এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > বিজেপি এজেন্টরা বসছেন তৃণমূলের শীর্ষপদে? বিস্ফোরক তথ্য ফাঁস করতেই তৃণমূল নেতাকে নিয়ে শোরগোল

বিজেপি এজেন্টরা বসছেন তৃণমূলের শীর্ষপদে? বিস্ফোরক তথ্য ফাঁস করতেই তৃণমূল নেতাকে নিয়ে শোরগোল



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গেরুয়া শিবিরকে নিয়ে শাসক দলের বিতর্ক চলছেই। কিন্তু দলত্যাগ করে শাসক শিবিরে আসলেই মিলছে উচ্চপদ। তৃণমূলের অন্দরেই এবার এমনই বোমা ফাটালেন জেলাস্তরের হেভিওয়েট নেতা। আর তাই নিয়েই রাজ্যজুড়ে শুরু হয়ে গেছে ব্যাপক আলোড়ন। রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল শিবির বর্তমানে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে জেরবার হয়ে চলেছে। অবস্থা সামাল দিতে তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আসরে নামলেও পরিস্থিতির যে বিশেষ কিছুই বদল হয়নি তা স্পষ্ট হয়ে উঠছে দিনদিন একের পর এক দলীয় নেতাকর্মীর পদত্যাগ কিংবা দলত্যাগের খবরে। আর এবার গারুলিয়া অঞ্চলের শাসক দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব কপালে ভাঁজ ফেলতে চলেছে তৃণমূল সুপ্রীমোর বলে মনে করা হচ্ছে।

জেলায় জেলায় তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলের খবর এই মুহুর্তে সংবাদ শিরোনামে। এবার উত্তর চব্বিশ পরগণার গারুলিয়া থেকে প্রকাশ্য গোষ্ঠী কোন্দলের জেরে দলীয় পদ থেকে ইস্তফা দিলেন গারুলিয়া শহরের ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্ট। জানা যাচ্ছে, গারুলিয়া অঞ্চলের দীর্ঘদিনের তৃণমূল নেতা পঙ্কজ দাস। এদিন তিনি ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দলের প্রতি। তাঁর অভিযোগ- বর্তমানে যারা দলের শীর্ষ অবস্থান করছেন গারুলিয়া অঞ্চলে, তাঁরাই একসময় বিজেপির এজেন্ট হিসেবে কাজ করেছে। আর এই কথাই রাজনৈতিক মহলে প্রবল জল্পনার জন্ম দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে পঙ্কজ দাস জানিয়েছেন, তিনি বহুবার দলকে বলা সত্বেও তাঁর কথা কেউ কানে নিচ্ছেনা। এতে করে দলের ক্ষতি হচ্ছে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তাই তিনি ওয়ার্কিং প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে তিনি স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছেন, দলে তিনি থাকবেন এবং দলে থেকেই তিনি যাবতীয় প্রতিবাদ জানাবেন। ইতিমধ্যেই দলের শীর্ষ নেতাদের কাছে তিনি তাঁর ইস্তফাপত্র পাঠিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। অন্যদিকে গারুলিয়া পৌরসভার পুর প্রশাসক তথা গারুলিয়ার অন্যতম তৃণমূল নেতা সঞ্জয় সিং কিন্তু পংকজ দাসের এই অভিযোগ পুরোপুরি নস্যাৎ করেছেন। তাঁর মতে, পঙ্কজ দাস কেন পদত্যাগ করলেন সে প্রসঙ্গে কেউই কিছু জানেন না। কি কারনে তাঁর দলের উচ্চপদে আসীন নেতাদের ওপর অনাস্থা জন্মালো তার কোন কারণ এখনো পর্যন্ত পঙ্কজ দাস ব্যাখ্যা করেননি।

তবে গারুলিয়া শহরে তৃণমূল যে সুবিধাজনক জায়গায় রয়েছে সে কথা নিশ্চিত করেন এদিন সঞ্জয় সিং। অন্যদিকে পংকজ দাসের বিষয়ে যাবতীয় সিদ্ধান্ত দল নেবেন বলে তিনি জানান। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণে তৃণমূল এই মুহূর্তে ব্যাপক বিপর্যয়ের শামিল। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে এই বিপর্যয় মারাত্মক প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে। একেতো তৃণমূলের ভাঙন রোখা যাচ্ছেনা তার ওপর গারুলিয়া অঙলের তৃণমূল নেতা যা অভিযোগ করেছেন তা নিয়ে তৃণমূলের অন্দরেই শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য। তবে এর পেছনে দলবদলের ইঙ্গিতকেও ঝেড়ে ফেলা যাচ্ছেনা। আপাতত পরিস্থিতি সামলাতে দলীয় সুপ্রীমো কি ব্যবস্থা গ্রহণ করেন সেদিকেই লক্ষ্য ওয়াকিবহাল মহলের।

 

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!