এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > Big Breaking নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও বহাল থাকছে বিধি-নিষেধ, করোনা আটকাতে নয়া নির্দেশিকা রাজ্যের!

Big Breaking নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও বহাল থাকছে বিধি-নিষেধ, করোনা আটকাতে নয়া নির্দেশিকা রাজ্যের!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –   15 জুন অর্থাৎ আজ সোমবার পর্যন্ত রাজ্যে বিধি-নিষেধ জারি করা হয়েছিল। করোনা ভাইরাস আটকানোর জন্য রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছিল। তবে 15 জুনের পর ধীরে ধীরে সেই বিধিনিষেধ তুলে দেওয়া হবে বলে আশা প্রকাশ করেছিলেন সকলে। কিন্তু আজ সাংবাদিক বৈঠক করে বিধি-নিষেধ যে বহাল থাকছে, তা জানিয়ে দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এতদিন পর্যন্ত যে সমস্ত ক্ষেত্রে কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল, বেশ কিছু ক্ষেত্র বিশেষে ছাড় দেওয়ার কথা ঘোষণা করল রাজ্য সরকার।

শপিং মল থেকে শুরু করে দোকান বাজার, ব্যাংক থেকে শুরু করে বিনোদন এবং পার্ক, এই সমস্ত কিছু খুলে দেওয়ার ব্যাপারে নির্দিষ্ট সময়সীমা জানিয়ে দেওয়া হল রাজ্যের পক্ষ থেকে। তবে 15 জুন বিধি-নিষেধ শেষ হলেও, আগামী পয়লা জুলাই পর্যন্ত নয়া বিধি-নিষেধ বহাল থাকবে বলে জানিয়ে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

অর্থ্যাৎ করোনা ভাইরাসকে আটকাতে 15 জুনের পর সম্পূর্ণরূপে বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হবে বলে একাংশ মনে করলেও, সেই রাস্তায় হাটল না রাজ্য সরকার। এক্ষেত্রে বেশ কিছু বিধিনিষেধ বহাল রেখে এবং বেশ কিছু ক্ষেত্র খুলে দিয়ে সাধারণ মানুষকে কিছুটা স্বস্তি দেওয়া হল। তবে বজায় থাকল বিধি-নিষেধের বিজ্ঞপ্তি।

সূত্রের খবর, আজ নবান্নে এই ব্যাপারে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেখানেই করোনা ভাইরাস আটকাতে আগামী পয়লা জুলাই পর্যন্ত এই বিধিনিষেধ বহাল থাকবে বলে জানিয়েছেন তিনি। পরবর্তীতে মুখ্যসচিবকে কি কি ক্ষেত্র খুলে দেওয়া হবে এবং কি কি ব্যাপারে এই বিধি-নিষেধ শিথিল করা হবে, তার নির্দেশিকা পড়ে শোনানোর নির্দেশ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা গেছে, আগামী 16 জুন থেকে 25% কর্মী নিয়ে কাজ করতে পারবে বেসরকারি এবং সরকারি দপ্তর। শুধু তাই নয়, সকাল 7 টা থেকে বেলা 11 টা পর্যন্ত দোকান বাজার খোলা রাখার কথা বলা হয়েছে। এছাড়াও খুচরো দোকান বেলা 11 টা থেকে সন্ধ্যা 6 টা পর্যন্ত খুলে রাখার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। পাশাপাশি এতদিন শপিং মল ও হোটেল খোলার ব্যাপারে রাজ্যের পক্ষ থেকে কড়া অবস্থান নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এবার সেক্ষেত্রেও কিছুটা ছাড় দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, দুপুর 12 টা থেকে রাত 8 টা পর্যন্ত হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে সেক্ষেত্রে 50 শতাংশ গ্রাহক নিয়ে এই সমস্ত হোটেল, রেস্তোরা চলতে পারে। অন্যদিকে সকাল 11 টা থেকে সন্ধ্যা 6 টা পর্যন্ত 30 শতাংশ গ্রাহক নিয়ে শপিংমল খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। একইভাবে সাধারণ মানুষ যাতে গৃহবন্দি হয়ে কোনোভাবেই মানসিক সমস্যার মুখে না পড়েন, তার জন্য পার্ক খোলা রাখার ব্যাপারে সবুজসংকেত দেওয়া হয়েছে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তবে টিকাকরণ হয়ে গেলে তার প্রমান পত্র নিয়ে পার্কে যেতে পারবেন সাধারন মানুষ। না হলে পার্কে ঢোকার ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ জারি করা হয়েছে। এদিকে 15 জুন বিধি-নিষেধ সম্পন্ন হয়ে যাওয়ার পর পরিবহন ব্যবস্থা ধীরে ধীরে সচল হবে বলে আশা করা হয়েছিল। কিন্তু সেক্ষেত্রে বাস বা লোকাল ট্রেন পরিষেবা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে জরুরি পরিষেবার ভিত্তিতে অটো চালানোর ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। একইভাবে রাত্রি নটা থেকে যে নাইট কার্ফু লাগু করা হয়েছিল, সেটাও আগামী পয়লা জুলাই পর্যন্ত বহাল থাকবে বলে ঘোষণা করেছেন রাজ্যের মুখ্যসচিব।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সবদিক থেকে সামঞ্জস্য রেখে রাজ্য সরকার এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। কেননা প্রথম ঢেউয়ে দীর্ঘদিন লকডাউন করা হয়েছিল। যার ফলে সাধারণ মানুষের রুজি-রুটি ব্যাপক সমস্যার মুখে পড়ে গিয়েছিল। আবার দ্বিতীয় দফায় যেভাবে করোনা ভাইরাস বাড়তে শুরু করেছিল, তাতে বিধি-নিষেধ জারি করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না রাজ্য সরকারের কাছে।

কিন্তু এখন ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা এবং বিধি-নিষেধ জারি করার কারণে অনেকটাই নীচের দিকে নামতে শুরু করেছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা। তাই আগামী পয়লা জুলাই পর্যন্ত এই বিধিনিষেধ রেখে বেশ কিছু ক্ষেত্রে কড়াকড়ি শিথিল করে সাধারণ মানুষ যাতে সামাজিক দূরত্ব পালন করেন, তার জন্য নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অর্থাৎ তারতম্য বজায় রেখে এবং করোনা ভাইরাসকে দূরীভূত করে সাধারণ মানুষ যাতে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন, তার জন্যই রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!