এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিধায়কের রহস্য মৃত্যুর তদন্তে নেমে পুলিশ পেল একাধিক অসঙ্গতি! উঠছে বহু প্রশ্ন, বাড়ছে জল্পনা

বিধায়কের রহস্য মৃত্যুর তদন্তে নেমে পুলিশ পেল একাধিক অসঙ্গতি! উঠছে বহু প্রশ্ন, বাড়ছে জল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্টসম্প্রতি গলায় ফাঁস লাগিয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটে হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের। হঠাৎ করেই বিধায়কের এই মৃত্যু ব্যাপক প্রশ্ন তুলে দেয় বঙ্গ রাজনীতিতে। যেহেতু তিনি একজন জনপ্রতিনিধি এবং যেভাবে ফাঁস লাগিয়ে মৃত্যু হয়েছে, তাতে প্রথম থেকেই এই ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছে তারা।

ঘটনার প্রতিবাদে আজ গোটা উত্তরবঙ্গ জুড়ে 12 ঘণ্টার বনধ ডেকেছে গেরুয়া শিবির। তবে একজন বিধায়ক কেন এইভাবে গলায় ফাঁস লাগিয়ে মৃত্যু বরণ করলেন, এখন তাকে কেন্দ্র করে উঠছে বেশ কিছু প্রশ্ন। জানা গেছে, বিজেপি বিধায়কের স্ত্রী চাদিমাদেবী অভিযোগ করেছেন যে, তার স্বামীকে কেউ বা কারা ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন।

আর এখানেই পুলিশ তদন্ত করে খুঁজতে চাইছে যে, ঠিক কে বা কারা বিজেপি বিধায়ককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন। তবে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, অন্তত রাত বারোটা পর্যন্ত নিজের বাড়িতেই ছিলেন হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক। আর তার পরেই তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেই সময়টা ঠিক কখন?


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিকে বিজেপি বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনায় বেশ কিছু অসঙ্গতি ও লক্ষ্য করা যাচ্ছে দেখা গেছে বিধায়কের বাড়ি থেকে যেখানে তার মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে তার দূরত্ব এক কিলোমিটারের বেশি আর এই মৃত দেহ যেখানে পাওয়া গিয়েছে সেই রাস্তা খানাখন্দে ভরা জল কাদা রয়েছে খুব একটা বাস নেই মানুষের। তদন্তকারীদের একাংশের প্রশ্ন, বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায় এবং তার স্ত্রী আলাদা আলাদা ঘরে রাত্রি যাপন করেন।

সেক্ষেত্রে যদি নিজের প্রান শেষ করে দিতে হয়, তাহলে তো ঘরে একাই এই কাজ হাসিল করতে পারতেন। কিন্তু ফাঁকা ঘরে আত্মহত্যা না করে কেন দেড় কিলোমিটার হেঁটে বাজারে গিয়ে বন্ধ দোকানের সামনে আত্মহত্যা করলেন বিজেপি বিধায়ক! তা নিয়ে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। একাংশের মতে, এই থেকেই পরিষ্কার যে, বিজেপি বিধায়ক আত্মহত্যা করেননি। তাকে খুন করা হয়েছে। আর তাই বাড়ি থেকে দেড় কিলোমিটার দূরে নিয়ে গিয়ে তার গলায় ফাঁস লাগিয়ে দিয়েছে কেউ বা কারা।

এদিন তদন্তকারীরা বিধায়কের যেখানে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা ঘটনা ঘটেছে সেই এলাকা পরিদর্শনে যান। আশ্চর্যজনক ভাবে দেখা গেছে, যদি বিধায়ক সেই এলাকা দিয়েই হেঁটে হেঁটে যান, তাহলে নিশ্চিত তার পরনের কাপড়ে কিছুটা হলেও কাদা লাগবে। কারণ রাস্তায় খানাখন্দ এবং কাদায় ভর্তি ছিল। অথচ বিধায়ক গলায় ফাঁস দিলেন, তার পরনের কাপড়ে বিন্দুমাত্র নোংরা লাগতে দেখা যায়নি। তাহলে কি হেঁটে হেঁটে সেই এলাকায় যাননি বিজেপি বিধায়ক? কেউ বা কারা তাকে কোনো যানের সাহায্যে সেখানে নিয়ে গিয়েছে?

তদন্তকারীদের সামনে এই সমস্ত প্রশ্ন এখন ঘোরালো হয়ে উঠতে শুরু করেছে। তদন্তকারীদের বক্তব্য, এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর পাওয়া গেলেই বিধায়কের মৃত্যুর রহস্য সঠিক কিনারা করা যাবে। কেননা তিনি যদি নিজে আত্মহত্যা করতেন, তাহলে এইরকম অসঙ্গতি মূলক প্রশ্ন সামনে আসত না। কিন্তু এখন এই সমস্ত প্রশ্ন এবং ঘটনা পরম্পরা ব্যাপক গুঞ্জন সৃষ্টি করেছে। সব মিলিয়ে হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের মৃত্যু আত্মহত্যা না খুন, তদন্তকারীদের তদন্তে কি উঠে আসে, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!