এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > পঞ্চায়েতের আগেই হুগলির শিল্পাঞ্চলের নির্বাচনে বড় জয় গেরুয়া শিবিরের

পঞ্চায়েতের আগেই হুগলির শিল্পাঞ্চলের নির্বাচনে বড় জয় গেরুয়া শিবিরের



দরজায় কড়া নাড়ছে পঞ্চায়েত নির্বাচন, আর তার আগেই হুগলির শিল্পাঞ্চলে বড় জয় ছিনিয়ে নিল গেরুয়া শিবির। হুগলির ডালহৌসি জুটমিলে পিএফ ট্রাস্টিবোর্ডের নির্বাচনে ৫ টি আসনের মধ্যে ৪ টিতেই বিশাল ব্যবধানে জয়যুক্ত হলেন গেরুয়া শিবিরের সদস্যরা। অন্য আসনটিতে বিজেপি প্রার্থী মাত্র ৬ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এই নির্বচনে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার শ্রমিক ভোটার নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। জয়ী ৪ বিজেপি প্রার্থীই এক থেকে দেড় হাজার ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রার্থীদের পরাজিত করেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এই প্রসঙ্গে স্থানীয় বিজেপি নেতা সুশান্ত মজুমদারের সঙ্গে প্রিয়বন্ধু বাংলার তরফে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিজের প্রতিক্রিয়ায় জানান, এই নির্বাচনে ৭ টি রাজনৈতিক দল ও মালিকপক্ষ এক হয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছিল। কিন্তু বর্তমানে বিজেপি রাজ্য সহ সভানেত্রী রাজকুমারী কেশরীর নেতৃত্বে এখানে বিভিন্ন জুটমিলে আমাদের শক্তিশালী সংগঠন গড়ে উঠছে ক্রমশ। এই জুটমিল থেকে অনৈতিকভাবে কিছুদিন আগে ২৯৪ জন কর্মীকে একসাথে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়, আর তারপরেই দিদি (রাজকুমারী কেশরী) এসে সংগঠনের দায়িত্ত্ব নেন। আর তারপর দিদির নেতৃত্ত্বে এই অনৈতিক বহিষ্কারের বিরুদ্ধে আমরা, বিজেপি কর্মীরা, আন্দোলনে নামি। মালিকপক্ষ তাঁদের ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হন। শুধু তাই নয়, এখানে শ্রমিক স্বার্থের কথা ভেবে একমাত্র লড়াই করছে বিজেপি – আর নির্বাচনে এই বিশাল জয় তারই প্রতিফলন মাত্র। বিরোধী সবদল এক হয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নির্বাচনকে যথেষ্টভাবে প্রভাবিত করার চেষ্টা করে আমাদের এক প্রার্থীকে মাত্র ৬ ভোটে হারিয়ে দিলেও, বাকি প্রার্থীদের এই বিশাল জয়ের ফলেই প্রমাণিত বর্তমানে শ্রমিক স্বার্থ রক্ষা করতে একমাত্র বিজেপিই পারে। আর তাই দিনে দিনে আমাদের সংগঠন আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে, আগামী নির্বাচনগুলোতে তার প্রতিফলন আরো ব্যাপকভাবে লক্ষ্য করা যাবে। আগামী ১০ তারিখ এই উপলক্ষে দিদির নেতৃত্ত্বে আমরা এলাকায় বড় করে বিজয় মিছিল বার করার পরিকল্পনায় আছি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!