এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > Big Breaking, বীরভূমের তৃণমূল সাংসদকে বিশেষভাবে পুরস্কৃত করল শাসক দল

Big Breaking, বীরভূমের তৃণমূল সাংসদকে বিশেষভাবে পুরস্কৃত করল শাসক দল



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গত বৃহস্পতিবার দলের একাংশের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়। এরপর গতকাল শনিবার তাঁর দিল্লি যাবার কথা শোনা যাচ্ছিল। দিল্লি গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেন, এমন একটা জল্পনাও বাড়ছিল। এরপরই তাঁকে দলে ধরে রাখার ব্যাপারে তৎপর হয়ে ওঠে দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। গত শুক্রবার সৌগত রায়, কুণাল ঘোষ তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। আবার, সেদিন সন্ধাবেলায় তাঁর সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

সেদিন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর বৈঠকের পর দলের প্রতি ক্ষোভ দূর হয় বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ের। এরপর তিনি জানান যে, তৃণমূলের সঙ্গেই আছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যই তিনি তৃণমূলে আছেন। এ লড়াই সকলের লড়াই। সকলকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করতে হবে। তৃণমূল সাংসদের এই আচমকা ভোলবদলে তাঁর ওপর যথেষ্ট তৃপ্ত দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। এ কারণেই দলের শীর্ষ নেতাদের পক্ষ থেকে তাঁকে বিশেষ পুরস্কার দেয়া হচ্ছে। এবার তৃণমূলের রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতি করা হচ্ছে শতাব্দী রায়কে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তৃণমূলের রাজ্য কমিটিতে স্থান পেতে চলেছেন সাংসদ শতাব্দী রায়। তাঁর সঙ্গে সঙ্গে তৃণমূলের সহ-সভাপতি হচ্ছেন মোয়াজ্জেম হোসেন ও শঙ্কর চক্রবর্তী। তাঁর এভাবে দলের প্রতি ক্ষোভ ও বিদ্রোহে যবনিকা টানার কারণেই তাকে এভাবে পুরস্কৃত করা হলো, বলে দাবি রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। দলের এই পদপ্রাপ্তির পর যথেষ্ট উচ্ছসিত বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়।

তৃণমূলের রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতির পদ প্রাপ্তির পর সাংসদ শতাব্দী রায় জানালেন যে, এই দায়িত্ব পেয়ে তিনি অত্যন্ত খুশি। তিনি মনে করছেন তাঁর দায়িত্ব অনেক বেড়ে গেল। তিনি সবসময় কাজ করেছেন, আগামী দিনে আরও ভালোভাবে তিনি কাজ করতে চান। তাঁকে এই দায়িত্ব দেবার কারণে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তিনি জানালেন, কারোর কোন সুবিধা-অসুবিধা হচ্ছে, তা জানালে দল সেটা শোনে, এটাই তার প্রমান। হয়তো আগে তিনি সঠিক জায়গায় যেতে পারেননি বলেই সমস্যার সমাধান তখন হয়নি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!