এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বিজেপিকে সমর্থন করায় দলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে বড়সড় সিদ্ধান্ত বামফ্রন্টের – রাজনৈতিক জল্পনা তুঙ্গে

বিজেপিকে সমর্থন করায় দলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে বড়সড় সিদ্ধান্ত বামফ্রন্টের – রাজনৈতিক জল্পনা তুঙ্গে



উত্তর দিনাজপুরের বিজেপি বেশ কয়েকটি এলাকায় কংগ্রেস এবং সিপিএম এর সমর্থন নিয়ে পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন করল। এ বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই হইচই পড়ে গিয়েছে বামফ্রন্ট শিবিরে। ক্ষুব্ধ সিপিএমের জেলা নেতৃত্ব। যেসব দলীয় সদস্যরা পঞ্চায়েতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার লোভে  বিজেপি, তৃণমূল বা কংগ্রেসের সমর্থন নিয়েছে শাস্তিস্বরূপ তাঁদের অবিলম্বে দল থেকে ছাটাই করা হবে। যারা পার্টি সদস্য নয় অথচ সিপিএম এর দলীয় প্রতীক ব্যবহার করে জয়ী হয়েছেন তাঁদের প্রতীক প্রত্যাহার করা হবে। এমনটাই জানিয়ে দিলেন সিপিএমের জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল। ওদিকে জেলা কংগ্রেসের অন্যতম নেতা পবিত্র চন্দ জানিয়েছেন,স্থানীয় ভাবে তৃণমূল কংগ্রেসকে রুখতেই অনেক দলীয় কর্মীরা বিজেপিকে সমর্থন করেছে। তবে এটা কখনোই দলীয় সিদ্ধান্ত নয়।

তবে এভাবে বিরোধীদের সমর্থন করাকে বাম কংগ্রেসের ‘দ্বিচারিতা’ বলেই ব্যাখ্যা করলেন জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অমল আচার্য। তিনি আরো জানালেন,এরাই আবার অন্য জায়গায় বিজেপির বিরোধীতা করছেন। আবার পঞ্চায়েত স্তরে এক জোট হয়ে লড়ছে। এদিকে দাবীতে বিজেপি জানিয়েছে, শাসকদলের সন্ত্রাসকে রুখতেই একজোট হয়ে শক্তিবৃদ্ধি করা হচ্ছে। মানুষ বুঝেছে তৃণমূল কংগ্রেসকে দমানো দরকার, তাই তারা সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে এগিয়ে আসছে এমনটাই জানালেন বিজেপির জেলা সভাপতি শঙ্কর চক্রবর্তী। এ ব্যাপারে রাজনৈতিক নেতা হিসাবে তিনি বাধা তৈরি করতে পারেন না বলেও বক্তব্যে জানালেন এদিন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

উল্লেখ্য, গত ২৩ আগস্ট জেলায় গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রথম পর্বের বোর্ড গঠন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ইতিমধ্যে, ৭৮টি গ্রাম পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন হয়েছে। তার মধ্যে ১৮টিতে বিজেপি’র প্রধান ও ১৭টিতে উপপ্রধান নির্বাচিত হয়ে গিয়েছেন। এর আগে উত্তর দিনাজপুর জেলার কোনও গ্রাম পঞ্চায়েতই বিজেপির দখলে ছিল না। এবারের নির্বাচনে বিজেপি ১০টি গ্রাম পঞ্চায়েতে নিরঙ্কুশভাবে সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করেছিল। আরও বেশ কিছু গ্রাম পঞ্চায়েতে ভালো ফল আছে বিজেপির। এবার তাঁদের লক্ষ্য ছিল ২০টি গ্রাম পঞ্চায়েতে তাদের বোর্ড গঠন করার । সেই মতো তারা প্রথম থেকেই কংগ্রেস, সিপিএম, নির্দলদের নিজেদের দিকে টানার চেষ্টা করে গিয়েছে বিজেপি। আর এজন্যেই যত সমস্যা দানা বাধছে। দিকে দিকে সরব হচ্ছেন বিরোধীরা। এ নিয়ে উত্তেজনার পারদ চড়ছে ক্রমশ উওর দিনাজপুরের রাজনৈতিকমহলে।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!