এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিশ্ববাংলা ট্রেডমার্ক নিয়ে ধন্ধে রাজনৈতিক মহল থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ

বিশ্ববাংলা ট্রেডমার্ক নিয়ে ধন্ধে রাজনৈতিক মহল থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ



বিশ্ববাংলা ট্রেডমার্ক নিয়ে কে সত্যি বলছে, আর কে মিথ্যা বলছে তা নিয়ে ধন্দ্বে রাজনৈতিক মহল থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ। সত্য বলছে কে মোদী সরকারের ওয়েবসাইটের তথ্য না রাজ্য সরকারের দুই আমলা? ভারত সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রকের অধীনে যে কন্ট্রোলার জেনারেল অব পেটেন্টস, ডিজাইনস ও ট্রেড মার্কস রয়েছে তার ওয়েবসাইটের http://www.ipindia.nic.in/journal.htm-এই লিংকটিতে গেলে তার প্রমান মিলছে। ট্রেডমার্কস জার্নাল সিরিয়াল নং ২৭ এবং ১৭৯৬ নং জার্নাল পাবলিকেশন ডেট ০৮/০৫/২০১৭ এবং প্রাপ্তিযোগ্যতা ০৮/০৫/২০১৭ তে গিয়ে ক্লাস ৪১-৪২ পিডিএফ ডাউনলোড করলে, ৬৪৫ পৃষ্ঠার জার্নালের ৭৭ পৃষ্ঠায় গেলেই অভিষেক ব্যানার্জির নামে যে বিশ্ববাংলা ট্রেডমার্ক নথিভূক্ত রয়েছে, তার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। মুকুল রায় বিজেপির সমাবেশে যে অভিযোগ করেছিলেন তার প্রমান মিলছে এতে।তবে মুকুল রায়ের অভিযোগকে মিথ্যা প্রমান করতে স্বরাষ্ট্রসচিব অত্রি ভট্টাচার্য এবং ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প দফতরের প্রধান সচিব রাজীব সিনহা যে বিবৃতি দেন তার সারাংশ হলো ‘বিশ্ববাংলা’-র মালিক রাজ্য সরকার ,অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় নন। এই দুই আমলার বিরুদ্ধে পাল্টা চিঠি দিয়ে সাধারণ মানুষকে মিথ্যা তথ্য দেওয়ার অভিযোগ করেন মুকুল রায়।কিন্তু তাতেও ধোঁয়াশা কাটছে না। সর্বত্র একই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে যে কে সত্যি বলছে শাসকদল না মুকুল রায়? শাসকদল বা সরকার পক্ষ বলছে তারাই ঠিক বিরোধীরা বলছে তারা ঠিক তবে কে যে ঠিক তা সময়ই বলবে আর তার সদুত্তর পেতে তাকিয়ে থাকতে হবে আদালতের দিকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!