এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > Big Breaking: স্বাস্থ্যসাথী বিষয়ে বিশেষ বড়সড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর, চমকে গেল গোটা রাজ্য!

Big Breaking: স্বাস্থ্যসাথী বিষয়ে বিশেষ বড়সড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর, চমকে গেল গোটা রাজ্য!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আজ হুগলির পুরশুড়ায় জনসভা করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই পুরশুড়ার জনসভা থেকে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড এর বিষয়ে এক গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী জানালেন যে, সকলকে স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড দেওয়া হবে। নির্বাচনের পরেও এই ব্যবস্থা থাকবে। কেউ যদি স্বাস্থ্যসাথীর স্মার্ট কার্ড না পান, তবে তাকে টেম্পোরারি কার্ড দেয়া হবে। তা দেখিয়েও তিনি বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা পাবেন। এই টেম্পোরারি কার্ড দেখিয়ে পরবর্তীতে তিনি স্বাস্থ্য স্মার্ট কার্ড পাবেন।

জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী জানালেন যে, সকলকেই স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড দেয়া হবে। কিন্তু এই স্মার্ট কার্ড তৈরি করতে গেলে যে মেশিন দরকার তা ১০ লক্ষের বেশি কার্ড তৈরি একসঙ্গে তৈরি করতে পারছে না। রাজ্যের সমস্ত মেশিন মিলিয়েও ১০ লক্ষের বেশি কার্ড একসঙ্গে তৈরি করতে পারছে না। অথচ আবেদন জমা পড়েছে কয়েক কোটি। এ কারণেই কিছুটা সময় লেগে যাচ্ছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

মুখ্যমন্ত্রী জানালেন যে, যারা স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড পেয়ে গেছেন, তাঁরা বিনামূল্যে পরিষেবা পাবেন। যারা কার্ড পাননি, তাদেরও চিন্তার কোন কারণ নেই। এই সময়ের মধ্যে যদি ভোটের ঘোষণা হয়ে যায়, তাতেও কোন সমস্যা নেই। তাদেরকে একটা টেম্পোরারি কার্ড দেয়া হবে। এই কার্ড দেখিয়ে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড এর সুবিধা পাওয়া যাবে। পরবর্তীতে এই কার্ড দেখিয়েই পাওয়া যাবে স্মার্ট কার্ড।

তাৎক্ষণিক সুবিধা দিতেই এই টেম্পোরারি কার্ড দেওয়া হবে। রেশন কার্ডের ক্ষেত্রে যেমন স্লিপ দেওয়া হয়, তেমনি এখানে দেয়া হবে টেম্পোরারি কার্ড। এর ফলে কার্ড না থাকলেও সুবিধা থেকে কেউ বঞ্চিত হবে না। মুখ্যমন্ত্রীর জানান যে, প্রতিটি পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা করে বিনামূল্যে চিকিত্সা দেয়া হবে। সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়ার পরেও ৫ লক্ষ টাকা করে ক্যাশলেস ট্রিটমেন্ট দেয়া হবে।

এরপরেই মুখ্যমন্ত্রী জানালেন যে, কেউ যদি স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড নিতে আপত্তি করে, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে থানায় অভিযোগ জানাতে। কার্ড এর পেছনে একটা নাম্বার দেওয়া আছে। সে নাম্বারে অভিযোগ জানালে তার বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। স্বাস্থ্য সাথী নিয়েও বিজেপি মিথ্যাচার করেছে বলে অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!