এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > বীরভূম সভাধিপতির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে উঠছে প্রশ্ন?

বীরভূম সভাধিপতির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে উঠছে প্রশ্ন?



সদ্য-সমাপ্ত হুল উৎসব সূচনা অনুষ্ঠানে অনেকে ডাক পেলেও ডাক পাননি বীরভূম জেলা পরিষদের সভাধিপতি বিকাশ রায় চৌধুরি। আমন্ত্রণপত্রে অবশ্য নাম ছিল না এলাকারই বিধায়ক অশোক চট্টোপাধ্যায়, পাশের বিধানসভা দুবরাজপুরের নরেশ বাউরি, কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়-এরও। কিন্তু তাঁদের নাম না থাকা নিয়ে জল্পনা থাকলেও বিকাশবাবুর নাম নিয়ে বীরভূমের রাজনীতিতে ক্রমশ চরছে পারদ। কেন ডাকা হলো না অনুষ্ঠানে এই নিয়ে পরিষ্কার করে কেউ মুখ না খুললেও বিধায়ক অশোক চট্টোপাধ্যায় বলেন, কোথাও একটা গন্ডগোল হয়েছে। তবে অভেদানন্দ থান্ডার যেহেতু আদিবাসী উন্নয়ন বিভাগ কমিটির সদস্য তাই তাঁর নাম রয়েছে। আমাদের বা সভাধিপতির নাম নেই কেন বলতে পারব না। যা নিয়ে আপাতত তীব্র জল্পনা বীরভূমের রাজনৈতিক মহলে। দলের অন্দরেই গুঞ্জন সভাধিপতিকে কি এড়িয়ে যাচ্ছে তৃণমূল? এই প্রশ্ন আরো বেশি করে উঠছে কেননা তিনি বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত রাজনৈতিক মহলে, আর বীরভূম জেলায় কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি তাঁর অনুমতি বিনা হওয়া কার্যত অসম্ভব। তাহলে কি অনুব্রতবাবুর সঙ্গে দূরত্ত্ব বাড়ছে বিকাশবাবুর? প্রশ্ন রাজনৈতিক মহলের।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এমনকি তৃণমূলের অন্দরমহলে কান পারলেও শোনা যাচ্ছে গুঞ্জন যে দলে তাঁকে ধীরে ধীরে ব্রাত্য করে দেওয়া হচ্ছে। প্রসঙ্গত, দিনকয়েক আগেই জেলা শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি পদ থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বিকাশ বাবুকে। বেশ কয়েকটি এলাকার পর্যবেক্ষক পদ থেকেও তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল আগেই। ফলে বিকাশবাবুর রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অনেকে। যদিও অনেকের মতে তাঁর কাজ নিয়ে নাকি খুশি ছিলেন না শীর্ষ নেতৃত্ব।অন্যদিকে তৃণমূলেরই একাংশের দাবি – এই ঘটনা আদতেই এমন কিছু নয়। নেহাতই সাংগঠনিক রদবদলের জন্যই তাঁকে পদ থেকে সরানো হয়েছে। কিন্তু একই সঙ্গে তাঁকে ঘিরে জল্পনা উঠেছে যে এবার কি তবে তাঁকে দল থেকেই সরানো হবে আর এটা তারই প্রস্তুতি? রাজনৈতিকমহলের প্রশ্নও উঠেছে তবে কি দল ছাড়লে তিনি বিজেপিতে যাবেন? যদিও তৃণমূলের দাবি একটা সামান্য ব্যাপার নিয়ে বড় বেশি জলঘোলা হচ্ছে। বিকাশবাবুর সাথে কারোর কোনো খারাপ সম্পৰ্ক নেই আর তাঁকে দল থেকে সাড়ানোও হচ্ছেনা, ফলে তিনিও কোথাও যাচ্ছেন না। তবে রাজনৈতিকমহল কিন্তু একটু সন্ধিহান। পাশাপাশি তাঁদের দাবি যদি সত্যিই কিছু ঘটে তবে বিজেপি কিন্তু এই সুযোগ হাতছাড়া করবে না, কেননা গেরুয়া শিবির কিন্তু ইতিমধ্যেই বীরভূম জেলায় পদ্ম ফোটানোর ব্যাপারে আশাবাদী। তবে যাঁকে নিয়ে এত কান্ড সেই বিকাশবাবু কিন্তু এখনো পর্যন্ত এই নিয়ে কোনো কথা বলেননি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!