এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিধানসভা নির্বাচনের আগে সংখ্যালঘু ছাত্রছাত্রীদের মুখে হাসি ফোটাতে ৩ নয়া বৃত্তি ঘোষণা মমতার

বিধানসভা নির্বাচনের আগে সংখ্যালঘু ছাত্রছাত্রীদের মুখে হাসি ফোটাতে ৩ নয়া বৃত্তি ঘোষণা মমতার



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট -রাজ্যের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উন্নতি সাধনার্থে তাঁদের আধুনিক শিক্ষার আলোকে আলোকিত করতে, তাঁদের মধ্যে শিক্ষার বিস্তার ঘটাতে বারবার সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণ করতে দেখা গেছে মমতা বন্দোপাধ্যায় পরিচালিত তৃণমূল কংগ্রেস সরকারকে। এ বিষয়ে আবার পশ্চিমবঙ্গ সরকার নিয়েছে একটি বিশেষ পদক্ষেপ। সংবাদসূত্রে জানা গেছে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে রাজ্যে একটি বিশেষ বৃত্তির ব্যবস্থা চালু করা হলো । এই ব্যবস্থায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রথম থেকে দশম শ্রেণি, একাদশ থেকে পিএইচডি, এছাড়াও পেশাদারি ও কারিগরি কোন কোর্স পাঠরত পড়ুয়ারা এই বিশেষ বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবে রাজ্য সরকারের কাছে।

রাজ্য সরকারের এই নব প্রচেষ্টায় বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, জৈন, মুসলিম, পার্সি, শিখ প্রমুখ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের পড়ুয়ারা বিশেষভাবে উপকৃত হতে পারবে বলে আশা ব্যক্ত করছে রাজ্যের শিক্ষামহল।
তবে, এই বৃত্তির আবেদনের জন্য আবেদনকারীদের উপরে বেশকিছু শর্ত আরোপ করা হয়েছে রাজ্যের শিক্ষা দপ্তরের তরফ থেকে। এই শর্তগুলি নিমরুপ-
১. আবেদনকারী পড়ুয়াদের অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হতে হবে।

২. আবেদনকারীকে তার শেষ পরীক্ষায় ন্যূনতম ৫০% নম্বর পেতে হবে।
৩. একজন পড়ুয়া একাধিক প্রতিষ্ঠান থেকেই বৃত্তি নিতে পারবে না।
৪. পড়ুয়াদের বৃত্তির আবেদন নিবন্ধনের সময়ে তারা একটিমাত্র মোবাইল নম্বর ই নথিভুক্ত
করাতে পারবে। তবে প্রি-ম্যাট্রিক বৃত্তির জন্য একটি মোবাইল নম্বর থেকে
সর্বোচ্চ দুটি বৃত্তির আবেদন করা যাবে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

৫. বৃত্তির আবেদন করার পর আবেদনকারীকে তার আবেদনপত্রের প্রিন্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে
জমা দিতে হবে।
৬. আবেদন কারীকে তার ব্যাকের পাসবইয়ের ছবি সহ তার ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট নম্বর
ও আইএফএসসি কোড বৃত্তির আবেদনপত্রে পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করে দিতে হবে।
৭. ১ আগস্ট থেকে ১৫ অক্টোবর ২০২০পর্যন্ত এই বৃত্তির আবেদন করা যাবে।
৮. যে সমস্ত ছাত্রছাত্রী চলতি ২০১৯-২০ বৃত্তি পেয়েছে, তারা শুধু বৃত্তির রিন্যুয়ালের
জন্যেই আবেদন করতে পারবে।

রাজ্য সরকারের প্রস্তাবিত এই ছাত্রবৃত্তি ভিন্ন নামে ভিন্ন ভাবে দেওয়া হবে –

ক. প্রি-ম্যাট্রিক স্কলারশিপ :- এই বৃত্তি দেওয়া হবে প্রথম থেকে দশম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের
বার্ষিক ১১০০ টাকা থেকে ১১০০০ টাকা। এই বৃত্তির আবেদনের জন্য ছাত্রছাত্রীকে
পশ্চিমবঙ্গ সরকার স্বীকৃত কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়তে হবে, সেশনে সেই পড়ুয়ার
অভিভাবকের বার্ষিক আয় ২ লক্ষের মধ্যে থাকতে হবে।

খ. পোস্ট ম্যাট্রিক স্কলারশিপ :- একাদশ থেকে শুরু করে পিএইচডি কোর্সের পড়ুয়ারা
এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। রাজ্যের স্কীকৃত প্রতিষ্ঠানে পাঠরত
উচ্চমাধ্যমিক, আইটিআই, ডিপ্লোমা, স্নাতক, স্নাতকোত্তর, এমফিল, বিএড ,পড়ুয়ারা
এই বৃত্তির জন্যে আবেদন যোগ্য। এই বৃত্তির দ্বারা বছরে সর্বাধিক ১৬,৫০০ টাকা
পাওয়া যাবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!