এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > মুখ্যমন্ত্রী বাংলাকে ইসলামিক স্টেটে পরিণত করে বাংলাদেশে মেশাতে চাইছেন, বিস্ফোরক মন্ত্রী!

মুখ্যমন্ত্রী বাংলাকে ইসলামিক স্টেটে পরিণত করে বাংলাদেশে মেশাতে চাইছেন, বিস্ফোরক মন্ত্রী!



করোনা মোকাবিলা নিয়ে রাজ্য সরকারের ওপর ক্রমশ চাপ বাড়াচ্ছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। ভারতীয় জনতা পার্টির পক্ষ থেকে ক্রমাগত বাংলায় করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধি নিয়ে রাজ্য সরকারের ভূমিকায় প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। আর এবার করোনা ভয়াবহতার মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে বড়সড় প্রশ্ন তুলে দিলেন রায়গঞ্জের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী।

যেখানে রাজ্যকে ইসলামিক স্টেটে পরিণত করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলাদেশের সঙ্গে মিশিয়ে দিতে চাইছেন বলে বিস্ফোরক অভিযোগ তুললেন তিনি। বস্তুত, বারবার বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে যে, রাজ্য সরকার একটি বিশেষ সম্প্রদায়কে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে। এক্ষেত্রে লকডাউনের সময় সেই বিশেষ সম্প্রদায় তা অমান্য করলেও, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না বলেও অভিযোগ ছিল বিজেপি নেতা নেত্রীদের।

আর এবার করোনা মোকাবিলা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন বিজেপির দেবশ্রী চৌধুরী। সূত্রের খবর, এদিন এক সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনীতি পশ্চিমবঙ্গের উপর ডিনামাইট বসিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশের সঙ্গে‌ উনি রাজ্যকে মিশিয়ে দিতে চাইছেন। এখানে রোহিঙ্গা, বাংলাদেশী এবং জেহাদিদের গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। কাশ্মীর এবং মায়ানমার থেকে আসা দেশ বিরোধীদের এই রাজ্যে আশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যকে পশ্চিম বাংলাদেশ করতে চাইছেন।”


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর এরপরই করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকার একেবারেই ব্যর্থ বলে অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। তিনি বলেন, “রাজ্য সরকার করোনা মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়েছে। করোনা সংক্রমণ নিয়ে আসল তথ্য লুকিয়ে যাচ্ছে সরকার।” এদিকে বর্তমানে একদিকে যেমন করোনা পরিস্থিতি সঙ্কটজনক আকার নিয়েছে, ঠিক তেমনই বিভিন্ন জায়গায় গোষ্ঠী সংঘর্ষ ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। সম্প্রতি হুগলির তেলিনিপাড়ার গোষ্ঠী সংঘর্ষ রীতিমতো অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছে রাজ্য প্রশাসনকে।

যার পরেই এই গোষ্ঠী সংঘর্ষের পেছনে নাম না করে বিজেপিকে দায়ী করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন সেই কথা তুলে ধরেও রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সরব হন রায়গঞ্জের বিজেপি সাংসদ। তিনি বলেন, “বিজেপি রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে 2011 সালে 11 শতাংশ আর 2016 সালে 12 শতাংশ ভোট পেয়েছিল। এই ভোট পেয়ে কি আদৌ হিংসা তৈরি করা যায়!”

তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা মোকাবিলায় প্রশ্ন তুলে দিয়ে যেভাবে বাংলাকে ইসলামিক স্টেটে পরিণত করে মুখ্যমন্ত্রী বাংলাদেশকে এই রাজ্যে মিশিয়ে দিতে চাইছেন বলে অভিযোগ করলেন বিজেপির দেবশ্রী চৌধুরী, তা নিঃসন্দেহে বিতর্ক বাড়িয়ে দিতে পারে। এখন গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে মোড় নেয়, তার দিকেই নজর থাকবে রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!