এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিধানসভা ভোটের প্রাক্কালে চিঠি পাঠিয়ে শাসকদলের প্রভাবশালীদের ইডির দপ্তরে হাজিরার নির্দেশ

বিধানসভা ভোটের প্রাক্কালে চিঠি পাঠিয়ে শাসকদলের প্রভাবশালীদের ইডির দপ্তরে হাজিরার নির্দেশ



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গত কয়েক বছরে পশ্চিমবঙ্গে বেশ কিছবেশ কিছু আর্থিক কেলেঙ্কারি ঘটতে দেখা যায়। যার মধ্যে আছে সারোদা, নারোদা, রোজভ্যালি ইত্যাদি। পরবর্তীকালে এই তছরুপ গুলোর বিষয়ে উপযুক্ত তদন্তের জন্য কেন্দ্রের তরফ থেকে রাজ্যে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই ও এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটকে নিযুক্ত করা হয়। সে থেকেই মামলাগুলোর তদন্ত শুরু হয়েছে।

ইতিপূর্বে শাসক দলের একাধিক নেতা কর্মীদের তদন্দের কারণে সিবিআই ও ইডির দপ্তরে হাজিরা দিতে দেখা গেছে। এই পরিস্থিতিতে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের প্রাকলগ্নে নিজেদের কর্মতৎপরতা বিশেষভাবে বাড়াতে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটকে।

প্রসঙ্গত, রাজ্য সরকারের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী সহ রাজ্যের শাসকদলের চারজন নেতা-নেত্রীকে দস্তুরভাবে নোটিশ পাঠিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার এর মধ্যে তাঁদের ব্যাঙ্কর বিভিন্ন স্টেটমেন্ট সহ আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র নিজেদের দপ্তরে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিল কেন্দ্রীয় সংস্তা ইডি।এদিকে আবার বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের ঘনিষ্ঠ আধিকারিক এসএমএইচ মির্জাকেও ইডির দপ্তরে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের শাসকদলের তরফ থেকে অভিযোগ উঠেছে, বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে রাজ্যের শাসকদলের নেতাদেরকে দুর্বল করে দিতেই কেন্দ্রীয় এই সংস্থাকে ব্যবহার করেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, গত জুন মাসে নারদ কান্ডে অভিযুক্ত তৃণমূল কংগ্রেসের সমস্ত নেতা-মন্ত্রীদের চিঠি দিয়ে তাঁদের ব্যাঙ্কর বিভিন্ন স্টেটমেন্ট সহ আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র নিজেদের দপ্তরে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল কেন্দ্রীয় সংস্তা ইডি। বিজেপি নেতা মুকুল রায়কেও অনুরূপ নির্দেশ পাঠানো হয়েছিল। তবে নারদ কাণ্ডে অভিযুক্তদের এই তালিকা থেকে আশ্চর্যজনক ভাবে বাদ রাখা হয়েছে কলকাতার প্রাক্তন প্রাক্তন মেয়র ও অধুনা বিজেপির নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়কে।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই এর মধ্যে নারদ কাণ্ডে অভিযুক্ত নেতা-মন্ত্রীদের সম্পত্তির ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সমস্ত রকম তথ্য জমা দেওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। অভিযোগ উঠেছে ইডির নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও তারা তা সম্পূর্ণ রূপে উপেক্ষা করেছেন। কিছুদিন আগেই বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে একটি চিঠি পাঠিয়েছে ইডি। সেখানে তাঁর আর্থিক সম্পদ এর যাবতীয় হিসেবে আগামী ৭ দিনের মধ্যে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

আজ সোমবারে রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, শাসকদলের সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার, সৌগত রায়, অপরূপা পোদ্দারকে নোটিস পাঠাল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার আধিকারিকেরা। এদের সকলকেই তাদের সম্পত্তি ও ব্যাঙ্ক একাউন্টের যাবতীয় হিসেবে ইডির দপ্তরে জমা দেবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, তাঁদের সম্পত্তির সমস্ত নথিপত্র পুংখানুপুমখ ভাবে পর্যালোচনা করার পর অভিযুক্তদের ইডির দপ্তরে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হতে পারে।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!