এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিজেপিকে আর ছেড়ে কথা বলব না, মাছের মতো পাঁকে পুঁতে ফেলব ওদের: জ্যোতিপ্রিয়

বিজেপিকে আর ছেড়ে কথা বলব না, মাছের মতো পাঁকে পুঁতে ফেলব ওদের: জ্যোতিপ্রিয়



গত ১৪ ই মে রাজ্যের বহু প্রতীক্ষিত পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন বহু বিচ্ছিন্ন হিংসা এবং সন্ত্রাসের ঘটনার সাক্ষী রাজ্য বাসী। এরমধ্যে রয়েছে খুন হানাহানি, শারীরিক নিগ্রহ , হেনস্তা প্রভৃতি। ঐ দিন উত্তর ২৪ পরগণা জেলার  হাবড়া ১ পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী বিপ্লব সরকার দলের নির্বাচনী কার্যালয়ের বাইরে বসেছিলেন। হঠাৎ সেখানে লাঠসোঁটা নিয়ে উপস্থিত হয় কিছু লোক। কিছু বুঝে ওঠার আগেই শাসক দলের প্রার্থীকে আগত আততায়ীরা নির্বিচারে শারীরিক নিগ্রহ করতে থাকে। অল্প সময়ের মধ্যেই অচৈতন্য হয়ে পড়েন তিনি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এরপরে  কলকাতার একটি নার্সিংহোমে তাঁকে ভর্তি করা হয়। জানা যায় কোমায় চলে গেছিলেন বিপ্লব সরকার। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। গত শুক্রবার সকালে মারা যান ৪১ বছর বয়েসী তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী বিপ্লব সরকার। ১৭ ই মে পঞ্চায়েত নির্বাচনে ফলাফল প্রকাশিত হলে জানা যায় বিপ্লব সরকার ৭৩৭টি ভোটে জয়ী হয়েছেন। এই ঘটনায় অভিক্সুক্ত সন্দেহে পুলিশ এ যাবত  ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। বাকিরা শীঘ্রই পুলিশের জালে জড়াবে এমন বিশ্বাস পুলিশ কর্তাদের। উল্লেখ্য এই বছর পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন হাবড়ায় গণপ্রহারে শাসক দলের ৩ জন কর্মী সমর্থকের প্রাণ নাশ হয়। এই হিংসার ঘটনা প্রেক্ষিতে উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বললেন, ”এ বার থেকে বিজেপিকে আর ছেড়ে কথা বলব না আমরা। রাস্তায় রাস্তায়, পাড়ায় পাড়ায় লড়াই হবে। মাছের মতো পাঁকে পুঁতে ফেলব ওদের।” সেদিনের ঘটনায় বিজেপি দলের কোনো ভূমিকা রয়েছে একথা স্বভাবতই অস্বীকার করলেন বিজেপি দলের জেলা সহ সভাপতি বিপ্লব হালদার। তিনি বললেন, ”জনরোষেই এই মৃত্যু। আমরা খুনের রাজনীতি করি না।”

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!