এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > তৃণমূলকে আটকাতে কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএমের বৃহত্তর মহাজোট

তৃণমূলকে আটকাতে কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএমের বৃহত্তর মহাজোট



তৃণমূল কংগ্রেসকে আটকাতে ও শাসকদলের কাজের প্রতিবাদ করতে এবার কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএমের বৃহত্তর মহাজোট হল বাংলার বুকে। অবিশ্বাস্য এই ঘটনা ঘটেছে মুর্শিদাবাদের বেলডাঙ্গায়। স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, বেলডাঙার স্বার্থে যৌথ আন্দোলনে নামার অঙ্গীকারে গতকাল বেলডাঙা পুরসভার কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএম এই তিন দলের কাউন্সিলাররা অনিয়মের অভিযোগ তুলে পুরসভার বোর্ড মিটিং থেকে ওয়াক আউট করেন। আর যার পরিপ্রেক্ষিতে বেলডাঙা পুরসভার চেয়ারম্যান তৃণমূলের ভরত ঝাওর বলেন, মানুষ সঙ্গে না থাকায় ওরা পুরসভার বিরুদ্ধে নীতিহীন জোট গড়েছে।
প্রসঙ্গত, বেলডাঙা পুরসভার ১৪টি আসনের মধ্যে সিপিএমের দখলে একটি, কংগ্রেসের দখলে দুটি এবং বিজেপির দখলে তিনটি আসন রয়েছে, বাকি আটটি আসন তৃণমূলের দখলে আছে। বিরোধীদের অভিযোগ, কিছুদিন আগেই নিয়ম বহির্ভূতভাবে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে কাউন্সিলারদের ল্যাপটপ উপহার দিয়েছে পুরসভা কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও, বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ বা অনুষ্ঠান করার পর সেগুলির বিল বোর্ড মিটিংয়ে পাস করানো হয়। মিটিংয়ে পুজো ও ঈদে বিভিন্ন ক্লাবকে অনুদান দেওয়া, কার্তিক পুজোর খরচের বিল পাস করানো হয়। এমনকী টেন্ডার কমিটিতে আলোচনা না করেই নির্মাণ কাজের টেন্ডার করা হচ্ছে। আবার বিনা টেন্ডারেই কিছু কাজ করা হচ্ছে। নিয়মিত বোর্ড মিটিং করা হচ্ছে না। মিটিংয়ের রেজুলেশনের নথিও কাউন্সিলারদের নিয়মিত দেওয়া হচ্ছে না। আর এসব নিয়ে এদিন সভায় প্রশ্ন করা হলে চেয়ারম্যান কোনও উত্তর দেন না। বিরোধীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার পাশাপাশি চেয়ারম্যান পুরসভায় একনায়েকতন্ত্র কায়েম করেছেন। আর তাই বেলডাঙার বাসিন্দাদের স্বার্থে যৌথ আন্দোলনে নেমেছেন বলে বিরোধীদের একযোগে দাবি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!