এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার দিলীপ, উঠলো একাধিক প্রশ্ন, চরম অবস্তিতে রাজ্য বিজেপি

আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার দিলীপ, উঠলো একাধিক প্রশ্ন, চরম অবস্তিতে রাজ্য বিজেপি



তৃণমূলের বর্তমান ২ নং অভিষেক ব্যানার্জীর গড়ে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হল স্থানীয় বিজেপি নেতা দিলীপ জাটুয়াকে। জানা যাচ্ছে দিলীপবাবু আগে তৃণমূল করতেন এরপর কয়েকমাস আগে মুকুল রায়ের হাত ধরে দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। আর তার পরেই তাঁর বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। চাকরি পাইয়ে দেবার নাম করে তিনি টাকা নিয়েছিলেন চারজনের থেকে কিন্তু প্রতিশ্রুতি দিলেও চাকরি কাউকে দেননি বলেই অভিযোগ করে ওই চারজন সোমবার দিলীপবাবুর বিরুদ্ধে থানায় যান।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর এর পরেই সোমবার রাতে মন্দিরবাজার থানার পুলিশ ওই চারজনের অভিযোগের ভিত্তিতে দিলীপবাবুকে তাঁর বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে । এই নিয়ে তাঁকে ডায়মন্ডহারাবার মহকুমা আদালতে তোলা হলে ৮ দিনের পুলিশ হেপাজতের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। যদিও এই নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন দিলীপবাবু। উল্টে তিনি দাবি করেছেন যে এই সব তৃণমূলের চক্রান্ত। আমি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছি। দল পরিবর্তনের জন্য় আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। জানা যাচ্ছে দলীয় নেতার গ্রেপ্তারে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে জেলা বিজেপি কর্মীদের মধ্যেও। বিজেপি কর্মীদের দাবি তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসার জন্যই এই প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে শাসকদল। অন্যদিকে মুকুলানুগামীদের বক্তব্য মুকুল রায়কে ফাঁসাতে পারছেন না তাই তাঁর থেকে মানুষকে দূরে সরিয়ে রাখতেই এইভাবে ফাঁসানো হচ্ছে। এই নিয়ে এখনো পর্যন্ত মুকুল রায়ের তরফ থেকে কোনো পতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। পতিক্রিয়া মেলেনি তৃণমূলের কোনো নেতার কাছ থেকেও।
তবে রাজনৈতিকমহলের মতে যদি দিলীপবাবুর অভিযোগ সত্যি হয় তবে চরম অবস্তিতে পড়লো রাজ্য বিজেপি। কেননা বিজেপিতে গেলেই যদি গ্রেপ্তার হতে হয় তবে সেই ভয়ে কজন নেতা কর্মী তৃণমূল ছেড়ে সাহস দেখিয়ে বিজেপিতে আসবেন তা নিয়ে কিন্তু প্রশ্ন উঠে গেলো। শুধু তাই নয় প্রশ্ন উঠলো তবে রাজ্য বিজেপি নিজেদের নেতা কর্মীদের সুরক্ষা দিতে পারছে কই? আর যদি নেতারাই সুরক্ষিত না হন তবে তাঁরা সাধারণ মানুষকে কতটা সুরক্ষা দেবেন ?

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!