এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > Big Breaking ভোরের আলো ফুটতেই মমতাকে আক্রমণ ধনকরের! ঘুম উড়ল সরকারের!

Big Breaking ভোরের আলো ফুটতেই মমতাকে আক্রমণ ধনকরের! ঘুম উড়ল সরকারের!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনা পরিস্থিতির মধ্যে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল রাজ্য বিধানসভার অধিবেশন। কিন্তু বৃহস্পতিবার থেকে রাজ্য বিধানসভার দুদিনের অধিবেশন শুরু হলেও সেখানে ঘটে যায় নজিরবিহীন ঘটনা। যেখানে সাংবিধানিক নিয়ম মেনে রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে অধিবেশন শুরু না হওয়ায় প্রশ্ন তুলতে শুরু করে বিরোধীরা। তবে এই ব্যাপারে বৃহস্পতিবার দিনভর রাজ্যপালের তরফ থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া আসেনি।

কিন্তু আজ শুক্রবার ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই এই ব্যাপারে টুইট করে রীতিমতো তৃণমূল সরকারের ঘুম উড়িয়ে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের সাংবিধানিক প্রধান জগদীপ ধনকর। যেখানে সংবিধানের বাইরে গিয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সরকারের বিরুদ্ধে কাজ করার অভিযোগ তুলতে দেখা গেল রাজ্যপালকে। স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনা তৃণমূল সরকারের বিড়ম্বনা যে অনেকটাই বাড়িয়ে দিল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সূত্রের খবর, শুক্রবার সকালে একটি টুইট করেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার। যেখানে তিনি লেখেন, “সংবিধানের 176 এর এ ধারা অনুযায়ী, বছরের প্রথম অধিবেশন শুরু হয় রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে। এর অন্যথা হয় না। অথচ পশ্চিমবঙ্গে এবার তা হচ্ছে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার কোনোভাবেই সংবিধানের নিয়ম এড়িয়ে যেতে পারে না।” প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আইনসভার যে কোনো অধিবেশনের সূচনা হয় সাংবিধানিক প্রধানের ভাষণ দিয়ে। সংসদের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি এবং রাজ্যগুলোর ক্ষেত্রে রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে শুরু হয় অধিবেশন। পশ্চিমবঙ্গেও এতদিন এই প্রক্রিয়া চলছিল।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু হঠাৎ করেই বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া অধিবেশনে কিছুটা ব্যতিক্রম দেখা যায়। যেখানে রাজ্যপালের ভাষণ ছাড়াই শুরু হয়ে যায় অধিবেশন। আর এরপরই প্রশ্ন তুলতে শুরু করে বিরোধীরা। আর এবার এই ব্যাপারে প্রশ্ন তুলে রীতিমত সরকারকে চাপে ফেলে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের সাংবিধানিক প্রধান।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গোটা ঘটনা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। এমনিতেই রাজ্যপাল বিভিন্ন বিষয়ে সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করান। কিন্তু যেভাবে সেই রাজ্যপাল সহ বিরোধীদের হাতে অস্ত্র তুলে দিল শাসক পক্ষ, তা শাসকদলের কাছে যথেষ্ট চাপের। কারণ সাংবিধানিক রীতিনীতি মেনে অধিবেশন শুরু করা উচিত ছিল। কিন্তু তা না করাতে প্রথমে বিরোধীদের প্রতিবাদ এবং তারপর রাজ্যপালের এইভাবে সোচ্চার হওয়া ঘাসফুল শিবিরকে ব্যাকফুটে ফেলে দেবে বলেই দাবি করছেন একাংশ।

শুধু তাই নয়, বিধানসভা নির্বাচনের মুখে রাজ্য বনাম রাজ্যপালের তিক্ততা এর মধ্যে দিয়ে আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশঙ্কা রয়েছে বিশেষজ্ঞদের। এখন বিধানসভায় রীতিনীতি ভেঙে রাজ্যপালের ভাষণ ছাড়াই অধিবেশন শুরু হয়ে যাওয়ায় রাজ্যপালের প্রতিবাদের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো বিবৃতি আসে কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!