিন আলোচনা করেন তিনি।

এইদিন তিনি দলের কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, “বাগদায় যত তৃণমূল কর্মী আছেন, গোটা উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় নেই। সবাইকে এক হয়ে কাজ করতে হবে, কোনও কচকচানি চলবে না। কেন পারব না? বামফ্রন্টের আমলে সারা জেলার মধ্যে বাগদা-বনগাঁ-গাইঘাটা আমাদের দখলে থাকত।”

সেইসঙ্গে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যদি দলের দূরত্ব বেড়ে যায়, তাহলে পুরনো কর্মীদের কাছে গিয়ে ক্ষমা চেয়ে নেওয়ার পরামর্শও দিতে দেখা গেছে তাঁকে। তাঁর কথায়, “নতুনদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে হবে।” শুধু তাই নয়, আগামী দিনে মাসে একবার করে বাগদায় আসার কথাও বলেন তিনি।

সেইসঙ্গে সমস্ত অঞ্চলের সঙ্গে আলাদা আলাদা বৈঠক করার কথাও উল্লেখ করতে দেখা গেছে তাঁকে। সেইসঙ্গে বাগদা, বনগাঁ উত্তর, বনগাঁ দক্ষিণ ও গাইঘাটাতে বিধানসভা উন্নয়নের মাধ্যমে ২০২১ সালে নিজেদের ক্ষমতা কায়েম করার সঙ্গে সঙ্গে দুয়ারে দুয়ারে কর্মসূচি ছাড়াও বাগদায় কাস্ট সাৰ্টিফিকেটের জন্যে বিশেষ ক্যাম্প করা হবে বলেও এদিন ঘোষণা করেন তিনি।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!